Home কুরআন ও হাদিসের আলো হাদীসের আলো অপবাদ

অপবাদ

উপহার পেতে কার না ভালো লাগে? উপহার! চার অক্ষরের এ শব্দটি শুনতেও অনেক মধুর! প্রতিটি অক্ষরেই যেন চাররঙা ভালোবাসা! এ জন্যই তো মানুষ উপহার পেলে তা পরম যত্নে রাখে। বারবার খুলে দেখে। স্পর্শ করে। ইলহামের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। বার্ষিক পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করায় মামা অনেক উপহার দিয়েছিলেন তাকে। সবকিছু সে আগলে রেখেছিল নিজের কাছে।
মামার দেয়া উপহারের মধ্যে একটি কলম ছিল। অনেক দামি। অনেক সুন্দর। একদিন স্কুলে এনে সবাইকে দেখিয়েছিল। কিন্তু সেদিনই কলমটি হারিয়ে যায়। কষ্টে তার বুকটা যেন চৈত্রমাসের মাঠ হয়ে গেছে।
বাবার কাছে এসে কেঁদেই ফেলল ইলহাম। এরপর সে তার কয়েকজন সহপাঠীর নাম বলল, যাদের সে সন্দেহ করে!

বাবা ইলহামকে বুকে জড়িয়ে ধরলেন। আদর করলেন। এরপর বললেন, বাবা! যা হারিয়ে যাওয়ার, তা হারাবেই। কিন্তু কাউকে সন্দেহ করা একেবারেই উচিত নয়। আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, “হে মুমিনগণ! তোমরা অধিকাংশ অনুমান থেকে দূরে থাকো। কারণ কোনো কোনো অনুমান পাপ।” (সূরা হুজুরাত : ১২)।
হতে পারে, তুমি যাদের কথা বলেছো, তাদের কেউই তা নেয়নি। এ তো অপবাদের শামিল! পাঁচটি এমন পাপ রয়েছে, যার কোনো কাফফারা নেই। এর মধ্যে তৃতীয়টি হলো কোনো মুমিনকে অপবাদ দেয়া। (মুসনাদ আহমদ)
বাবা বললেন, আরও ভয়ঙ্কর কথা হলো- মহানবী (সা) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো মুমিনকে এমন দোষে দোষারোপ করবে, যা থেকে সে মুক্ত- আল্লাহ তাকে ‘রাদগাতুল খাবাল’ নামক জাহান্নামের গর্তে বাসস্থান করে দেবেন। যতক্ষণ না সে অপবাদ থেকে ফিরে আসে। (আবু দাউদ)
ইলহাম ভাবনায় পড়ে গেল। এরপর বলল, বাবা! আমি ওয়াদা করছি- আর কারো ব্যাপারেই খারাপ ধারণা পোষণ করবো না। ইনশাআল্লাহ।
– বিলাল হোসাইন নূরী

SHARE

Leave a Reply