Home নিবন্ধ নতুন স্বপ্ন । সুহৃদ আকবর

নতুন স্বপ্ন । সুহৃদ আকবর

নতুন স্বপ্ন । সুহৃদ আকবরদিন যায়, মাস আসে; মাস যায়, বছর আসে। এভাবে আমাদের বয়স বাড়তে থাকে। আসলে বয়স কিন্তু বাড়ে না, বয়স কমে যায়। এভাবে আমরা এগিয়ে যাই গন্তব্যের দিকে। আমাদের জীবনটা হলো রেলগাড়ির মতো। রেলগাড়ির একটা গন্তব্য থাকে। তেমনি কালের গহ্বর আমাদেরকে হাতছানি দিয়ে ডাকে। আমরা কেউবা আগামীর পথে চলার উল্লাসে মেতে উঠি। আবার কেউবা গলা ছেড়ে গান গাই। এমনি করে একদিন জীবনের শেষ প্রান্তে গিয়ে থামি। শেষ স্টেশনে গিয়ে আমরা থমকে দাঁড়াই। জাহাজের মতো নোঙর ফেলি। চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে দেখি ফেলে আসা জীবনকে। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত আমরা পৃথিবীর পথে হাঁটি। বাঁচার জন্য হাঁটি। স্বপ্ন নির্মাণ করতে হাঁটি। সেই হাঁটার কোনো বিরাম নেই। সেই বাঁচার কোনো শেষ নেই। সেই স্বপ্নের কোনো শেষ নেই। মানুষের বয়স যত বেশি হোক না কেন তবুও তার বাঁচার স্বাদ মিটে না। মানুষের যতই সম্পদ হোক না কেন তবুও সম্পদের লোভ তার কমে না। নারীর নেশাও তাই। পানির তৃষ্ণার শেষ আছে ভোগের তৃষ্ণার শেষ নেই। এদিক থেকে চিন্তা করলে আমরা মানুষরা একটা ঘোরের মধ্যে বেঁচে থাকি। মানুষ সব জানে সব বুঝে তবুও সব সময় অবুঝের মতই আচরণ করে। তাই সব সময় সে আক্ষেপ করে। আমাদের মহানবী সা. বলেছেন, ‘আদম সন্তানের পেট কিছুতেই পূর্ণ হবার নয় কবর ছাড়া।’
মানুষ স্বপ্ন দেখে। স্বপ্ন দেখতে সে ভালোবাসে। বেঁচে থাকার জন্য সে স্বপ্ন দেখে। বিভিন্ন কায়দা কানুনে মানুষ স্বপ্ন দেখে। কেউ ঘুমের ঘোরে স্বপ্ন দেখে। স্বপ্ন দেখে জেগে ওঠে। স্বপ্ন দেখে কেউ চিৎকার করে ওঠে। কেউবা জেগে জেগে স্বপ্ন দেখে। জ্ঞানীরা বলেন, ঘুমের ভেতর যে স্বপ্ন দেখা হয় তা আসল স্বপ্ন নয়; আসল স্বপ্ন হলো তা যা মানুষকে ঘুমাতে দেয় না। মূলত এর মধ্য দিয়ে লক্ষ্য সাধনে মানুষকে নিরন্তর কাজ করে যাওয়ার কথাই বলা হয়েছে। অলসতা কখনো কাউকে সফল মানুষ করে না। পরিশ্রম আর অধ্যবসাই একজন মানুষকে সফল মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা করে।
কেউবা ঘুমের ঘোরে উড়োজাহাজ চালায়। আবার বন্ধুরা মিলে পরস্পর স্বপ্নের গল্প বলে। কেউ বলে আমি ডাক্তার হবো। কেউ বলে, না আমি হবো ইঞ্জিনিয়ার। আর অন্যজন বলে, আমি হবো বড় ব্যবসায়ী। আরেকজন বলে, না আমি বিদেশে যাবো, এ দেশেই আর থাকব না। এদের কারো স্বপ্ন পূরণ হয় আর কারো হয় না। দেখা যায়, যে বলেছে বিদেশ যাবে সে সারা জীবন দেশেই পড়ে থাকল। আর যে বলেছে, আমি বড় ব্যবসায়ী হবো সে বিদেশে গিয়ে বসে আছে। এর কিছুটা চেষ্টা, কিছুটা বাস্তবতা, নিয়তির নির্মমতা। আর ভাগ্যের লিখনকে তো কেউ খণ্ডাতে পারে না।
ইতোমধ্যে আমাদের মাঝে নতুন বছর এসে হাজির হয়েছে। প্রত্যেক বছরের শেষে দিকে বিদায়ের একটা সুর ছড়িয়ে পড়ে প্রকৃতিতে। মানুষের প্রকৃতিটাই এমন যে সে পুরাতনকে আঁকড়ে থাকতে চায় না। তাইতো নতুনের জন্য তার এত অপেক্ষা। নতুনের জন্য তার এত আয়োজন। নতুনের জন্য তার এত ব্যস্ততা। পুরাতন যতই ভালো হোক না কেন, তার কাছে আর ভালো লাগে না। সে নতুন বছরকে বিদায় জানাতে উঠেপড়ে লাগে। সারা বিশ্বের মানুষ এ আয়োজনে অংশ নেয়। বাংলাদেশও সে দৌড়ে পিছিয়ে নেই। সারা দেশের মানুষ নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। নতুন বছর উপলক্ষে পণ্যের কোম্পানিগুলো বিশেষ ছাড় ঘোষণা দিয়েছে।
ছোটবেলায় মানুষ অনেক ধরনের স্বপ্ন দেখে। বড় হলে স্বপ্নগুলো এক এক করে ঝরে পড়ে। কিছুটা আগুন দেখে পতঙ্গের লাফিয়ে পড়ার মতো। কখনো শীতের রাতে শিশিরের মতো হয়ে ঝরে স্বপ্ন। কখনোবা বৃষ্টির ফোঁটা হয়ে। আর কখনোবা শুকনো পাতার মতো করে। তবুও মানুষ স্বপ্ন দেখে। সে কেবল স্বপ্ন দেখতেই থাকে। জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সে স্বপ্ন দেখে। কণ্ঠনালিতে মৃত্যু আসা পর্যন্ত সে বেঁচে থাকতে চায়। বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষের বেঁচে থাকার অভিলাষও বাড়তে থাকে। একটা স্বপ্ন পূরণ না হলে আরেকটা দেখা শুরু করে। স্বপ্নের ভেলায় চড়ে কাটে তার বেলা। তাইতো নীল আকাশের ধ্রুবতারা হয়ে মানুষের বুকে স্বপ্ন জ্বলে।

SHARE

Leave a Reply