Home কুরআন ও হাদিসের আলো দিনলিপি

দিনলিপি

ইকবাল। সেই ছোটবেলা থেকেই ছড়া-কবিতার প্রতি অনেক ভালোবাসা তার। কোনো পত্রিকা হাতে পেলে প্রথমে চোখ চলে যায় ছোটদের পাতায়। আর সে দুলে ওঠে ছন্দের দোলায়। ঠিক সাতসকালের নরম বাতাসের মতো। আর এভাবে দুলতে দুলতে এখন তো সে কবিই হয়ে উঠেছে! ছড়া-কবিতায় ভরে উঠছে লেখার খাতা। শুধু কি তা-ই? তার লেখা ছাপাও হচ্ছে নিয়মিত!
সব জায়গায় তার নাম ছড়িয়ে পড়েছে এখন। বিশেষ করে, স্কুলে তো তাকে একনামে সবাই চিনে। ইকবাল হাসান! এ নাম শুনলেই সবাই বলে- ও চিনেছি! কবি! তাই না? এমনকি হেডস্যারও তার কবিতা পড়েন। কাছে ডেকে পরামর্শ দেন। একদিন তো তিনি সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থীর উপস্থিতিতে তার কথা বললেন উচ্চস্বরে। পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে। আর এ ভালোবাসার স্মৃতিগুলো ইকবাল লিখে রাখে ডায়েরিতে। সযতনে। রঙিন কালিতে।
একদিন বাবার চোখে পড়ল তার দিনলিপি। খুশিতে তার বুকটাও ফুলে উঠল। ছেলেকে কাছে ডেকে বললেন- এ ভালোবাসা নিশ্চয় অনেক দামি। তোমাকে যদি পৃথিবীর সব মানুষ চিনে- তখন তোমার কেমন লাগবে? যদি সব মানুষ ভালোবাসে- তাহলে তো সোনার হরফে লিখে রাখতে চাইবে- তাই না? ইকবাল হেসে বলল, আমার অত বড় হওয়ার সম্ভাবনা নেই। বাবা বললেন- কেন নয়? তুমি তো এর চেয়েও বড় হতে পারো! আলোচিত হতে পারো আরও বড় জায়গায়!
– কিন্তু কিভাবে? তাহলে শোনো। মহানবী (সা) বলেছেন- যখন আল্লাহ কাউকে ভালোবাসেন, তখন জিবরাইলকে ডেকে বলেন- আমি অমুককে ভালোবাসি! তুমিও তাকে ভালোবাস। এরপর জিবরাইল তাকে ভালোবাসতে থাকেন এবং আকাশে ঘোষণা করেন- আল্লাহ অমুককে ভালোবাসেন, তোমরাও তাকে ভালোবাসো। তখন আকাশবাসীও তাকে ভালোবাসে এবং পৃথিবীতেও তার মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করা হয়। (মুসলিম)
– এবার বলো তো, আল্লাহর চেয়ে বড় কে আছে? তিনি যদি তোমার নাম এভাবে ঘোষণা করেন, তারচেয়ে বড় পাওয়া কী হতে পারে? তাই, আল্লাহর ভালোবাসার যোগ্য হও। তাহলে পৃথিবীও তোমাকে ভালোবাসবে। কবিতা লেখো- কিংবা অন্য যা-ই করো, সব যেন হয় আল্লাহর জন্য!
ইকবাল বলল, আমি তোমাকে ভালোবাসি- মালিক। তুমিও আমাকে ভালোবাসো! বাবা বললেন- আমিন।

– বিলাল হোসাইন নূরী

SHARE

Leave a Reply