Home কুরআন ও হাদিসের আলো হাদীসের আলো চাঁদের সেরা চাঁদ

চাঁদের সেরা চাঁদ

হাসনাহেনার অনুপম গন্ধে মন আর পড়ার টেবিলে বসছে না! জানালার পর্দা সরিয়ে বাইরে তাকিয়েই মেহরাব চমকে উঠল। থোকা থোকা ফুল তারার মতো ফুটে আছে হাসনাহেনা গাছের সমস্ত শরীরে। এ যেন দুধেধোয়া ফুলতারা! আকাশেও তারা আছে আজ। আছে থালার মতো এক চাঁদ। জোছনায়, সুবাসে চারদিকে যেন ফেরদাউসের উৎসব!
নিজেদের বাড়ির আঙিনায় ফুলের গাছগুলো লাগিয়েছিল মেহবুব। মেহরাবের বড় ভাই। বড় ভাইয়াকে এ খবর না জানালে কি হয়? ভাইয়া তার পড়াশোনা নিয়ে পড়ে আছে। মেহরাব দৌড়ে গিয়ে বলল- ভাইয়া! দেখ, দেখ! বাগানে কত ফুল, আকাশে কত তারা! ভাইয়া বললেন- তা তো বুঝতেই পারছি। এ-তো পাগল করা ঘ্রাণ! আহা! চলো- একটা কাজ করি। আমরা ছাদে চলে যাই। জোছনায় ভিজি। ঘ্রাণে ডুবে যাই! গল্পে-গানে পার করি এই রুপালি সময়!
যেই কথা সেই কাজ! ছোট বোন মুহসিনাকেও ডেকে নিলো সাথে। মুহসিনাকে সবাই প্রজাপতি ডাকে। ভাইয়াদের ডাক শুনে প্রজাপতিও উড়তে লাগল ডানা মেলে! আজ আর পড়াশোনা নেই! আহা! কী আনন্দ!
ছাদে গিয়ে মাদুর পেতে বসল সবাই। বড় ভাইয়া তো চাঁদের চমকিত রূপ দেখে গানই শুরু করে দিলেন-
‘চাঁদের চেয়ে সুন্দর তুমি! নবী আমার সাল্লি-আলা!
সুখে-দুঃখে রাসূল তোমার প্রিয় হাবীব আল্লাহ-তা’লা’
মেহরাব বলল- এ গান তো আমার ভীষণ প্রিয়। মহানবী (সা) কি চাঁদের চেয়েও সুন্দর ছিলেন? ভাইয়া বললেন- অবশ্যই। জাবির বিন সামুরাহ (রা) বলেন- একবার পূর্ণিমা রাতে, রাসূল (সা)-কে আমি লাল পোশাক পরিহিত অবস্থায় দেখলাম। তখন আমি তাকাতে থাকলাম- একবার তাঁর দিকে এবং একবার চাঁদের দিকে। আমার কাছে মনে হলো, চাঁদের চেয়ে তিনিই তো বেশি সুন্দর! (তিরমিজি)।
তিনি ধবধবে সাদা ছিলেন না। আবু হুরাইরাহ (রা)-এর দৃষ্টিতে ‘তিনি ছিলেন রূপার বরণ’! (তিরমিজি)। আর জাবির ইবনে সামুরাহ (রা)-এর ভাষায়- মহানবী (সা)-এর ‘মুখ ছিল প্রশস্ত! চোখের শুভ্রতার মাঝে ছিল লালিমা!’ (মুসলিম)। সবকিছুতেই মহানবী (সা) ছিলেন ভারসাম্যপূর্ণ। তিনি অতিরিক্ত লম্বা ছিলেন না, আবার খাটোও ছিলেন না। চুল ছিল মাঝারি রকমের। অধিক কোঁকড়ানোও না, অধিক সোজাও না। (বুখারি)।
প্রজাপতি অবাক হয়ে বলল- এত সুন্দর ছিলেন আমাদের প্রিয় নবী (সা)! মেহরাব বলল- ভালোই হলো আজ ছাদে এসে। এক চাঁদ দেখতে এসে আরেক চাঁদের গল্প জানলাম। এক ফুলের সৌরভে উতলা হয়ে হারিয়ে গেলাম আরেক ফুলের পাপড়ি-পাতায়!
এদিকে ইশার আজান হচ্ছে। ভাইয়া বললেন- চলো, সালাতের প্রস্তুতি নিই। আর ভালোবেসে দরুদ পড়ি- আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদ! বিলাল হোসাইন নূরী

SHARE

Leave a Reply