Home নিয়মিত খোলা-ডাক খোলা ডাক

খোলা ডাক

রাতের আলো
কিশোরকণ্ঠ আমার আনন্দের প্রদীপ। রাতের অন্ধকারকে যেমন তারারা আলোকিত করে তেমনি আমার জীবনের ইচ্ছাকে আলোকিত করেছে কিশোরকণ্ঠ। কিশোরকণ্ঠের মাধ্যমে আমি নতুন কিছু শিখি। আর আমার আনন্দের খোরাক জোগে। আমি যখন কিশোরকণ্ঠ পড়ি তখন আমার মনে হয় আমি জ্ঞানের ভাণ্ডারে দৌড়াচ্ছি। কিশোরকণ্ঠ থাকলে মনে হয় আমি সুখ বিনোদনের জন্য উত্তাপহীন রোদ এবং ঝরঝরে পরিবেশে আছি। রাতে ঘুমানোর আগে আল্লাহর কাছে প্রাণ খুলে দোয়া করি। যতদিন পদ্মা, মেঘনা থাকবে ততদিন যেন কিশোরকণ্ঠও থাকে।
মো: কামরুল হাসান
বাঁশখালী, চট্টগ্রাম

বন্ধু
সবার জীবনে বন্ধু থাকে। আমার জীবনেও অনেক বন্ধু আছে। তার মধ্যে শ্রেষ্ঠ বন্ধু হচ্ছে কিশোরকণ্ঠ। কিশোরকণ্ঠ আমাকে জীবনের পদে পদে সহায়তা করেছে। আমি যখন কিশোরকণ্ঠ হাতে পাই, তখন মনে হয় নীল আকাশে মেঘের মাঝে উড়তে থাকি। আমার বন্ধুর কথা মনে পড়লেই, সর্বপ্রথম কিশোরকণ্ঠের কথা মনে পড়ে। তাই আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ বন্ধুই কিশোরকণ্ঠ।
রবিউল আউয়াল
শিবগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

হৃদয়ের কথা বলে
কিশোরকণ্ঠ সত্যিই হৃদয়ের কথা বলে। হৃদয়ে যখন একটি সুন্দর সুশৃঙ্খল জীবন গড়ার স্বপ্ন এঁকেছি ঠিক এমন মুহূর্তেই এই পত্রিকাটি হাতে পাই। পড়ে মনে হলো জগতে যা চির সুন্দর ও সত্য তাই এই পত্রিকায় স্থান পায়। একটি সার্থক সমাজগঠনে কিশোরকণ্ঠের তুলনা অপরিসীম।
ইমাম হোসেন
চাম্বল, বাঁশখালী, চট্টগ্রাম

মনের মত
আমি আমার জীবনে যতগুলো পত্রিকা পড়েছি তার মধ্যে একটি মাত্র পত্রিকা যা আমার মনের মত, যা অধ্যয়নের মাধ্যমে এমন অজানা অনেক বিষয় আমি জানতে পারি। এটা আমাদের জ্ঞানকে বিকশিত করে। আমরা এ পত্রিকাতে- কুরআনের আলো, হাদিসের আলো, ছড়া-কবিতা, হাসির বাকসো, শব্দধাঁধা, উপন্যাস, গল্পসহ আরো অনেক বিষয় পেয়ে থাকি। আরো পাওয়া যায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি। আমরা জ্ঞান লাভ এবং আনন্দ দুটোই পেয়ে থাকি। তাই এই পত্রিকা আমার মনের মত যার নাম নতুন কিশোরকণ্ঠ।
আবদুল্লাহ জুবাইর
কমলনগর, লক্ষ্মীপুর

সাত রাজার ধন
আমি কিশোরকণ্ঠের একজন নিয়মিত পাঠক। কিশোরকণ্ঠের প্রত্যেকটি বিভাগ আমার খুবই ভালো লাগে। আমি কিশোরকণ্ঠ পড়ে অনেক কিছু শিখেছি। কিশোরকণ্ঠ পড়ে অনেক নতুন নতুন বিষয় জানতে পারি। তাই আমি মাসের প্রথম থেকেই কিশোরকণ্ঠের অপেক্ষায় থাকি। যখন কিশোরকণ্ঠ হাতে পাই তখন আমার মনে হয় আমি সাত রাজার ধন হাতে পেয়েছি।
মোসাদ্দেকুল ইসলাম, দিগটারী, রংপুর

প্রেরণার বাতিঘর
দীর্ঘদিন ধরে প্রিয় পত্রিকা কিশোরকণ্ঠের সাথে পথচলা। প্রিয় লেখকদের লেখা পড়ে নতুন কিশোরকণ্ঠকে পেয়েছি আমি ‘প্রেরণার বাতিঘর’ হিসেবে। শুধু আমি নই এভাবে আজ হাজারো তরুণের প্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করছে প্রিয় পত্রিকা কিশোরকণ্ঠ। আমার বিশ্বাস আমাদের ভালোবাসার মাঝে কিশোরকণ্ঠ বেঁচে থাকবে চিরকাল।
ফারুক আল ফাহাদ
তাহিয়া, নোয়াখালী

SHARE

Leave a Reply