Home নিয়মিত বিশ্ব শিশু দিবস ও আমাদের শিশুশ্রম

বিশ্ব শিশু দিবস ও আমাদের শিশুশ্রম

আজকের শিশুই আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। আগামী দিনের দেশশাসক। কবি। সাহিত্যিক। বিজ্ঞানী। বুদ্ধিজীবী। কলামলেখক। সাংবাদিক। সম্পাদক। আইনজীবী। সমাজসেবক।

এই ভবিষ্যৎ প্রবক্তাদের চোখে-মুখে যদি আমরা আলোর রেণু এঁকে দিতে চাই, তাহলে সবার আগে তাদের উপযোগী পৃথিবী আমাদের গড়ে দিতে হবে। তাদের বেড়ে উঠতে দিতে হবে অনুকূল পরিবেশে। আর আমরা যদি তাদের সেই শিশুবান্ধব পরিবেশ উপহার দিতে ব্যর্থ হই, তাহলে আমরা যত স্বপ্নই তাদের ঘিরে দেখি না কেন, সব বরবাদ হয়ে যাবে, যা আমরা অবশ্যই কখনো চাইব না।
একটি শিশুর চোখে সব সময় সকল রকম সম্ভাবনার বারুদ ফিনকি দেয়। সেই বারুদে কেবল আগুন ঢেলে দিতে হবে, যাতে তারা তাদের মেধা ও মননকে সঠিক জায়গায় নিয়ে লালন-পালন করতে পারে।
মানুষের মৌলিক অধিকার- অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, শিক্ষা এই ৫টি বিষয়কে যদি আমরা পুরোপুরিভাবে শিশুদের জন্য নিশ্চিত করতে পারি, তাহলে আমরা যা চাই তা পাওয়াটা বোধ করি খুব কঠিন হবে না।
এক দলা কাদামাটি আর একটা শিশুতে আসলে মৌলিক কোনোই পার্থক্য নেই। নরম কাদামাটিতে যেমন ইচ্ছেমতো একজন কারিগর যা ইচ্ছে তাই বানাতে পারেন, ঠিক একইভাবে একটি শিশুকে একই প্রক্রিয়ায় গড়ে তোলা অসম্ভব নয়।
একজন সাধারণ মানুষের মতোই একটি শিশুর অধিকার সমান। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে শিশুর প্রয়োজনকেই অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। সবার আগে শিশুর জন্য ‘হ্যাঁ’ বলতে হবে। বিষয়টি খুবই চমৎকার। কিন্তু সেটি আমাদের পরিবারের গণ্ডির মধ্যেই সীমাবদ্ধ। এই ‘হ্যাঁ’ বলার প্রক্রিয়া আমাদের পরিবারের সীমারেখা ভেদ করে বাইরে বেরিয়ে আসতে পারেনি। তার মানে কেবল আমাদের পরিবারে বেড়ে ওঠা শিশুর বাইরেও অনেক শিশু রয়েছে, যারা দীনহীনভাবে বসবাস করে। দু’বেলা দু’মুঠো অন্নই যেখানে ঠিকমতো তাদের জোটে না। সেখানে অন্যান্য চাহিদার কথা তো সুদূর পরাহত। এ জন্য কেবল আমাদের পরিবারে বেড়ে ওঠা শিশুর জন্যই নয়, এই বিষয়টি ‘এক বিশ্ব এক শিশু’ হিসেবে যেদিন আমরা ভাবতে শিখতে পারবো, সেদিনই আমাদের সমাজে শিশুর সকল মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারবো।

১৯৮৯ সালের ২০ শে নভেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে গৃহীত হয়েছে জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ। ইংরেজিতে একে সংক্ষেপে  C R C (Convention on the Right of the Child) বলা হয়। বাংলাদেশ এই সনদে প্রথম স্বাক্ষরকারী দেশসমূহের অন্যতম। ১৯৯০ সালের ৩ আগস্ট জাতিসংঘে বাংলাদেশসহ ২২টি দেশ এই সনদের প্রতি পুনরায় সমর্থন জানায়। ১০৫টি দেশ সনদটিতে স্বাক্ষরের প্রেক্ষিতে ১৯৯০ সালের ২ সেপ্টেম্বর থেকে জাতিসংঘ গৃহীত ‘শিশু অধিকার সনদ’ সমগ্র বিশ্বের শিশুদের জন্য সর্বমোট ৫৪টি ধারা সংবলিত অধিকারকে স্বীকার ও সংরক্ষণের জন্য আইনগত ভিত্তি তৈরি করে।
একটি সমাজে পরিবার যেহেতু প্রাথমিক সংগঠন এবং এর সকল সদস্য বিশেষ করে শিশুদের বিকাশ ও কল্যাণের স্বাভাবিক পরিবেশ, সে কারণে তাকে প্রয়োজনীয় সুরক্ষা এবং সহায়তা দিতে হবে। যাতে সে সেখানে তার দায়িত্বসমূহ পুরোপুরি গ্রহণ করতে পারে। এ ব্যাপারে আস্থাশীল হয়ে শিশুর ব্যক্তিত্বের পূর্ণ ও সুষম বিকাশের স্বার্থে আনন্দ, ভালোবাসা ও সমঝোতাপূর্ণ পারিবারিক পরিবেশে তাদের বেড়ে উঠতে দিতে হবে। আর সমাজে স্বকীয় জীবনযাপনের জন্য শিশুকে পুরোপুরি প্রস্তুত করে তুলতে হবে এবং জাতিসংঘ ঘোষণায় বর্ণিত আদর্শসমূহের আলোকে বিশেষভাবে শান্তি, মর্যাদা, সহনশীলতা, স্বাধীনতা, সমতা ও সংহতির চেতনায় তাকে গড়তে হবে।
মোটামুটি কথা হচ্ছে- এই সনদের শরিক রাষ্ট্রসমূহ শিশুদের বেঁচে থাকা এবং বিকাশের ক্ষেত্রে সম্ভাব্য সর্বাধিক নিশ্চয়তা দেবে। জন্মের পরপরই শিশুর নিবন্ধীকরণ করতে হবে। জন্ম থেকেই তার নামকরণ লাভের, একটি জাতীয়তা অর্জনের এবং যতটা সম্ভব পিতামাতার পরিচয় জানার ও তাদের হাতে প্রতিপালিত হওয়ার অধিকার থাকতে হবে- এ সকল বিষয়ই হচ্ছে শিশুর অধিকারসমূহের খসড়া। কিন্তু কথা হচ্ছে, যে সকল অধিকারের প্রাপ্যতা তাদের রয়েছে তা আমাদের সমাজে কতটুকু প্রতিপালিত হচ্ছে। হয়তো হচ্ছে তা ঘরোয়া পরিবেশে। নিজ নিজ সন্তানের বেলায়। কিন্তু যখনই সে সন্তান ওই একই ঘরোয়া পরিবেশে কাজের ছেলে বা মেয়ে হয়ে অবস্থান করে, তখন তা কিভাবে লঙ্ঘিত হয় সে বিষয় আমরা বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিকস মিডিয়ায় প্রায়ই দেখতে পাই। গৃহকর্তা-গৃহকর্ত্রীর হাতে সামান্য অপরাধে নির্যাতিত-নিষ্পিষ্ট হতে দেখে আমাদের মনে ঘৃণার উদ্রেক করে। এমনকি গৃহকর্মীর অস্বাভাবিক মৃত্যুর খবরও পাওয়া যায়, যা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। টুকরো টুকরো এ সমস্ত ঘটনাই প্রমাণ করে এই অঙ্গীকারবদ্ধ সমাজ আমাদের শিশুদের নিরাপত্তা এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি। সমাজের অভ্যন্তরে তারা নিরাপদে অবস্থান করতে পারে এমন অনুকূল পরিবেশ আমরা গড়তে পারিনি।
শিশুশ্রম নিষিদ্ধ হলেও এই সমাজে শিশুশ্রমের ব্যাপক বাজার রয়েছে। শিশুদের সহজে ঠকানো যায়, চোখ রাঙানি দিয়ে অতিরিক্ত কাজ করিয়ে নেয়া যায় বলে কোনো কোনো ক্ষেত্রে শিশুদের নিয়োগের ব্যাপারে দারুণভাবে উৎসাহিত হতে দেখা যায়। এটা যে কতটা গর্হিত কাজ তা সচেতন মানুষ মাত্রেই বুঝবেন। এই মানসিকতা আমাদের যতদিন না বদলাবে ততদিন শিশু অধিকারের সকল বিষয়ই সূক্ষ্মভাবে লঙ্ঘিত হতে থাকবে।
শিশুশ্রমের ব্যাপারে বলা হচ্ছে- ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সের শিশুদের বেতন, মুনাফা বা বিনাবেতনে কোনো পারিবারিক খামার, উদ্যোগ বা সংস্থায় কাজের জন্য নিয়োগ করা শিশুশ্রমের আওতায় পড়বে। অর্থনৈতিক টানাপড়েনে বেশির ভাগ পরিবারকে তাদের সন্তানদের উপার্জনমূলক কাজে জড়িত করে থাকে। ১৫ বছরের নিচে বিশ্বের প্রায় দশ ভাগের এক ভাগ অর্থাৎ ১৫০ মিলিয়ন শিশু বিভিন্ন পেশায় যুক্ত রয়েছে। এর মধ্যে বেশকিছু পেশা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এসব কর্মজীবী শিশুর বেশির ভাগই চরম দারিদ্র্য ও বঞ্চনার মধ্যে বড় হয় এবং বেঁচে থাকে। তারা উন্নত জীবনের জন্য শিক্ষাগ্রহণ ও দক্ষতা উন্নয়নের কোনো সুযোগ পায় না।
জানা যায়, অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষভাগে গ্রেট ব্রিটেনে কারখানা চালু হলে সর্বপ্রথম শিশুশ্রম একটি সামাজিক সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পূর্বাঞ্চল ও মধ্য পশ্চিমাঞ্চলে গৃহযুদ্ধের পর এবং দক্ষিণে ১৯১০ সালের পর শিশুশ্রম একটি স্বীকৃত সমস্যা হিসেবে দেখা দেয়। আগের দিনে শিশুরা কারখানায় শিক্ষানবিস অথবা পরিবারে চাকর হিসেবে কাজ করতো। কিন্তু কারখানাগুলোতে তাদের নিয়োগ দ্রুতই প্রকৃত অর্থে হয়ে দাঁড়ায় দাসত্ব। ব্রিটেনে ১৮০২ সালে এবং পরবর্তী বছরগুলোতে সংসদে গৃহীত আইনে এ সমস্যার নিরসন হয়। ইউরোপের অন্যান্য দেশে একই ধরনের আইন অনুসরণ করা হয়। যদিও ১৯৪০ সাল নাগাদ বেশির ভাগ ইউরোপীয় দেশে শিশুশ্রম আইন প্রণীত হয়ে যায়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় উৎপাদন বৃদ্ধির প্রশ্নে বহু শিশুকে আবার শ্রমবাজারে টেনে আনে।
বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রের মতো বাংলাদেশেও অভাব-অনটনের সংসারে একটি শিশুকে উপার্জনের ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়। সংসারের প্রাপ্ত বয়স্কদের সঙ্গে সঙ্গে তাদের কাঁধেও সংসারের দায় বর্তায়। আর জীবনের শুরুতেই উপার্জনমূলক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ শিশুদের শিশুত্বকে নষ্ট করে দেয়। ফলে তারা সেখান থেকেই ঝরে পড়ে। একটি কোমলমতি শিশুর জীবনের সকল স্বপ্ন-কল্পনার সেখানেই অপমৃত্যু ঘটে।
আমাদের দেশে ৫ থেকে ১৪ বছরের শিশুদের ঘরে, মাঠে এবং কারখানায় কাজ করতে দেখা যায়, যা অনেকটা বিনা বেতনেই বলা চলে। বেতন মিললেও তা অতি সামান্য। কেউ কেউ পেটে-ভাতেই সারাদিন হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে। এখানে নানা সভা-সেমিনারে শিশু অধিকারের কথা বলা হলেও বিষয়টিতে প্রকৃত অর্থে সামান্যই গুরুত্ব দেয়া হয়। শিশু অধিকারের অব্যাহত অপব্যবহার এবং লঙ্ঘন উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ঘনবসতি, সীমিত সম্পদ এবং ঘন ঘন প্রাকৃতিক দুর্যোগ বাংলাদেশের দারিদ্র্য পরিস্থিতিকে জটিল করে তুলেছে এবং এ অবস্থায় শিশুরাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।
শিশুরক্ষায় আইন আছে। তার সঠিক প্রয়োগই পারে আমাদের কোমলমতি শিশুদের সকল অধিকার নিশ্চিত করতে। এসো, আমরা শিশু অধিকার সম্পর্কে সচেতন হই, পাশাপাশি আমাদের মতো কোনো শিশু যেন আমাদের দ্বারা নির্যাতিত, অত্যাচারিত না হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখি। সম্ভব হলে তাদের সাহায্য-সহযোগিতায় এগিয়ে আসবো এই হোক আজকের দিনে আমাদের অঙ্গীকার।

কামাল হোসাইন

SHARE

2 COMMENTS

  1. ami May 2011 sonkhar BOLTE PARO n SHOBDODHDHA page ta chai March 2011 er participate kora sobar nam dekhbo

Leave a Reply