Home ফিচার হিমেল হাওয়ায় শীত এসেছে । রবিউল ইসলাম

হিমেল হাওয়ায় শীত এসেছে । রবিউল ইসলাম

হিমেল হাওয়ায় শীত এসেছে ভোরবেলা বয়ে যাচ্ছে হালকা হিমেল বাতাস। ঘুমের ঘোরে থেকেও কাঁথা জড়াতে হচ্ছে। ঘরের বাইরে গেলে হিম হিম ঠাণ্ডা জড়িয়ে ধরে শরীরের চারপাশ। তাই সাতসকালে একটি প্রশ্ন মনে জাগতে পারে, শীত কি তাহলে চলে এলো?
পৌষ-মাঘ এই দুই মাস শীতকাল হলেও অগ্রহায়ণ মাস থেকেই শুরু হয় শীতের আগমন। শীতকাল আমাদের দেশের একটি সুন্দর ঋতু। জলবায়ুর পরিবর্তনে বাংলাদেশে শীত এখন সংক্ষিপ্ত ঋতু। হাড়কাঁপানো শীত বলতে যা বোঝায় তার দেখা পাওয়া যায় পৌষ-মাঘ মাসে। একসময় প্রচলিত ছিল ‘মাঘের শীতে বাঘে কাঁপে’। সেই হাড়কাঁপানো শীতের সঙ্গে হয়তো তোমাদের পরিচয় নেই। শীতকাল এলে গ্রামবাংলায় অনুষ্ঠিত হয় নানান ধরনের উৎসব। এর মধ্যে রয়েছে ষাঁড়ের লড়াই, ঘোড়ার দৌড়, মোরগ লড়াই ইত্যাদি। এগুলো গ্রামের শীত মৌসুমের ঐতিহ্যবাহী খেলার আসর। শীতে সবাই গ্রামে ফেরার আমন্ত্রণ পায়। কারণ গ্রামে না গেলে শীত কী জিনিস আর শীতের অপরূপ পরিবেশ চোখে না দেখলে বলে বোঝানো যাবে না। গ্রামের সবুজ প্রকৃতির বুকে হলুদ সরিষা খেতের উজ্জ্বলতা মানুষকে মুগ্ধ ও বিমোহিত করে। তার ওপর কুয়াশাভাঙা শিশির কণাÑআহা কী অপরূপ, কী অপরূপ। শীতের সময় গ্রামে সূর্য ওঠার দৃশ্য বেশ মনোরম। বাড়ির সামনে মানুষ ঠায় জমায়েত হয়ে বসে থাকে সূর্য ওঠার অপেক্ষায়।
মাঘ মাসের হাড়কাঁপানো শীতে বাবুদের কাবু হওয়ার কথা প্রচলিত আছে। মাঘের শুরুতে জেঁকে বসে শীত। এই শীতে জবুথবু অবস্থা হয় মানুষের জীবনযাপনে। যান্ত্রিক এই নগরীতেও শীতে কাবু হওয়ার ব্যবস্থা হয় নগরবাসীর। তাহলে ভেবে দেখ গ্রামের মানুষের কী অবস্থা হতে পারে। গ্রামে শীতের প্রকোপ আরো তীব্র। মুক্ত পরিবেশে শীতল হাওয়া যেন আরো বাড়িয়ে দেয় শীতের প্রকোপ। মাঘের হাড়কাঁপানো শীতে গ্রামের মানুষ উনুনের পাশে বসে অথবা শন দিয়ে আগুন জ্বেলে শরীরের তাপ বাড়ায়। সূর্য ওঠার অপেক্ষায় আঙিনায় বসে থাকে। কাঁথামুড়ি দিয়ে দিনের কাজ শুরু করে। এই শীতের প্রকোপ যতই হোক না কেন, থেমে থাকে না গ্রামবাংলার কৃষক-কৃষাণির কাজকর্ম। শীতের এই হিমেল হাওয়ায় সব কিছুর শীতলাবস্থা হলেও গ্রামে আছে কিছু ঐহিত্যের প্রচলন। শীতের সকালে দলবেঁধে আগুন তাপানো, কাঁথামুড়ি দিয়ে গল্প করা, সকালে মুড়ি খাওয়া, খেজুরের রস ও ঘরে ঘরে শীতের পিঠা আর পায়েসের ভোজন উৎসব। গ্রামে এখনো এক ঘরে পিঠা পায়েস করা হলে আশপাশের স্বজনদের না দিয়ে খাওয়ার রেওয়াজ নেই। বাংলাদেশে এখন শীত চলছে। প্রচণ্ড শীত আর কুয়াশায় কাবু হয়ে পড়েছে জনজীবন। ‘এক মাঘে শীত যায় না’ বাঙালির এই প্রবাদ বহুল প্রচলিত। পৌষ ও মাঘ মাস হলো শীতঋতু। নভেম্বর মাসের ১৫ তারিখ থেকে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত শীতকাল টিকে থাকে। জলবায়ুর উষ্ণতার দিক থেকে হেমন্ত এবং বসন্তের মধ্যবর্তী সবচেয়ে শীতলতম ঋতুকে বলা হয় শীতকাল। শীতে বাংলাদেশের গ্রাম-প্রকৃতি সন্ধ্যার আগে থেকেই শিশির আর কুয়াশার চাদর মুড়ি দিতে শুরু করে। মানুষজন বেশ সকাল সকালই ঘরে ফেরে। গবাদি পশুরও আশ্রয় হয় গোয়ালে বা নির্দিষ্ট স্থানে। শীতের হিমশীতল গ্রামবাংলায় খুশি আর আনন্দের আয়োজনও রয়েছে প্রচুর। হিমেল হাওয়ায় জবুথবু হয়ে একটু উষ্ণতার জন্য সবাই কাতর হয়ে আছে- এমনই দৃশ্য চোখে পড়বে।


গ্রামের বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠজুড়ে দেখা যায় হলুদ রঙের সরষে ফুলের সমারোহ। লাউয়ের ডগায় ভোরের শিশিরে সূর্যের আলো পড়ে ঝিলিক দিয়ে ওঠে হীরের মতো। ফুলে ফুলে দাপিয়ে বেড়ায় বাহারি প্রজাপতি। দূর-দূরান্তের পথ পাড়ি দিয়ে শীতকালে বাংলাদেশে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসে অতিথি


পাখি ঘরের বাইরে গেলে হিম হিম ঠাণ্ডা জড়িয়ে ধরে শরীরের চারপাশ। তাই সাতসকালে একটি প্রশ্ন মনে জাগতে পারে, শীত কি তাহলে চলে এলো?
পৌষ-মাঘ এই দুই মাস শীতকাল হলেও অগ্রহায়ণ মাস থেকেই শুরু হয় শীতের আগমন। শীতকাল আমাদের দেশের একটি সুন্দর ঋতু। জলবায়ুর পরিবর্তনে বাংলাদেশে শীত এখন সংক্ষিপ্ত ঋতু। হাড়কাঁপানো শীত বলতে যা বোঝায় তার দেখা পাওয়া যায় পৌষ-মাঘ মাসে। একসময় প্রচলিত ছিল ‘মাঘের শীতে বাঘে কাঁপে’। সেই হাড়কাঁপানো শীতের সঙ্গে হয়তো তোমাদের পরিচয় নেই। শীতকাল এলে গ্রামবাংলায় অনুষ্ঠিত হয় নানান ধরনের উৎসব। এর মধ্যে রয়েছে ষাঁড়ের লড়াই, ঘোড়ার দৌড়, মোরগ লড়াই ইত্যাদি। এগুলো গ্রামের শীত মৌসুমের ঐতিহ্যবাহী খেলার আসর। শীতে সবাই গ্রামে ফেরার আমন্ত্রণ পায়। কারণ গ্রামে না গেলে শীত কী জিনিস আর শীতের অপরূপ পরিবেশ চোখে না দেখলে বলে বোঝানো যাবে না। গ্রামের সবুজ প্রকৃতির বুকে হলুদ সরিষা খেতের উজ্জ্বলতা মানুষকে মুগ্ধ ও বিমোহিত করে। তার ওপর কুয়াশাভাঙা শিশির কণাÑআহা কী অপরূপ, কী অপরূপ। শীতের সময় গ্রামে সূর্য ওঠার দৃশ্য বেশ মনোরম। বাড়ির সামনে মানুষ ঠায় জমায়েত হয়ে বসে থাকে সূর্য ওঠার অপেক্ষায়।
মাঘ মাসের হাড়কাঁপানো শীতে বাবুদের কাবু হওয়ার কথা প্রচলিত আছে। মাঘের শুরুতে জেঁকে বসে শীত। এই শীতে জবুথবু অবস্থা হয় মানুষের জীবনযাপনে। যান্ত্রিক এই নগরীতেও শীতে কাবু হওয়ার ব্যবস্থা হয় নগরবাসীর। তাহলে ভেবে দেখ গ্রামের মানুষের কী অবস্থা হতে পারে। গ্রামে শীতের প্রকোপ আরো তীব্র। মুক্ত পরিবেশে শীতল হাওয়া যেন আরো বাড়িয়ে দেয় শীতের প্রকোপ। মাঘের হাড়কাঁপানো শীতে গ্রামের মানুষ উনুনের পাশে বসে অথবা শন দিয়ে আগুন জ্বেলে শরীরের তাপ বাড়ায়। সূর্য ওঠার অপেক্ষায় আঙিনায় বসে থাকে।

হিমেল হাওয়ায় শীত এসেছে কাঁথামুড়ি দিয়ে দিনের কাজ শুরু করে। এই শীতের প্রকোপ যতই হোক না কেন, থেমে থাকে না গ্রামবাংলার কৃষক-কৃষাণির কাজকর্ম। শীতের এই হিমেল হাওয়ায় সব কিছুর শীতলাবস্থা হলেও গ্রামে আছে কিছু ঐহিত্যের প্রচলন। শীতের সকালে দলবেঁধে আগুন তাপানো, কাঁথামুড়ি দিয়ে গল্প করা, সকালে মুড়ি খাওয়া, খেজুরের রস ও ঘরে ঘরে শীতের পিঠা আর পায়েসের ভোজন উৎসব। গ্রামে এখনো এক ঘরে পিঠা পায়েস করা হলে আশপাশের স্বজনদের না দিয়ে খাওয়ার রেওয়াজ নেই। বাংলাদেশে এখন শীত চলছে। প্রচণ্ড শীত আর কুয়াশায় কাবু হয়ে পড়েছে জনজীবন। ‘এক মাঘে শীত যায় না’ বাঙালির এই প্রবাদ বহুল প্রচলিত। পৌষ ও মাঘ মাস হলো শীতঋতু। নভেম্বর মাসের ১৫ তারিখ থেকে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত শীতকাল টিকে থাকে। জলবায়ুর উষ্ণতার দিক থেকে হেমন্ত এবং বসন্তের মধ্যবর্তী সবচেয়ে শীতলতম ঋতুকে বলা হয় শীতকাল। শীতে বাংলাদেশের গ্রাম-প্রকৃতি সন্ধ্যার আগে থেকেই শিশির আর কুয়াশার চাদর মুড়ি দিতে শুরু করে। মানুষজন বেশ সকাল সকালই ঘরে ফেরে। গবাদি পশুরও আশ্রয় হয় গোয়ালে বা নির্দিষ্ট স্থানে। শীতের হিমশীতল গ্রামবাংলায় খুশি আর আনন্দের আয়োজনও রয়েছে প্রচুর। হিমেল হাওয়ায় জবুথবু হয়ে একটু উষ্ণতার জন্য সবাই কাতর হয়ে আছেÑ এমনই দৃশ্য চোখে পড়বে।
শীতের প্রকৃতির কথা কী আর বলব। গ্রামের বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠজুড়ে দেখা যায় হলুদ রঙের সরষে ফুলের সমারোহ। লাউয়ের ডগায় ভোরের শিশিরে সূর্যের আলো পড়ে ঝিলিক দিয়ে ওঠে হীরের মতো। ফুলে ফুলে দাপিয়ে বেড়ায় বাহারি প্রজাপতি। দূর-দূরান্তের পথ পাড়ি দিয়ে শীতকালে বাংলাদেশে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসে অতিথি পাখি। এই অতিথি পাখি আমাদের পরিবেশকে নতুন প্রাণ-চাঞ্চল্য দেয়। বিশেষ করে হাওর ও বিল এলাকা, বিভিন্ন নদীতট এবং বন এলাকায় এসব পাখির আগমন ঘটে। অতিথি পাখি আমাদের চারপাশের চিরচেনা প্রাকৃতিক পরিবেশকে আরো মনোমুগ্ধকর করে তোলে। শীতের মিঠেরোদ, কুয়াশার চাদর, উঠোনের কোণে মাটির চুলায় রান্না, চুলার পাশে বসে বসে হাতের তালু গরম করে নেয়া, পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোর উদাম শরীর আর শরীরের শিরশির কাঁপুনি, চায়ের কাপের সাদাটে ধোঁয়া, হলুদ সর্ষের মাঠ- এসব অপরূপ চিত্রপট আমাদের গ্রামবাংলার চিরপরিচিত। অসাধারণ সামাজিক ও পারিবারিক সংস্কৃতির ধারা এখনো আছে এই গ্রামবাংলায়। শীত এলেই আত্মীয়স্বজন বেড়াতে আসে। নানা-মামা, খালু-ফুফা, বোন-দুলাভাই যত স্বজন-সহোদর আছেন সবাই বেড়ানোর জন্য এই মৌসুমটাকে বেছে নেন। তাই শীত যতই থাকুক না কেন উৎসবের আমেজ কিন্তু গ্রামীণ জীবনে কমেনি। শীতের প্রধান উৎসব হলো নবান্ন উৎসব। গ্রামবাংলায় হেমন্তে কৃষকের ঘরে নতুন ফসল তোলা হয়। ঐতিহ্য অনুযায়ী গ্রামে বিবাহিত মেয়েদের বাপের বাড়িতে দাওয়াত দিয়ে আনা হয়। শীতের সকালে বা সন্ধ্যায় পিঠা তৈরি করে সবাই একসঙ্গে বসে ধুমধাম করে পিঠা খাওয়ার উৎসব চলে। শীতের সকাল মানেই নতুন কোনো পিঠার সুস্বাদ নেয়া। গ্রামাঞ্চলে গেলে দেখা যায়, বাড়িতে বাড়িতে পিঠা বানানোর ধুম। শীত এলে তাই পিঠা বানানো হয়ে যায় আনন্দের অনুষঙ্গ। এর মধ্যে ভাপা, কুশলি, চিতই, পাকান, ম্যারা, ফুলপিঠা, পাটিসাপটা, পুলি, শ্যাওই উল্লেখযোগ্য। শীতকালে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকে বলে সবাই গ্রামের বাড়ি কিংবা আত্মীয় বাড়ি যায়। এই সময় দলবেঁধে পিকনিক কিংবা দর্শনীয় স্থানে ঘুরে বেড়ানোর মজাই আলাদা। শীতে খেজুর গাছের রস পেতে গাছে কলসি বাঁধা হয়। সারা রাত নল বেয়ে কলসিতে খেজুর গাছের রস জমে। খুব ভোরে সেই রস নামিয়ে আনা হয়। টাটকা এই খেজুরের রস খেতে খুব সুস্বাদু। এই রস দিয়ে আবার রসের ক্ষীরও রান্না করা হয়। এই রস থেকেই তৈরি হয় খেজুরের গুড়।
এখন জেনে নিই কোন দেশে কখন শীতকাল শুরু ও শেষ হয়। জ্যোতির্বিদদের মতে, শীতপ্রধান এলাকায় দিনে সূর্যের আলো থাকে অল্প সময়ের জন্য। এই অবস্থা ঘটে ঋতুর মধ্যবর্তী সময়ে। শীতের এই সময় বলবৎ থাকে ডিসেম্বরের ২১ বা ২২ তারিখ থেকে মার্চের ১৯, ২০ বা ২১ পর্যন্ত। বছরের যে তিন মাস দিন থাকে সবচেয়ে ছোট সেটাই হলো শীতকাল। সে হিসেবে নভেম্বর, ডিসেম্বর এবং জানুয়ারি হলো উত্তর গোলার্ধে শীতকাল এবং জুন, জুলাই ও আগস্ট দক্ষিণ গোলার্ধে শীতকাল। ইউরোপের মূল ভূখণ্ডের অনেক দেশে শীতকাল ধরা হয় ১১ নভেম্বর থেকে। সেদিনই তাদের ক্যালেন্ডারের প্রথম শীতকাল। চীনের জ্যোতিষশাস্ত্রে এবং পূর্ব এশিয়ার ক্যালেন্ডারে শীতকাল ধরা হয় ৭ নভেম্বর থেকে। যুক্তরাজ্যের আবহাওয়াবিদরা সে দেশে ডিসেম্বর, জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারি এই তিন মাসকে বলেন শীতকাল। স্ক্যান্ডেনেভিয়ায় শীতকাল সাধারণত শুরু হয় অক্টোবরের ১৪ তারিখে এবং শেষ হয় ফেব্রুয়ারির শেষ দিনে। দক্ষিণ গোলার্ধের অনেক দেশে বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় শীতকাল শুরু হয় ১ জুন এবং শেষ হয় ৩১ আগস্ট। উত্তর ইউরোপের দেশ, যেখানে কেলটিক আদিবাসীরা বাস করে সেই আয়ারল্যান্ড এবং স্ক্যান্ডেনেভিয়ায় শীতকাল শুরু হয় ১ নভেম্বর। জলবায়ুর পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই এলাকাভেদে ঋতুর কিছুটা পরিবর্তন ঘটতে পারে।
গ্রামের তুলনায় আমাদের দেশে শহরাঞ্চলে শীতের তীব্রতা কম। শীতের আসল চেহারা আর রূপ পুরোপুরি দেখতে পাওয়া যায় গ্রামে। মানুষের শহরমুখিতার কারণে এখন গ্রামগুলো দিনে দিনে এসব আনন্দ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। আর শহরের যান্ত্রিক জীবনে এসব শীতের আনন্দ একেবারে কল্পনাই করা যায় না।শীতের প্রকৃতির কথা কী আর বলব। গ্রামের বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠজুড়ে দেখা যায় হলুদ রঙের সরষে ফুলের সমারোহ। লাউয়ের ডগায় ভোরের শিশিরে সূর্যের আলো পড়ে ঝিলিক দিয়ে ওঠে হীরের মতো। ফুলে ফুলে দাপিয়ে বেড়ায় বাহারি প্রজাপতি। দূর-দূরান্তের পথ পাড়ি দিয়ে শীতকালে বাংলাদেশে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ে আসে অতিথি পাখি। এই অতিথি পাখি আমাদের পরিবেশকে নতুন প্রাণ-চাঞ্চল্য দেয়। বিশেষ করে হাওর ও বিল এলাকা, বিভিন্ন নদীতট এবং বন এলাকায় এসব পাখির আগমন ঘটে। অতিথি পাখি আমাদের চারপাশের চিরচেনা প্রাকৃতিক পরিবেশকে আরো মনোমুগ্ধকর করে তোলে। শীতের মিঠেরোদ, কুয়াশার চাদর, উঠোনের কোণে মাটির চুলায় রান্না, চুলার পাশে বসে বসে হাতের তালু গরম করে নেয়া, পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোর উদাম শরীর আর শরীরের শিরশির কাঁপুনি, চায়ের কাপের সাদাটে ধোঁয়া, হলুদ সর্ষের মাঠ- এসব অপরূপ চিত্রপট আমাদের গ্রামবাংলার চিরপরিচিত। অসাধারণ সামাজিক ও পারিবারিক সংস্কৃতির ধারা এখনো আছে এই গ্রামবাংলায়। শীত এলেই আত্মীয়স্বজন বেড়াতে আসে। নানা-মামা, খালু-ফুফা, বোন-দুলাভাই যত স্বজন-সহোদর আছেন সবাই বেড়ানোর জন্য এই মৌসুমটাকে বেছে নেন। তাই শীত যতই থাকুক না কেন উৎসবের আমেজ কিন্তু গ্রামীণ জীবনে কমেনি। শীতের প্রধান উৎসব হলো নবান্ন উৎসব। গ্রামবাংলায় হেমন্তে কৃষকের ঘরে নতুন ফসল তোলা হয়। ঐতিহ্য অনুযায়ী গ্রামে বিবাহিত মেয়েদের বাপের বাড়িতে দাওয়াত দিয়ে আনা হয়। শীতের সকালে বা সন্ধ্যায় পিঠা তৈরি করে সবাই একসঙ্গে বসে ধুমধাম করে পিঠা খাওয়ার উৎসব চলে। শীতের সকাল মানেই নতুন কোনো পিঠার সুস্বাদ নেয়া। গ্রামাঞ্চলে গেলে দেখা যায়, বাড়িতে বাড়িতে পিঠা বানানোর ধুম। শীত এলে তাই পিঠা বানানো হয়ে যায় আনন্দের অনুষঙ্গ। এর মধ্যে ভাপা, কুশলি, চিতই, পাকান, ম্যারা, ফুলপিঠা, পাটিসাপটা, পুলি, শ্যাওই উল্লেখযোগ্য। শীতকালে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকে বলে সবাই গ্রামের বাড়ি কিংবা আত্মীয় বাড়ি যায়। এই সময় দলবেঁধে পিকনিক কিংবা দর্শনীয় স্থানে ঘুরে বেড়ানোর মজাই আলাদা। শীতে খেজুর গাছের রস পেতে গাছে কলসি বাঁধা হয়। সারা রাত নল বেয়ে কলসিতে খেজুর গাছের রস জমে। খুব ভোরে সেই রস নামিয়ে আনা হয়। টাটকা এই খেজুরের রস খেতে খুব সুস্বাদু। এই রস দিয়ে আবার রসের ক্ষীরও রান্না করা হয়। এই রস থেকেই তৈরি হয় খেজুরের গুড়।
এখন জেনে নিই কোন দেশে কখন শীতকাল শুরু ও শেষ হয়। জ্যোতির্বিদদের মতে, শীতপ্রধান এলাকায় দিনে সূর্যের আলো থাকে অল্প সময়ের জন্য। এই অবস্থা ঘটে ঋতুর মধ্যবর্তী সময়ে। শীতের এই সময় বলবৎ থাকে ডিসেম্বরের ২১ বা ২২ তারিখ থেকে মার্চের ১৯, ২০ বা ২১ পর্যন্ত। বছরের যে তিন মাস দিন থাকে সবচেয়ে ছোট সেটাই হলো শীতকাল। সে হিসেবে নভেম্বর, ডিসেম্বর এবং জানুয়ারি হলো উত্তর গোলার্ধে শীতকাল এবং জুন, জুলাই ও আগস্ট দক্ষিণ গোলার্ধে শীতকাল। ইউরোপের মূল ভূখণ্ডের অনেক দেশে শীতকাল ধরা হয় ১১ নভেম্বর থেকে। সেদিনই তাদের ক্যালেন্ডারের প্রথম শীতকাল। চীনের জ্যোতিষশাস্ত্রে এবং পূর্ব এশিয়ার ক্যালেন্ডারে শীতকাল ধরা হয় ৭ নভেম্বর থেকে। যুক্তরাজ্যের আবহাওয়াবিদরা সে দেশে ডিসেম্বর, জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারি এই তিন মাসকে বলেন শীতকাল। স্ক্যান্ডেনেভিয়ায় শীতকাল সাধারণত শুরু হয় অক্টোবরের ১৪ তারিখে এবং শেষ হয় ফেব্রুয়ারির শেষ দিনে। দক্ষিণ গোলার্ধের অনেক দেশে বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় শীতকাল শুরু হয় ১ জুন এবং শেষ হয় ৩১ আগস্ট। উত্তর ইউরোপের দেশ, যেখানে কেলটিক আদিবাসীরা বাস করে সেই আয়ারল্যান্ড এবং স্ক্যান্ডেনেভিয়ায় শীতকাল শুরু হয় ১ নভেম্বর। জলবায়ুর পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই এলাকাভেদে ঋতুর কিছুটা পরিবর্তন ঘটতে পারে।
গ্রামের তুলনায় আমাদের দেশে শহরাঞ্চলে শীতের তীব্রতা কম। শীতের আসল চেহারা আর রূপ পুরোপুরি দেখতে পাওয়া যায় গ্রামে। মানুষের শহরমুখিতার কারণে এখন গ্রামগুলো দিনে দিনে এসব আনন্দ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। আর শহরের যান্ত্রিক জীবনে এসব শীতের আনন্দ একেবারে কল্পনাই করা যায় না।হিমেল হাওয়ায় শীত এসেছে

SHARE

Leave a Reply