Home নিয়মিত খোলা-ডাক খোলা ডাক

খোলা ডাক

অভিকর্ষ শক্তি

অভিকর্ষ শক্তির প্রভাবে যেমন পৃথিবীর সাথে সবকিছু লেগে থাকে তেমনি প্রিয় বন্ধু কিশোরকণ্ঠের সাথে আমার মন সবসময়ই আটকে থাকে। এর প্রতিটি বিভাগ যেন এক একটি চুম্বক। তাই এর প্রতি আকর্ষণ যেন দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রিয় বন্ধু কিশোরকণ্ঠের প্রতি রইল অন্তরের গহিন থেকে আন্তরিক মুবারকবাদ।
আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ তাহিব, চরম্বা উচ্চবিদ্যালয়, লোহাগাড়া, চট্টগ্রাম

পরশ পাথর

হে প্রাণ প্রিয় কিশোরকণ্ঠ! ১৯৮৪ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০২১ সাল ৩৮ বছর! আজ তুমি অনেক সফল। কুরআনের আলো, হাদিসের আলো নিয়ে ছুটেছো ফেরিওলার মতো বাংলার প্রতিটি গ্রামে। সমাজ থেকে হতাশার বেদনা ঘুচিয়ে আশার আলো দেখাতে। দেশ প্রেমের স্বপ্ন শেখাতে। তুমিতো একটা পরশ পাথর যাকে কাছে পাও তাকে ভেতর থেকে বদলে দাও। অজপাড়া গাঁয়ের যারা তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে সন্দিহান, তাদের দিয়েছ তুমি প্রেরণা। দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে যাবার সাহস যুগিয়েছ। তাদের মনের ভেতরে বপন করছ স্বপ্নের বীজ। তুমি পৌঁছে যাও ঘরে ঘরে। সুভা পাও প্রতিটি শিক্ষার্থীর হাতে। বেঁচে থেকো যুগ যুগ যুগান্তরে।
মুজিবুল হাসান আরিফ, শাপলাপুর, মহেশখালী, কক্সবাজার

প্রকৃত বন্ধু

আমরা আমাদের সর্বোকৃষ্ট বন্ধুটিকে খুঁজে বেড়াই। কিন্তু আমাদের প্রকৃত বন্ধু কে তা খেয়ালও করি। আমার একজন বন্ধু রয়েছে, সেটা হচ্ছে কিশোরকণ্ঠ। কেননা কিশোরকণ্ঠের প্রতিটি পাতায় পাতায় লুকায়িত আছে আমাদের ভালোবাসা, আনন্দ-আমেজ। নিজকে গড়ার মন্ত্র, প্রেরণা, দিক-নির্দেশনা, রহস্যের জগৎ, পথ হারাকে পথের দিশা দেখানো পথিক এবং সর্বোপরি অনন্য অসীম পৃথিবী- তাই কিশোরকণ্ঠ আমার প্রকৃত বন্ধু।
শাহরিয়ার আরাফাত শিমুল, ঈদগাহ, সদর, কক্সবাজার

প্রিয় বন্ধু

আমার ভাইয়া প্রতি মাসের কিশোরকণ্ঠ এনে আমার পড়ার টেবিলে রাখতো। আমি বলতাম ক্লাসের পড়া শেষ না করে আমি অন্য বই পড়বো না। কিন্তু আমি একদিন ভুল করেই কিশোরকণ্ঠ খুলে বসলাম এবং সব পড়লাম তারপর থেকে আমি কিশোরকণ্ঠ আগে পড়ি। কিশোরকণ্ঠ আমার প্রিয় ভালো বন্ধু।
আবিদা ইসলাম, এনায়েতপুর, সিরাজগঞ্জ

SHARE

Leave a Reply