Home কুরআন ও হাদিসের আলো কুরআনের আলো কুরআনের আলো

কুরআনের আলো

নতুন বছরের অঙ্গীকার

“আর স্বরণ করো! তোমাদের প্রভু ঘোষনা করলেন- তোমরা যদি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করো তাহলে আমি অবশ্যই নেয়ামত বাড়িয়ে দেব, আর অকৃতজ্ঞ হলে নিশ্চয়ই আমার শাস্তি হবে সুকঠিন।? (সূরা ইব্রাহিম, আয়াত : ৭)
সুপ্রিয় বন্ধুরা, দেখতে দেখতে অমূল্য জীবন থেকে চলে গেল আরো একটি বছর। সময় ও স্রোতের টানে প্রতিনিয়ত এভাবেই ঘুরে আসছে বছরের পর বছর। বছরের শুরুতে আমরা আনন্দে মেতে উঠি। আমরা ভুলে যাই- নববর্ষ জীবনে একটি বছর শুরুর আনন্দের সঙ্গে আরেকটি বছরের বিদায়ের বেদনাও জড়িত। তাই কাজে-কর্মে আনন্দ ও বেদনায় ভারসাম্য থাকা বাঞ্ছনীয়। জন্মঘাট থেকে ছেড়ে আসা জীবনতরী মৃত্যুঘাটে অগ্রসর হচ্ছে অবিরাম। তাই বছরের সন্ধিক্ষণে পরপারের যাত্রী হিসেবে বিগত জীবনের হিসাব মিলিয়ে দেখা প্রয়োজন। রাসূলে করীম (সা) ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা নিজেরা নিজেদের হিসাব নাও তোমাদের হিসাব নেওয়ার আগে।’ তিনি আরো ইরশাদ করেছেন, ‘বুদ্ধিমান সে যে নিজের কুপ্রবৃত্তিকে নিজের অনুগত করে নেয় এবং মৃত্যু পরবর্তী জীবনের জন্য কাজ করে। আর নির্বোধ সে যে নিজের কুপ্রবৃদ্ধি অনুসরণ করে এবং আল্লাহর কাছে বড় বড় আশা করে।’
জীবন থেকে আরো একটি বছরের বিদায়লগ্নে বিগত জীবনের কর্মের যাচাই করা দরকার। সে অনুপাতে ত্র“টি-বিচ্যুতি, গুণাহ-খাতার জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া দরকার। রাসূল (সা) বলেছেন, আমি বুদ্ধিমান না নির্বোধ? খোদা প্রদত্ত অমূল্য নেয়ামতগুলোর যথার্থ সদ্ব্যবহার আমার দ্বারা হয়েছে কি ? নিজস্ব পরিমণ্ডলে ভেবে দেখা যেতে পারে, কর্মের হিসেব নেয়া যেতে পারে। ব্যক্তি জীবন থেকে শুরু করে সামগ্রিক জীবন পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে কতটুকু সময় কী কাজে ব্যয় হয়েছে। সে মতে বছরের পালাবদলে নতুন বছর বরণে হারানো ও প্রাপ্তি অনুপাতে আনন্দ-বেদনার ভারসাম্য রেখে যথার্থ পদক্ষেপ নিতে হবে। বিগত সময়ের মূল্যায়ন করে নতুন বছরের সঠিক গতিপথ নির্ধারণ করতে হবে এবং তা বাস্তবায়নে সে মতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে হবে। মনে রাখতে হবে প্রত্যেক নেয়ামতেরই নেয়ামত অনুপাতে শুকরিয়া রয়েছে। তাই আল্লাহ প্রদত্ত নেয়ামতের যথার্থ শুকরিয়া আদায় করতে হবে।
একই সঙ্গে সামনের দিনগুলোতে কল্যাণের পথে চলার অঙ্গীকার করতে হবে। আল্লাহর দেয়া বিধান অনুযায়ী চলার দৃঢ়প্রত্যয় নিয়ে সামনের পথচলাকে করতে হবে আরো উন্নত ও সফল।
প্রিয় বন্ধুরা, এসো বিগত দিনের নেয়ামতের যথার্থ শুকরিয়া আদায় করি আর নতুন বছরে অঙ্গীকার করি কল্যাণের পথে চলার।
গ্রন্থনায় : আবদুল কুদ্দুস মাখন

SHARE

Leave a Reply