Home কুরআন ও হাদিসের আলো হাদীসের আলো হাদীসের আলো

হাদীসের আলো

স্বাধীনতা এক মহা নিয়ামত

বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম
“হযরত উসমান (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা) কে বলতে শুনেছি, দেশের স্বাধীনতা রক্ষায় আল্লাহর পথে একদিন সীমান্ত পাহারা দেয়ার কাজে নিযুক্ত থাকা এক হাজার দিন বাড়িতে বসে ইবাদত করার চেয়ে উত্তম।” (সহীহ তিরমিযী)

সুপ্রিয় বন্ধুরা
স্বাধীনতা যে কত বড় নিয়ামত পরাধীন না হলে তা বোঝা যায় না। দেশের স্বাধীনতা বিপন্ন হলে বিপন্ন হয় মানবতা। মানুষ স্বাধীন না হলে স্বাধীনভাবে আল্লাহর ইবাদত করতে পারে না। আল্লাহর একনিষ্ঠ গোলাম হতে হলে মানুষের গোলামির জিঞ্জির থেকে মুক্ত হওয়া একান্ত প্রয়োজন। বান্দা স্বাধীন না হলে সে প্রকৃত বান্দা হতে পারে না। তাই আল্লাহ প্রতিটি মানবসম্পদকে স্বাধীনভাবে সৃষ্টি করেছেন। আর মানুষ হয়ে যে মানুষকে দাসত্বের শিকলে আবদ্ধ করে, ইসলাম জানায় তাকে চরম নিন্দাবাদ।
ইসলাম বলে মানুষ কেবল গোলামি করবে আল্লাহর, অন্য কারও নয়। তাই বলা যায়, স্বাধীন না হলে পূর্ণ পরাধীন হওয়া যায় না। যায় না স্রষ্টার সামনে নিজেকে বিলিয়ে দেয়া। পৌঁছা যায় না সফলতার চরম শিখরে। তাই ইসলামে স্বাধীনতার গুরুত্ব অপরিসীম। দেশমাতৃকার হেফাজতে আত্মনিয়োগ করতে দেশের কল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দেয়া এটা ইসলামের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। দেশপ্রেম মহৎ গুণ। ফলে একজন সদা জাগ্রত  দেশপ্রেমিক দেশের প্রতি ইঞ্চি মাটির জন্য প্রাণ দিতে প্রস্তুত থাকে। প্রকৃত দেশপ্রেমিক দেশ ও জাতির জন্য এভাবে প্রাণ উৎসর্গ করাকে অবশ্য কর্তব্য বলে মনে করে এবং স্বদেশপ্রীতির প্রেরণায় উদ্বেলিত হয়ে আত্মাহুতি দেয়। দেশের স্বাধীনতা রক্ষার প্রতি গুরুত্বারোপ করে রাসূল (সা) বলেছেন, যে চোখ দেশের সীমান্ত রক্ষায় বিনিদ্র থাকে সে চোখকে জাহান্নাম স্পর্শ করে না। তিনি আরো বলেছেন, দেশের স্বাধীনতা রক্ষায় যে একদিন সীমান্ত পাহারা দেয় সে এক মাস নফল রোজা ও নামাজ পড়ার চেয়েও উত্তম কাজ করে এবং সে মৃত্যুর পর তার কল্যাণকর কাজের প্রতিদান সর্বদা পেতে থাকে আর সম্মানজনক রিজিকপ্রাপ্ত হয় এবং কবরের আজাব থেকে মুক্তি পায়। স্বদেশপ্রীতি সব মহত্ত্বের উৎস, মনুষ্যত্বের প্রসূতি, দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ মানুষ ত্যাগের মহিমায় উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। কারণ সে নিজ স্বার্থ ত্যাগ করে দেশ ও জাতির জন্য জীবন উৎসর্গ করে। স্বাধীনতা আল্লাহ তাআলার মহা নিয়ামত। স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকার মাঝেই রয়েছে পরম তৃপ্তি।
প্রিয় বন্ধুরা,
এসো দেশপ্রেমিক জাতি হিসেবে স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হই।

গ্রন্থনায় : আবদুল কুদ্দুস মাখন

SHARE

Leave a Reply