Home গল্প বইমেলা, বই পড়া -মোনোয়ার হোসেন

বইমেলা, বই পড়া -মোনোয়ার হোসেন

সবাই বলে মিলি বইয়ের পোকা!
কোনো বই পড়া শুরু করলে শেষ না করা অবধি তার ভালো লাগে না। ভূতের গল্প হলে তো আর কোনো কথায় নেই! তখন পৃথিবীর কোনো কিছুর দিকে খেয়াল থাকে না তার।
একদিন একটা ভূতের গল্পের বই পড়ছিল সে, মা এসে তার টেবিলের ওপর যে এক গ্লাস দুধ রেখে গেছেন, সেদিকে কোনো খেয়ালেই নেই তার। বই পড়ছে তো পড়ছেই!
এদিকে তেতলি এসে চুকচুক করে সব দুধ খেয়ে ফেলেছে!
তেতলি মিলির বিড়ালের নাম। মিলি নিজেই বিড়ালের এই নাম রেখেছে। এই নাম রাখার পেছনে অবশ্য ছোট একটি কারণও আছে। মিলি একটা বই পড়েছিল। সেখানে একটি মেয়ের নাম ছিলো তেতলি। তেতলিকে খুব ভালো লাগে মিলির। তারপর ছোট মামা তাকে এই বিড়ালটি উপহার দিলে সে তার নাম রেখে দেয় তেতলি।
আর কয়েকদিন পরেই ফেব্রুয়ারি মাস। ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকায় বইমেলা বসে। বিশাল বড় বইয়ের মেলা। থাকে দীর্ঘ একমাস।
বইমেলা আসছে দেখে মিলির মনে অনেক আনন্দ! সে মেলায় যাবে। অনেক অনেক বই কিনবে। মেলায় তো পছন্দ মতো সব বই পাওয়া যায়। মিলি এবার মেলায় কোন কোন লেখকের বই কিনবে তার একটি তালিকাও তৈরি করে ফেলেছে।
ফেব্রুয়ারি মাস আসে।
শুরু হয় বইমেলা।
মিলির তো আর তর সইছে না। সে কখন মেলায় যাবে। কখন বই কিনবে। আসে শুক্রবার। শুক্রবার বাবার অফিস বন্ধ। বিকেলে বাবার হাত ধরে মেলায় গেলো ও।
মেলায় পৌঁছে তো সে অবাক। ওমা! মেলায় এত্ত এত্ত বই!
কোনটা বাদ দিয়ে যে কোনটা কিনবে বুঝতে পারে না সে। এবারের মেলায় প্রতিটি বইই সুন্দর। তার তো মেলার সব বইই কিনে ফেলতে ইচ্ছে করছে। কিন্তু চাইলেই কি আর সব বই কেনা যায়?
তবুও কিনতে কিনতে অনেক বই কিনে ফেললো সে। একেবারে হাতেই ধরে না আর!
একজন খুদে পাঠকের হাতে এত্তগুলো বই দেখে সব টিভির সাংবাদিকরা এসে তাকে ঘিরে ধরলেন। কেউ কেউ তাকে টিভিতে লাইভ দেখাতে লাগল। তরুণ লেখকরা তাকে নিয়ে সেলফি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। তারা সেলফি তুলছে আর ফেসবুক, টুইটারে আপলোড দিচ্ছে। কিছুক্ষণের মধ্যে পুরো ফেসবুক জুড়ে মিলির ছবি ছড়িয়ে পড়ল। সাংবাদিকরা তাকে প্রশ্ন করেন, তুমি এত্তগুলো বই কিনেছ কেন?
মিলি মুচকি হেসে বলল, বইমেলা মানেই তো বই পড়া।

SHARE

Leave a Reply