Home কুরআন ও হাদিসের আলো হাদীসের আলো বিতর্ক

বিতর্ক

যেখানেই বিতর্ক প্রতিযোগিতা, সাফওয়ান সেখানেই উপস্থিত। বিতর্ক তার খুব প্রিয় একটি বিষয়। তার বইয়ের আলমারিতে বিতর্কের ওপর লেখা কত কত বই আছে, হিসাব নেই! বড় হয়ে সে অনেক বড় বিতার্কিক হতে চায়! যুক্তির সৌন্দর্যে করতে চায় বিশ্বজয়!
তার বিদ্যালয়ের নিয়মিত আয়োজনের অংশ হিসেবে আজও বসেছে বিতর্কের আসর! এতে সে-ও একজন প্রতিযোগী। কঠিন আত্মবিশ্বাসী।
শুরুতেই, প্রতিযোগীদের উদ্দেশে কিছু কথা বলতে দাঁড়ালেন তাদের প্রিয় প্রধান শিক্ষক। তিনি বললেন, বিতর্ক এক দারুণ শিল্প। তাই, এর শিল্পমান ধরে রাখা আমাদের দায়িত্ব। আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, “আর তাদের সাথে বিতর্ক করো উত্তমভাবে!” (সূরা নাহল : ১২৫)
এরপর স্যার বললেন, কিভাবে যুক্তি তুলে ধরতে হয় যৌক্তিকভাবে! উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরলেন, হজরত আদম ও মূসা (আ)-এর কথা! হজরত আদম ও মূসা (আ) বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। মূসা (আ) বলেন, হে আদম! আপনি তো আমাদের পিতা। আপনি আমাদের বঞ্চিত করেছেন এবং জান্নাত থেকে বের করেছেন। হজরত আদম (আ) মূসা (আ)কে বললেন, হে মূসা! আপনাকে তো আল্লাহ তা’আলা স্বীয় কালামের মাধ্যমে সম্মানিত করেছেন এবং আপনার জন্য স্বীয় হাত দিয়ে লিখেছেন। অতএব আপনি কি আমাকে এমন একটি ব্যাপার নিয়ে তিরস্কার করছেন, যা আমার সৃষ্টির ৪০ বছর পূর্বেই আল্লাহ নির্ধারণ করে রেখেছেন? তখন আদম (আ) মূসা (আ)-এর ওপর এই বিতর্কে জয়ী হলেন। উক্ত কথাটি রাসূল (সা) তিনবার বলেছেন। (মুসলিম)।
স্যার বললেন, দেখেছো কিভাবে যুক্তি দিতে হয়?
তবে বিতর্কের উভয় দলকেই জ্ঞানী হতে হয়। তা না হলে, একে অপরের সম্মান রক্ষা করতে পারে না। এ কারণেই, আল্লাহ তায়ালা অজ্ঞদের সাথে কথা বলতে নিষেধ করেছেন। তিনি বলেছেন- ‘আর মূর্খরা যখন কথা বলে, তখন (মু’মিনরা বলে), সালাম!’ (সূরা ফুরকান : ৬৩)। অর্থাৎ, তোমাদের সাথে আমরা বিতর্ক করতে চাই না।
সাফওয়ান নতুন অনেক কিছু শিখল আজ। ভাবল, হ্যাঁ! বিতর্ক তো এমনই হওয়া উচিত। শুধু প্রতিযোগিতা কেন, আমাদের প্রতিটি কথাই হওয়া উচিত যৌক্তিক। সুন্দর।
– বিলাল হোসাইন নূরী

SHARE

Leave a Reply