Home ছড়া-কবিতা কবিতা আমাদের নদী -ফারুক হোসেন

আমাদের নদী -ফারুক হোসেন

তিন ভাগ এই মহাবিশ্বের অসীম পৃষ্ঠতল,
মহাসাগরের উপসাগরের সাগরের নোনা জল।
মহাসাগরেরা অঞ্চলভেদে আলাদা পরস্পর,
পাঁচ নামে পরিচিত জলরাশি পাঁচটি মহাসাগর।

বৃষ্টিপাতের উৎস, বৃক্ষ, বাতাসের গতিপথ,
জলবায়ু, তাপমাত্রা, জলের প্রাণিকুল সম্পদ,
ভূগঠন থেকে জীবন ধারার সময়কাল ও পদ,
মহাসাগরের প্রভাব বলয়ে, বলেছেন বিশারদ।

মহাসাগরের সবচেয়ে বড়, ‘প্রশান্ত’ তার নাম,
বিশ্ব জলের অর্ধেকটা সে, নীল নীল অবিরাম।
দ্বিতীয় বৃহৎ মহাসাগরের নাম আটলান্টিক,
‘ভারত’ নামের মহাসাগরের অভিন্ন সবদিক।

সবচেয়ে ছোট ‘দক্ষিণ’ মহাসাগরের পরিচয়,
কখনও কখনও এর নাম নাকি অ্যান্টারটিকা হয়।
‘উত্তর’ মহাসাগরকে কেউ বলছেন আর্কটিক
মহাসাগরেরা হলো সীমাহীন, তাকাও যে কোন দিক।

মহাসাগরেরা সাগরে সাগরে ছড়িয়ে দিয়েছে প্রাণ,
দেশ মহাদেশ অঞ্চলভেদে নিয়েছে অবস্থান,
যেমন লোহিত আরব কোরাল বাল্টিক তাসমান
কৃষ্ণসাগর গালফ ভূমধ্য বেরিং কাস্পিয়ান।

সাগরের উপসাগরের সাথে যুক্ত নদীর পথ,
নদীমাতৃক দেশের এ যেন মায়ের নাকের নথ।
মহাসাগরের সাগরের উপসাগরের এত জল,
আমাদের নদী অথচ শুকিয়ে যাচ্ছে অনর্গল।

SHARE

Leave a Reply