Home কুরআন ও হাদিসের আলো কুরআনের আলো দায়ভার

দায়ভার

বিকেলের শীতল সময়ে ঘরে থাকতে একদমই ভালো লাগে না ইবরাহীমের। আসরের পর প্রায় প্রতিদিনই ঘুরতে বেরোয় সে। প্রকৃতির সবুজ সোহাগে সে-ও যেন সবুজ হয়ে ওঠে। প্রতিটি নিঃশ্বাস যেন একেকটি নতুন জীবনের গল্প তৈরি করে।
ইবরাহীমের বন্ধু আফফান বলল- চলো, আজ আমরা আরও দূরে কোথাও যাই। ইবরাহীম প্রথমে রাজি না হলেও, আফফানের কথা একেবারে ফেলতেও পারল না। তবে দু’জনই একমত হলো, তারা মাগরিবের আগেই ফিরে আসবে।

মাগরিবের আজান হচ্ছে। বাবার চোখ ইবরাহীমকে খুঁজে ফিরছে। প্রতিদিন সে-তো আজানের আগেই মসজিদে এসে প্রথম কাতারে বসে থাকে। সালাত শুরু হয়ে গেছে। তখনও আসেনি সে! সালাম ফেরানোর পরও ইবরাহীমকে খুঁজে না পেয়ে বাইরে এসে বাবা তাকিয়ে থাকলেন পথের দিকে। অনেক সময় পার হয়ে গেছে এর মাঝেই। তিনি দোয়া পড়ছেন আর ভাবছেন- কোনো বিপদ হয়নি তো? হঠাৎ চমকে উঠলেন বাবা। ওই তো, ইবরাহীম আসছে! আফফানও সাথে আছে। বাবা প্রথমে বললেন- সালাত আদায় করেছ? ইবরাহীমের গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে আছে। বলল, সুযোগ পাইনি। এখন আদায় করব।

বাবা বাইরে অপেক্ষা করতে থাকলেন। তারা দু’জন মসজিদ থেকে বের হলে দেরি হওয়ার কারণ জানতে চাইলেন। ইবরাহীম বলল, আফফানের অনুরোধে আজ একটু দূরে গিয়েছিল তারা। কিন্তু আফফান কোনো দায়ভার নিতে চাইল না। সে বলল, আমি শুধু যেতে বলেছিলাম, জোর করে তো নিইনি!
বাসায় এসে তিনি ইবরাহীমকে বললেন, দেখলে তো! বিপদের সময় বন্ধুও কীভাবে দায়িত্ব ছেড়ে দেয়? কিয়ামতেও এমন হবে। বিচার শেষ হলে শয়তান জাহান্নামিদের কাছে এসে বলবে- “আল্লাহ তোমাদের জন্য যে ওয়াদা করেছিলেন, তা ছিল সত্য ওয়াদা। আর আমিও তোমাদের ওয়াদা দিয়েছিলাম- কিন্তু আমি তা ভঙ্গ করছি। তোমাদের ওপর আমার কোনোই প্রভাব ছিল না। আমি কেবল তোমাদের আহ্বান জানিয়েছিলাম। আর তোমরা আমার আহ্বানে সাড়া দিয়েছিলে। তাই তোমরা আমাকে তিরস্কার করো না। বরং নিজেদেরকেই তিরস্কার করো। এখানে না আমি তোমাদের আবেদন শুনতে পারি, না তোমরা আমার ফরিয়াদ শুনতে পারো। ইতিপূর্বে তোমরা যে আমাকে শরিক করেছিলে আমি তা অস্বীকার করছি। জালিমদের জন্য আছে ভয়াবহ শাস্তি।” (সূরা ইবরাহীম : ২২)

ইবরাহীম মাথা নিচু করে বসে আছে। অন্যের কথায় প্রভাবিত হয়ে ভুল করা ও মাগরিবের সালাত কাজা হওয়ার অনুশোচনা তাকে হয়তো আরও অনেক পোড়াবে!

SHARE

Leave a Reply