Home স্বাস্থ্য কথা লিচুর উপকারিতা । খালেদ মাহমুদ

লিচুর উপকারিতা । খালেদ মাহমুদ

লিচুর উপকারিতাবিশ্বের সবচেয়ে সুস্বাদু ফলগুলোর মধ্যে লিচু একটি। গরমের এই সময়ে লিচুর সুমিষ্ট রসালো স্বাদ ছোট বড় সকলেরই পছন্দ।
এই ফলটি আমাদের ত্বক, চুল ও স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী।
লিচুতে শরীরের জন্য অত্যাবশ্যকীয় পুষ্টি উপাদানগুলো প্রচুর পরিমাণে থাকে। তাহলে জেনে নেয়া যাক লিচুর উপকারিতাগুলো সম্পর্কে।
♦ বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে শুরু করে। লিচু ব্যবহার করে এদের আবির্ভাবকে বাধা দেয়া যায়। এজন্য ৪/৫টি লিচুর খোসা ও বীজ ছাড়িয়ে নিতে হবে। তারপর এর সাথে একটি কলার এক-চতুর্থাংশ পরিমাণ নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে মসৃণ পেস্ট তৈরি করতে হবে। এই মিশ্রণটি আস্তে আস্তে ও বৃত্তাকারে মুখে ও ঘাড়ে ম্যাসাজ করতে হবে। তারপর ১৫ মিনিট রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। বয়স বৃদ্ধির মূল কারণ হচ্ছে ফ্রি র‌্যাডিকেলের উপস্থিতি। লিচু অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর থাকে যা ফ্রি র‌্যাডিকেলের সাথে মিশে ত্বকের ক্ষতি রোধ করে।
♦ ভিটামিন সি এর চমৎকার উৎস লিচু।
♦ চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে লিচু। একটি পাত্রে ৭/৮ লিচুর রসের সাথে ২ টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি মাথার তালুতে ম্যাসাজ করতে হবে। ১ ঘন্টা পর হালকা শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলতে হবে। লিচুতে কপার থাকে যা হেয়ার ফলিকলকে উদ্দীপিত করে চুল বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।
♦ লিচুর সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা হচ্ছে এর ক্যান্সারবিরোধী প্রভাব আছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে লিচুতে শক্তিশালী অ্যান্টিরক্সিডেন্ট ও ক্যান্সারবিরোধী প্রভাব আছে।
লিচুর উপকারিতা♦ লিচু পরিপাক নালীকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। লিচুতে প্রচুর পরিমাণে পানি ও ফাইবার থাকে বলে পরিপাকে সাহায্য করে লিচু।
♦ লিচুতে ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট থাকে যা অ্যান্টিরক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিনিউপ্লাজমিক বৈশিষ্ট্য প্রদর্শন করে অর্থাৎ এরা কোষের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। এ কারণেই লিচু খেলে ছানি প্রতিরোধ করা যায়।
♦এছাড়াও লিচুতে খুব বেশি ক্যালোরি থাকে না এবং খুব কম ফ্যাট থাকে বলে ওজন কমতে সাহায্য করে।

SHARE

Leave a Reply