Home নিয়মিত খোলা-ডাক খোলা ডাক-ডিসেম্বর ২০১৮

খোলা ডাক-ডিসেম্বর ২০১৮

অনেক দামি

দোস্ত আমি তোকে আজ একটি দামি জিনিস উপহার দিবো, নিবি? আমি বললাম কী দামি জিনিস? সে বলল, একটি কিশোরকণ্ঠ। বললাম এটি কী? সে বলে এটা একটি মাসিক পত্রিকা, কী? সে আমাকে বইটি দেয়। যখন এটা হাতে নিলাম, নিয়ে একনজরে শিরোনাম দেখলাম, দেখেই মুগ্ধ হলাম, ভাবলাম এখন পড়ি কিন্তু তখন পড়া হলো না, কারণ তখনই মুয়াজ্জিন ডাক দেন আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার বলে। মসজিদে গেলাম নামাজ পড়ি। শেষ করে পড়তে শুরু করি নতুন কিশোরকণ্ঠ। এক বসাতে অর্ধেক শেষ করি। আসলে কিশোরকণ্ঠের মতো সাহিত্য মনে হয় আগে কখনো পড়িনি, তখন থেকে আমার দামি জিনিস কিশোরকণ্ঠ। আহা! কী ভালো।

সাইমুন ইসলাম, চট্টগ্রাম, বাঁশখালী

জীবন গড়ার সাথী

কিশোরকণ্ঠ নামটি শুনলেই শরীর এবং মন রোমাঞ্চিত হয়। কিশোরকণ্ঠ পড়াশোনার একঘেয়েমি দূর করে এবং আনন্দ দেয়। এটি কোনো সাধারণ পত্রিকা নয়! একেবারে মনের মতো পত্রিকা। যেকোনো কিশোরের জীবনকে রঙে রাঙিয়ে দিতে, আলোয় ভরিয়ে দিতে এই একটি মাসিক পত্রিকাই যথেষ্ট। এই প্রিয় পত্রিকাটি যেমনভাবে কুরআন ও হাদিসের আলো এবং ইসলামী গল্প, উপন্যাস দিয়ে ইসলামের পথে, আলোর পথে নিয়ে যায়, তেমনি নানারকম প্রবন্ধ, নিবন্ধ, প্রচ্ছদ রচনা, দেশ-মহাদেশ, গল্প, কবিতা, সায়েন্স ফিকশন, আইটি কর্নার ইত্যাদি আমাদের জ্ঞান, বিজ্ঞান ও আনন্দের জগতে নিয়ে যায়। কিশোরকণ্ঠ এমনই একটি মজার পত্রিকা, যা কেউ একবার পাঠ করলে সে কিশোরকণ্ঠের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে যায়। খুব সহজেই এটি পাঠকের হৃদয়ের গভীরে বাসা বাঁধে। একজন আদর্শ বন্ধু যেমন তার বন্ধুকে আদর্শ করে তোলে, আলোয় ভরিয়ে তোলে, তেমনি কিশোরকণ্ঠও একজন আদর্শ বন্ধু। আমার মতো কিশোরদের আদর্শ মানুষ হওয়ার জন্য জীবনকে সঠিক রূপে গড়ার জন্য সে সকল বিষয়ে জানার প্রয়োজন, জ্ঞান অর্জনের প্রয়োজন তা এই কিশোরকণ্ঠে পর্যাপ্ত রয়েছে। আমাদের সবার মুখে মুখে একটাই স্লোগান থাকা উচিতÑ ‘কিশোরকণ্ঠ পড়বো, জীবনটাকে গড়বো’।

সুলতান মাহমুদ
রানীনগর, শিবগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

অভিজ্ঞ শিক্ষক

কিশোরকণ্ঠ একটি অত্যাধুনিক কিশোর পত্রিকা। এই পত্রিকাটি আমাদের জন্য একজন অভিজ্ঞ শিক্ষকের মতো। ডিজিটাল যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ম্যাগাজিনটি এগিয়ে যাচ্ছে অসংখ্য পাঠক নিয়ে। আমরা জানা অজানা অনেক কিছু জানতে পারি কিশোরকণ্ঠ থেকে, যা আমাদের সামাজিক, পারিবারিক কিংবা ব্যক্তিগত জীবনে নিত্যপ্রয়োজনীয় সঙ্গী হিসাবে কাজে আসতে পারে। তাই আমাদের উচিত এই ম্যাগাজিনটি নিজেই নিয়মিত পড়া এবং অন্যদেরকে পড়ার জন্য উৎসাহিত করা।

মু: নকীবুস সালেহীন
বাঁশখালী, বৈলছড়ি, চট্টগ্রাম

জ্ঞানের প্রিয় সঙ্গী

কিশোরকণ্ঠ আমার পড়াশোনার প্রিয় সঙ্গী। আমি আমার জ্ঞান অর্জন করার জন্য কিশোরকণ্ঠ তোমাকেই পেয়েছি। তুমি আমাকে দিয়েছো জানা অজানা, গল্প-কবিতা, রহস্য উপন্যাস। তা ছাড়া তোমাকে সঙ্গী পেয়ে আমার অধিকাংশ চাওয়া পূরণ হয়ে গেছে। ধন্যবাদ তোমাকে হে কিশোরকণ্ঠ! বেঁচে থেকো চিরদিন জ্ঞানের প্রিয় সঙ্গী হয়ে।

এইচ এম মনির হোসাইন
বাংলাবাজার, সোনাইমুড়ি, নোয়াখালী

আজ ও আগামীর পাঞ্জেরী

প্রথমে আমার পক্ষ থেকে কিশোরকণ্ঠ পরিবারকে প্রাণঢালা অভিনন্দন। বাংলাদেশে বহুল প্রকাশিত পত্রিকার মধ্যে কিশোরকণ্ঠকে আমি সবার ওপরে তুলে রাখবো। কিশোরকণ্ঠ আমাকে আজ ও আগামী দিনের সঠিক কারিগর হিসেবে গড়ে তুলেছে। মনকে আনন্দ দেয়ার জন্য কিশোরকণ্ঠের গুরুত্ব অপরিসীম।

জিয়ারুল ইসলাম
পাইকের ছড়া, ভুরুঙ্গামারী, কুড়িগ্রাম

SHARE

Leave a Reply