Home বিজ্ঞান ও বিশ্ব সৌন্দর্যমণ্ডিত নীলাভ গুহা । আল জাবির

সৌন্দর্যমণ্ডিত নীলাভ গুহা । আল জাবির

সৌন্দর্যমণ্ডিত নীলাভ গুহা । আল জাবিরকখনো কখনো প্রকৃতির সৌন্দর্য দেখে আমরা খুবই বিস্মিত হই। মহান রবের সৃষ্টির সৌর্ন্দয কী নিখুঁত! তেমনই অদ্ভুত সুন্দর এক সৃষ্টি হলো চিলির মার্বেল গুহা। চিলির মার্বেল গুহা আশ্চর্য এক রঙের জগৎ।
আর্জেন্টিনার সান্তাক্রুজ প্রদেশের পাতাগোনিয়া এলাকায় লেক বুয়েন্সআইরেস এবং চিলির আইসেন অঞ্চলের চিকো এলাকায় জেনারেল ক্যারেরা লেক নামে সারা বিশ্বে পরিচিত এই বর্ণিল রঙের মার্বেল গুহা। হ্রদটি হিমবাহ এবং আন্দিজ পর্বতমালা দ্বারা পরিবেষ্টিত। এটি বেনার নদীর মধ্য দিয়ে পশ্চিম দিকে প্রশান্ত মহাসাগরের সঙ্গে যুক্ত। এর সারফেস এলাকার আয়তন ১৮৫০ বর্গকিলোমিটার বা ৭১০ বর্গ মাইল। সর্বোচ্চ গভীরতা ৫৮৬ মিটার বা ১৯২৩ ফুট এবং সারফেস এলাকার সর্বোচ্চ উচ্চতা ২১৭ মিটার বা ৭২১ ফুট। বলা হয়ে থাকে, পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর গুহা এটি। এটি একটি মায়াময় নীলাভ গুহা। অসম্ভব সুন্দর এ গুহাট সম্পূর্ণ প্রাকৃতিকভাবে মার্বেল দিয়ে তৈরি। এ গুহার দেয়ালগুলোও বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন আকার-আকৃতির। আর সেখান থেকেই এ গুহার সৌন্দর্য শুরু।
পুরো গুহাটি তিনটি অংশে বিভক্ত।
এগুলো হলো দ্য চ্যাপেল, দ্য ক্যাথাড্রেল এবং দ্য কেভ। ধারণা করা হয়, প্রায় ছয় সৌন্দর্যমণ্ডিত নীলাভ গুহা । আল জাবিরহাজার বছর ধরে পানির স্রোতের কারণে এ গুহাটি তৈরি হয়েছে। ক্যারেরা হ্রদটি পৃথিবীর ১০টি গভীর হ্রদের একটি। এর সর্বোচ্চ গভীরতা ৫৮৬ মিটার।
গুহাটির শৈল্পিক আঁকাবাঁকা নীলচে ডোরা ছোপের দাগগুলো দেখে মনে হয় অসাধারণ প্রতিভাবান কোনো শিল্পী তার মনের মাধুরী মিশিয়ে তৈরি করেছেন এই অপরূপ কারুকাজ। গুহার দেয়ালের অনন্য এসব আকৃতি তৈরি হয়েছে হ্রদের পানির মাধ্যমে।
এ গুহাটি যেমন আশ্চর্য তেমনি অদ্ভুত জেনারেল ক্যারেরা হ্রদের পানিও। অপার্থিব নীল রং এবং স্বচ্ছতায় এ হ্রদের পানির তুলনা হয় না। গুহার অদ্ভুত সৌন্দর্যে পৌঁছানোর আগে এ হ্রদের পানি দেখেই বিস্মিত না হয়ে পারা যায় না। ঋতু ও আবহাওয়ার ওপর ভিত্তি করে এ হ্রদের পানি রং পরিবর্তন করে। যার ফলে নিয়মিত পরিবর্তন ঘটতে থাকে গুহার ভেতরের আলোর রং বা ঙ্গশ দেয়ালের রং।
পানির ধারের মার্বেল দেয়ালের সম্পূর্ণ অংশই খাড়াভাবে পানির মধ্যে তলা পর্যন্ত পৌঁছে গেছে, যা এই মার্বেল গুহাকে দিয়েছে মনোমুগ্ধকর আকর্ষণীয় এক নীলাভ রং। গুহার ওপরের পাথরগুলো ধূসর-সাদা রংয়ের। কিন্তু এর মাঝেই চোখে পড়বে কিছু আঁকাবাঁকা ডোরা দাগ। এই দাগগুলো তাদের সৌন্দর্যের পূর্ণবিকাশ ঘটিয়েছে পানির তলায়, যেখানে নীলাভ এক বিস্ময়ক রূপ ধারণা করে।
সৌন্দর্যমণ্ডিত নীলাভ গুহা । আল জাবিরএটি রোদ ঝলমল এলাকা হলেও সাধারণত তেমন গরম নয়। পানিও ঠাণ্ডা থাকে। ফলে পর্যটকরা আনন্দ উপভোগ করতে পারেন দারুণভাবে আর স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণ করতে পারেন গুহার অভ্যন্তরে। বছরের যে সময়গুলোতে লেকের পানির উচ্চতা হ্রাস পায় সেই সময় ছোট নৌকা নিয়ে গুহাটি ঘুরে দেখা যায় সহজেই। দৃষ্টিনন্দন এই গুহা এখনও বিশ্বে তেমন পরিচিতি লাভ করেনি, তবু এর মনোমুগ্ধকর সৌন্দর্য বিশ্বের সেরা ভৌগোলিক বিস্ময়কর স্থানগুলোর চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।
একদিন হয়তো এই মার্বেল গুহাও বিশ্বের সেরা ভৌগোলিক বিস্ময়কর স্থানের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে। তবে চিলি সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এখানে পাঁচ হাইড্রোপাওয়ার বাঁধ নির্মাণ করবে। এটা নিঃসন্দেহে বলা যায়, এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে এই অঞ্চলে অনন্য ও বিপন্ন প্রজাতির অনেক প্রাণীর আবাসস্থল নষ্ট হবে। তা ছাড়া গুহা ও লেকের অপূরণীয় ক্ষতি হবে।

SHARE

Leave a Reply