Home Featured শিক্ষাপাতা ইংরেজি ভাষা শেখার বিকল্প নেই -নাইম হোসাইন

ইংরেজি ভাষা শেখার বিকল্প নেই -নাইম হোসাইন

আমরা প্রত্যেকেই ইংরেজি ভাষায় দক্ষ হতে বিভিন্নভাবে ইংরেজি শিখছি। বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে ধরনা দিচ্ছি, অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স কিনছি কিন্তু এরপরেও প্রত্যাশিত ফলাফল অধরাই থেকে যাচ্ছে। এর পেছনের কারণগুলো কী? সেটা নিয়ে Analysis হতে পারে। তবে যেভাবেই আমরা Analysis করি না কেন, ইংরেজিতে দক্ষ না হওয়ার পেছনে যে কারণটি সবসময় Root cause হিসেবে সামনে আসে তা হলো ‘এটাকে নিয়মিত চর্চা না করা।’
কারণ ইংরেজি একটি ভাষা, Subject নয়। যে কোনো Subject সাধারণত একটি নির্দিষ্ট সিলেবাসের আলোকে অধ্যয়ন করে পরীক্ষা দিয়ে ডিগ্রি বা গ্রেড পেলেই পড়া শেষ হয়ে যায়। এর জন্য Real life-এ চর্চার কোনো প্রয়োজন নেই।
অন্যদিকে ভাষা শিখতে হলে সেটিকে নিয়মিত চর্চা করতে হয় ব্যক্তিজীবনে, সমাজে, অফিসে তথা জীবনের সকল ক্ষেত্রেই। কারণ ভাষার মাধ্যমে আমরা আমাদের সকল কার্যক্রম, অনুভূতি শেয়ার করে থাকি। আমরা যা করি, যা দেখি, যা প্রকাশ করি এর সকল কিছুই ভাষার মাধ্যমে তুলে ধরি। সুতরাং ভাষা শিখতে হলে আমাদের জীবনকে ভাষার সাথে সম্পৃক্ত করতে হবে কিংবা ভাষাকে জীবনের সকল কিছুর সাথে সংযুক্ত করতে হবে। সেক্ষেত্রে আমরা প্রতিদিন, মাস, বছর-যখন যা করি সেখানেই ভাষাকে প্রয়োগ করব যেহেতু ভাষা কোন নির্ধারিত সিলেবাস বা পরীক্ষা দেওয়ার মাধ্যমে শেখা যায় না বরং এটাকে আমাদের জীবনের সকল ক্ষেত্রে সকল সময়ে প্রয়োগ করার মাধ্যমে শেখা যায় তথা শিখতে হয়।
আর তাই, নিয়মিত চর্চা করার জন্য সবচেয়ে সহজ পন্থা হলো- প্রথমে নিজের ব্যক্তিগত জীবনের কার্যক্রমকে ইংরেজি ভাষায় বলা। কারণ আমরা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে যা করে থাকি তা সাধারণত রিপিট বা পুনরাবৃত্তি হয়। এর ফলে এই ঘটনাগুলো ইংরেজিতে বললে তা আমরা বারবার বলার সুযোগ পাবো যা আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেবে বহুগুণে।
তাহলে চলো আমরা প্রতিদিন যা করি সেগুলোকেই ইংরেজিতে বলতে চেষ্টা করি। ধর- তুমি প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে অজু করে নামাজ পড়ো এরপর কিছু সময় হাঁটাহাঁটি করো, তারপর নিজের রুম গুছিয়ে পড়তে বসো এভাবে দিনের বাকি কাজগুলোও তুলনামূলকভাবে সহজে বলা যায়, এবং নিজের ব্যক্তিগত জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে তুলে ধরা যায়। যেকোনো কিছুই যখন নিজের ব্যক্তিগত জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে শেখা হয় সেটা সাধারণত সহজ ও কার্যকর হয়।
তাহলে চলো আমরা আজকে দেখব- তুমি প্রতিদিন কী কাজ করো, গতকাল কী করেছিলে এবং আগামীকাল কী করবে- এটাকে ইংরেজিতে লিখে চর্চা করি।
তুমি বলছ- আমি প্রতিদিন সকাল ৪টায় ঘুম থেকে উঠি। এরপর অজু করে নামাজ পড়ি। নামাজ পড়ে আল কুরআন তেলাওয়াত করি এবং সকালে কিছু সময় হাঁটাহাঁটি করি। তারপরেই বাসায় ফিরে নিজের রুম গুছিয়ে পড়তে বসি। পড়া শেষে গোসল করে সকালের নাস্তা করি এবং এর পরেই স্কুলে যাই। স্কুলে সকাল ৯টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত ক্লাস করি। ক্লাস শেষে জোহরের নামাজ পড়ে দুপুরের খাবার খাই। এরপর কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে পড়তে যাই। পড়া শেষে বিকেলে খেলাধুলা করি।
I get up at 4.00 am everyday. Then I take ablution and say my Fazr Prayer. By saying prayer I recite Qur’an and go for jogging. Immediately after that I come home, make my bed and start studying. After studying I have a shower and have breakfast. Next, I go to school and take classes from 9.00 am to 1.00 pm. After that I say my Zuhr prayer and have my lunch. By having lunch I take rest for a short time and go to my private tutor’s home for taking classes. By taking classes I play in the afternoon.

এখন আমরা একই ঘটনা অতীতের আলোকেও তুলে ধরতে পারি।
I got up at 4.00 am yesterday. Then I took ablution and said my Fazr prayer. By saying prayer I recited Qur’an and went for jogging. Immediately after that I came home, made my bed and started studying. After studying I had a shower and had breakfast. Next I went to school and took classes from 9.00 am to 1.00 pm. After that I said my Zuhr prayer and had lunch. By having lunch I took rest for a short time and went to my private tutor’s home for taking classes. By taking classes I played in the afternoon.

এবার তুমি আগামীকাল কী করবে সেটা লিখে ফেল। আমরা প্রত্যেকেই আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের ঘটনাগুলো যদি ইংরেজিতে লিখে চর্চা করতে পারি তাহলে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই আমরা ইংরেজিতে কথা বলার আত্মবিশ্বাস অর্জন করব। এবং ঘটনাগুলো যেহেতু বারবার ঘটে থাকে সেহেতু বারবার চর্চা করার সুযোগও সৃষ্টি হবে। যা পরবর্তীতে ইংরেজি ভাষাকে আমাদের জীবনের সাথে পুরোপুরি সম্পৃক্ত করতে সহযোগিতা করবে।
তাহলে তোমাদের কাজ-
১. তোমার ছোটো ভাই বা বোন সারাদিন কী কী কাজ করে সেটা লিখে চর্চা করো।
২. তোমার বাবা বা মা সারাদিন কী করেন সেটা লিখে চর্চা করো।
৩. তুমি গতকাল কী করেছিলে, আজ সারাদিন কী করেছ এবং আগামীকাল কী করবে সেটা লিখে চর্চা করতে থাকো।

SHARE

Leave a Reply