Home বিজ্ঞান ও বিশ্ব রিং অব ফায়ার – আল জাবির

রিং অব ফায়ার – আল জাবির

গত ২৬ ডিসেম্বর সূর্যগ্রহণ ছিল। এটি ছিল বিরল ধরনের বলয় গ্রাস সূর্যগ্রহণ। সারা বিশ্ব এমন এক সূর্যগ্রহণ দেখেছে যা শেষবার পৃথিবীর মানুষ দেখেছিল ১৭২ বছর আগে। এ সূর্যগ্রহণের সময় সূর্যের চারপাশে থাকে এক আগুনের বলয়। বিজ্ঞানীরা যাকে বলেন রিং অব ফায়ার।
সূর্যগ্রহণ চার প্রকার হয়ে থাকে। আংশিক গ্রহণ যা সূর্যের কিছু অংশ ঢেকে ফেলে, পূর্ণ গ্রহণ হলে কিছু সময়ের জন্য সূর্যকে পুরোপুরি ঢেকে ফেলে, বলয় গ্রহণ হলে কিছু সময়ের জন্য চন্দ্র সূর্যের মাঝে চলে যায়। এ সময় সূর্যকে চারিদিকে রিং বা আংটির মতো দেখায় এবং আরেক ধরনের গ্রহণের নাম হাইব্রিড গ্রহণ। এটা হলো পূর্ণ গ্রহণ ও বলয় গ্রহণের সমন্বয়, এটা খুব কম হয়ে থাকে।
সূর্য গ্রহণ হওয়ার কারণটা অনেকেই জানে না। আদিম মানুষের কাছে চন্দ্রগ্রহণ এবং সূর্যগ্রহণ এক রকমের কৌতূহলের বিষয় ছিল। বিজ্ঞানসম্মত ব্যাখ্যা করার আগে, এ নিয়ে পৃথিবীর নানা প্রান্তে নানা রকম গল্প সৃষ্টি হয়েছে। কালক্রমে তা ধর্মতত্ত্বে পৌরাণিক কাহিনী হিসেবে যুক্ত হয়েছে।
জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, চন্দ্র যখন পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে একই লাইনে চলে আসে তখন চন্দ্র দ্বারা সূর্য আড়াল হয়ে যায়, তখনই সূর্যগ্রহণ হয়।
একটি মহাকাশীয় বস্তু দেখার সময়, যদি অপর একটি মহাকাশীয় বস্তুর তা আড়ালে চলে যায়, তখন গ্রহণ সংঘটিত হয়। এরূপ ঘটনা ঘটার সময়, একটি মহাকাশীয় বস্তু সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে আড়ালে চলে যেতে পারে।
যখন একটি মহাকাশীয় বস্তু সম্পূর্ণভাবে, অপর মহাকাশীয় বস্তুর আড়ালে চলে যায়, এবং তখন তৃতীয় মহাকাশীয় বস্তু থেকে তাকে পূর্ণগ্রাস বলা হয়। একইভাবে মহাকাশীয় বস্তুটি যদি আংশিকভাবে আড়ালে চলে যায়, তখন তাকে আংশিক গ্রাস বা খণ্ডগ্রাস বলা হয়।
গ্রহণের বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা হয় তৃতীয় একটি মহাকাশীয় বস্তু থেকে। যেমন সূর্য, পৃথিবী এবং চন্দ্র নিয়ে যে গ্রহণ সংঘটিত হয়, তা পর্যবেক্ষণ করা হয় পৃথিবী থেকে। চন্দ্র, সূর্য, ও পৃথিবী নিয়েই শুধু গ্রহণের বিষয়টি ঘটে না। এর বেশির ভাগই সাধারণ মানুষের কাছে অজ্ঞাত থেকে যায়।
পৃথিবীর সাধারণ মানুষের কাছে সবচেয়ে পরিচিত দুটি গ্রহণ হলো- সূর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণ।
সৌরজগতে সূর্যকে ঘিরে আবর্তিত হচ্ছে পৃথিবী, আবার পৃথিবীকে ঘিরে আবর্তিত হচ্ছে চন্দ্র। এই বিচিত্র আবর্তন চলার সময় কখনো কখনো সূর্য, পৃথিবী এবং চন্দ্র একই সরল রেখাতে অবস্থান নেয়। আর তখনই চন্দ্রগ্রহণ বা সূর্যগ্রহণের সৃষ্টি হয়।
বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা চন্দ্রগ্রহণের চেয়ে সূর্যগ্রহণ বেশি বার হয়। প্রতি সাতটি গ্রহণের মধ্যে সূর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণের অনুপাত ৫:২ বা ৪:৩।
এই আবর্তনের সূত্রে, যখন সূর্য ও পৃথিবীর মাঝখানে চন্দ্র অবস্থান নেয়, তখন পৃথিবী পৃষ্ঠের পর্যবেক্ষকের দর্শন-সাপেক্ষে সূর্য চন্দ্র-এর পেছনে আড়ালে চলে যায় এবং তখন সূর্য গ্রহণ ঘটে।
এই সময় সূর্যের আলো চাঁদের দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হয়। ফলে চাঁদের ছায়া পৃথিবীর ওপর পড়ে। সূর্যের আকার অনেক বড় বলে সূর্যগ্রহণের সময় চাঁদ পুরোপুরি ঢাকতে পারে না।
বিশেষ করে চাঁদের চার পাশ দিয়ে সূর্যের ছটামণ্ডল ও বর্ণমণ্ডল উজ্জ্বলভাবে দেখা যায়। এই অবস্থায় একে বলয় গ্রাস বলা হয়।
ব্যাবিলনীয় সভ্যতা থেকে সূর্যগ্রহণের পর্যায়কাল মাপার চেষ্টা শুরু করছিল। ১০০০ খ্রিষ্ট-পূর্বাব্দের দিকে গ্রহণের পূর্বাভাস মানুষ দিতে সক্ষম হয়। ঐ সময় জ্যোতিষীরা লক্ষ করেন যে, প্রতি ১৮ বছর ১০ দিন পরপর গ্রহণ পুনরাবর্তিত হয়। এই থেকে সারোস চক্র দিয়ে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ গুলি চিহ্নিত করার প্রথা চালু হয়।
২২ জুলাই, বাংলাদেশ থেকে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যায় তা ছিল ১৩৬ সারোস চক্রের ৩৭তম গ্রহণ এবং মোট সংখ্যা ৭১টার মধ্যে।
প্রতিটি সারোস চক্র প্রায় ৭৫টি গ্রহণে সমাপ্ত হয়। পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণে হঠাৎ দিনের বেলা রাতের অন্ধকার নেমে আসে এবং চারপাশের প্রাকৃতিক পরিবেশে হঠাৎ একটা পরিবর্তন আসে।
এটি সব সময় অমাবস্যার দিনেই হয়। প্রশ্ন হতে পারে প্রতি অমাবস্যায় হয় না কেন? কারণ পৃথিবী সূর্যকে কেন্দ্র করে চাঁদ ৫.১৫ ডিগ্রি কোণ করে ঘোরে। এ জন্য প্রতি অমাবস্যায় সূর্যগ্রহণ হয় না।
৯০১ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত মোট সূর্যগ্রহণ হয়েছে ২২৮টি। এর মধ্যে আংশিক গ্রহণ ৭৮টি, পূর্ণ গ্রহণ ৭১টি, বলয় গ্রহণ ৭৩টি ও হাইব্রিড গ্রহণ ৬টি। ২০০১ সাল থেকে ২১০০ সাল পর্যন্ত মোট সূর্যগ্রহণ ঘটবে ২২৪টি। এর মধ্যে আংশিক গ্রহণ হবে ৭৭টি, পূর্ণ গ্রহণ ৬৮টি, বলয় গ্রহণ হবে ৭২টি ও হাইব্রিড গ্রহণ ৭টি।
খালি চোখে সূর্যগ্রহণ দেখা উচিত নয়। এতে চোখের ক্ষতি হতে পারে। এটা দেখা যাবে বিশেষ ধরনের সূর্য রশ্মিকে বাধা (সোলার ফিল্টার) দিতে পারে এমন চশমা দিয়ে। সাধারণ কালো সানগ্লাস দিয়ে সূর্যগ্রহণ দেখা ঠিক হবে না। এতেও চোখের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ওয়েল্ডিং করার কাজে চোখের সামনে যে গ্লাস ব্যবহার করা হয় এটি ব্যবহার করে সূর্যগ্রহণ দেখার জন্য নাসা অনুমোদন করে।
আধুনিক সৌরবিজ্ঞানীদের মতে, মঙ্গল ও বৃহস্পতি গ্রহ দু’টি কক্ষপথের মধ্য বলয়ে রয়েছে এস্টিরয়েড, মিটিওরিট ও উল্কাপিণ্ড প্রভৃতি ভাসমান পাথরের এক সুবিশাল বেল্ট, এগুলোকে এক কথায় গ্রহাণুপুঞ্জ বলা হয়।
গ্রহাণুপুঞ্জের এই বেল্ট আবিষ্কৃত হয় ১৮০১ সালে। এক একটা ঝুলন্ত পাথরের ব্যাস ১২০ মাইল থেকে ৪৫০ মাইল। বিজ্ঞানীরা আজ পাথরের এই ঝুলন্ত বেল্ট নিয়ে শঙ্কিত। কেননা, এ বেল্ট থেকে কোন পাথর নিক্ষিপ্ত হয়ে পৃথিবীর বুকে আঘাত হানলে, পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যেতে পারে।
গ্রহাণুপুঞ্জের পাথর খণ্ডগুলোর মাঝে সংঘর্ষের ফলে অনেক ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পাথর খণ্ড প্রতিনিয়তই পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসে। কিন্তু সেগুলো পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে এসে জ্বলে ভস্ম হয়ে যায়। কিন্তু বৃহদাকার পাথর খণ্ডগুলো যদি পৃথিবীতে আঘাত করে তাহলে কী হবে!
প্রায় ৬৫ মিলিয়ন বছর আগে পৃথিবীতে এমনই একটি পাথর আঘাত হেনে ছিলো। এতে ডাইনোসরসহ পৃথিবীর তাবৎ উদ্ভিদ লতাগুল্ম সব ধ্বংস হয়ে গিয়েছিলো। এরিযনের যে উল্কাপিণ্ড এসে পড়েছিলো তার কারণে পৃথিবীতে যে গর্ত হয়েছিলো তার গভীরতা ৬০০ ফুট এবং প্রস্থ ৩৮০০ ফুট।
বিজ্ঞানীরা বলেন, সূর্য অথবা চন্দ্রগ্রহণের সময় ঝুলন্ত পাথরগুলো পৃথিবীতে ছুটে এসে আঘাত হানার আশঙ্কা বেশি থাকে। কারণ হচ্ছে, এসময় সূর্য, চন্দ্র ও পৃথিবী একই সমান্তরালে, একই অক্ষ বরাবর থাকে। ফলে তিনটির মাধ্যাকর্ষণ শক্তি একত্রিত হয়ে ত্রিশক্তিতে রূপান্তরিত হয়।
এমন মুহূর্তে যদি কোন পাথর বেল্ট থেকে নিক্ষিপ্ত হয় তখন এই ত্রিশক্তির আকর্ষণের ফলে সেই পাথর প্রচণ্ড শক্তিতে, প্রবল বেগে পৃথিবীর দিকে আসবে, এ প্রচণ্ড শক্তি নিয়ে আসা পাথরটিকে প্রতিহত করা তখন পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের পক্ষে অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে।
ফলে পৃথিবীর একমাত্র পরিণতি হবে ধ্বংস। একজন বিবেকবান মানুষ যদি মহাশূন্যের এ তত্ত্ব জানে, তাহলে তার শঙ্কিত হবারই কথা।
এই দৃষ্টিকোণ থেকে সূর্য বা চন্দ্রগ্রহণের সময় মহানবীর (সা.) সেজদারত হওয়া এবং সৃষ্টিকুলের জন্য পানাহ চাওয়ার মধ্যে আমরা একটি নিখুঁত বাস্তবতার সম্পর্ক খুঁজে পাই। মহানবীর (সা.) এ আমলটি ছিলো যুক্তিসঙ্গত ও একান্ত বিজ্ঞানসম্মত।

SHARE

Leave a Reply