Home কুরআন ও হাদিসের আলো কুরআনের আলো চুপ থাকার রূপকথা

চুপ থাকার রূপকথা

কথা যেন থামছেই না। সবার মুখেই কথার খই ফুটছে। কে কার কথা শুনছে, তা-ও বুঝা যাচ্ছে না। উস্তাদ আমিনুল ইসলাম কখন যে এসে দাঁড়িয়ে আছেন, ছাত্ররা কেউ-ই বুঝতে পারেনি। তিনি সালাম দিলেন। সবার কোলাহল থামলে মুচকি হেসে তিনি বললেন, চলো আমরা কথা বলি ‘কথা’ নিয়েই! কিছু কথা হাসনাহেনার মতো সুবাসিত। ভালোবাসাময়। আর কিছু কথা মানুষকে বিপথগামী করে। কলুষিত করে আমলনামা। এজন্য আমাদের মেপে মেপে কথা বলতে হবে। মনে রাখতে হবে, বেশি কথায় বেশি ভুল!
আহমদ দাঁড়াল। বলল, উস্তাদ! তাহলে তো আমাদের সবসময় চুপ করেই থাকতে হবে!
উস্তাদ বললেন, তা-ই করতে হবে প্রয়োজনে। চুপ থাকাও এক ধরনের অলঙ্কার। যা তোমাকে সুশোভিত করবে। ইমরান ইবনে হিত্তান (রা) বলেন, আমি একবার আবু জার গিফারি (রা) এর কাছে এলাম। তাকে কালো কাপড় পরে মসজিদে একাকী বসে থাকতে দেখলাম। বললাম, কেন এই নির্জনতা? তিনি বললেন, আমি আল্লাহর রাসূলকে বলতে শুনেছি- ‘খারাপ বন্ধুর চেয়ে একাকী থাকা উত্তম। ভালো বন্ধ, একাকিত্ব থেকে উত্তম। ভালো কথা শেখানো, চুপ থাকা থেকে উত্তম। খারাপ কিছু শেখানোর চেয়ে চুপ থাকা উত্তম।’ (বায়হাকি)
উস্তাদ বললেন, এ হাদিস তোমাদের সবার মনে রাখা প্রয়োজন। সাঈদ বলল, উস্তাদ! এ হাদিস সুন্দর করে লিখে আজই ঝুলিয়ে রাখব বাসার দেয়ালে। উস্তাদ খুশি হয়ে বললেন, তুমি তো আবার অঙ্কনশিল্পী! তোমার তুলির পরশমাখা হাদিসটি আমাদের শ্রেণিকক্ষেও তো থাকতে পারে, না-কি? সবাই সুর মেলালো উস্তাদের সাথে। সাঈদ বলল, ইনশাআল্লাহ।
উস্তাদ বললেন, চুপ থাকার মর্যাদা রূপকথাকেও হার মানায়। মহানবী (সা) বলেছেন, নীরব থাকলে যে সম্মান অর্জিত হয়, তা ষাট বছর নফল ইবাদতের চেয়েও উত্তম। (বায়হাকি)। শুধু তা-ই নয়, কেউ চুপ থাকলে শয়তান তার কাছে আসতে পারে না।
আহসান বলল, এখন থেকে আমরা ভালো কথা বলব, নয় চুপ থাকব ইনশাআল্লাহ। উস্তাদের মুখেও হাসি ফুটল, ভালোবাসার।
– বিলাল হোসাইন নূরী

SHARE

Leave a Reply