Home জানার আছে অনেক কিছু বালির উৎপত্তি যেভাবে হলো

বালির উৎপত্তি যেভাবে হলো

দালানকোঠা বানাবেন, তো লোহা-লক্কড়ের সঙ্গে যে জিনিসটি সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তা হলো বালি। কিন্তু এই বালির উৎপত্তি হলো কেমন করে, তা নিশ্চয়ই ভাবনার বিষয়। বালি আসলে উৎপন্ন হয় শিলাখণ্ড থেকে। আবহাওয়ার নানা বৈচিত্র্যের কারণে অনেক সময়ই শিলাখণ্ড ক্ষয়ে যায়। তা ঝড়বৃষ্টি এবং হিমের কারণে ঘুরে ঘুরে এঁকেবেঁকে নানা পথ দিয়ে পার হয়। সৈকতে আমরা যে বালি দেখি তা শিলাখণ্ডের উত্তপ্ত বালি। লবণাক্ত পানিও এক ধরনের বালি, যা শিলাখণ্ড থেকে খনিজ পদাথের্ঞ্চর ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়।
প্রকৃতপক্ষে খনিজ পদাথর্ঞ্চ তৈরি হয় শিলাখণ্ড থেকে আর বালিও আসে সেই শিলাখণ্ড থেকেই। সুতরাং ধরেই নেওয়া যায়, খনিজ পদাথর্ঞ্চও এক ধরনের বালি। আর এ কারণেই সিমেন্ট তৈরির জন্য চুনাপাথর পুড়িয়ে যে পদাথর্ঞ্চ পাওয়া যায় তা, জিপসাম, কেলাসিত খনিজ শিলাবিশেষ, এমনকি আকরিক লোহাও বালির অন্যতম উপাদান।

পটেটো চিপসের জন্মরহস্য
বিশে¡র অসংখ্য মুখরোচক খাবারের মধ্যে পটেটো চিপস একটি। মুখে পুরে দিলেই মচমচ একটি শব্দ হয়ে মিলিয়ে যায় মুখের ভেতর। পুষ্টিকর হওয়ায় শিশু-কিশোরদের কাছে তো বটেই, সকল বয়সীদেরই পছন্দ পটেটো টিপস। কিন্তু এই উপাদেয় খাবারটি কীভাবে এলো, তা নিশ্চয়ই একটি প্রশ্নের ব্যাপার। হয়তো পটেটো চিপসের অসাধারণ স্বাদ নিয়ে বন্ধুবান্ধবকে জিজ্ঞেসও করেছো- কে বানালো এমন মজার খাবার! খাবারটির মতোই মজার একটি গল্প আছে এটি তৈরি নিয়ে আর সেটি হলো, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরের এক হোটেলের বাবুর্চি ছিলেন সারাটোগা নামে এক ব্যক্তি। তিনি অতিথিদের জন্য এক রাতে আলু লম্বাভাবে চিকন করে কেটে তা দিয়ে একটি মেন্যু তৈরি করেন। কিন্তু তা অতিথিরা না খেয়ে ফেরত দেন এবং বাবুর্চিকে ভর্ৎসনা করেন। তখন সারাটোগা সেগুলো তেল দিয়ে ভেজে মচমচে করে অতিথিদের সামনে দেন। তারা এতে খুব সন্তুষ্ট হন এবং বাবুর্চির প্রশংসা করেন। এভাবেই ১৮৬৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম পটেটো চিপসের উদ্ভব হয়। তবে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের জন্য নিউইয়র্কে প্রথম ফ্যাক্টরি তৈরি করা হয় ১৯২৫ সালে।

জে হুসাইন

SHARE

Leave a Reply