Home স্বাস্থ্য কথা পেঁয়াজপাতার গুণাগুণ -জুনাইদ জামশেদ

পেঁয়াজপাতার গুণাগুণ -জুনাইদ জামশেদ

পেঁয়াজপাতা ও পেঁয়াজের কন্দ সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর। এতে উচ্চ মাত্রার সালফার থাকে যা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী।
পেঁয়াজ পাতা ভিটামিন সি, ভিটামিন বি১২ এবং থায়ামিন সমৃদ্ধ। পেঁয়াজের কন্দে ভিটামিন-এ ও ভিটামিন-কে থাকে। এ ছাড়াও কপার, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, ক্রোমিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ ও ফাইবার থাকে। কোয়ারসেটিন নামক ফ্ল্যাভ-নয়েডের উৎস এই পেঁয়াজ পাতা। পেঁয়াজ পাতার স্বাস্থ্য উপকারিতাগুলো জানা যাক এবার।

১. পেঁয়াজপাতার অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ফ্রি রেডিকেলের কাজে বাধা প্রদান করে কোষ, কলার এবং ডিএনএ-এর ক্ষতি রোধ করতে পারে। পেঁয়াজপাতার ভিটামিন সি কোলেস্টেরল ও রক্তচাপের উচ্চ মাত্রাকে কমাতে সাহায্য করে যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। পেঁয়াজপাতার সালফার করোনারি হার্ট ডিজিজ এর ঝুঁকি কমিয়ে থাকে।

২. অ্যান্টি ভাইরাল ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান থাকায় পেঁয়াজপাতা সাধারণ ঠান্ডা, ফ্লু ও ভাইরাল ইনফেকশনের ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কফ বাহির করে দিতে সাহায্য করে পেঁয়াজ পাতা।

৩. পেঁয়াজপাতায় উচ্চমাত্রার ভিটামিন সি ও ভিটামিন কে থাকে যা হাড়ের স্বাভাবিক কার্যাবলির জন্য প্রয়োজনীয়। ভিটামিন সি কোলাজেনের সমন্বয় সাধনে কাজ করে যা হাড়কে শক্তিশালী করে। অন্যদিকে ভিটামিন কে হাড়ের ঘনত্ব রক্ষায় প্রধান ভূমিকা পালন করে।

৪. সবুজ পেঁয়াজের সালফার যাতে অ্যালাইল সালফাইড থাকে তা কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। সবুজ পেঁয়াজে ক্যান্সাররোধী উপাদান ফ্লেভনয়েড থাকে।

৫. ডায়রিয়া এবং পাকস্থলীর জটিলতার ক্ষেত্রে শক্তিশালী প্রাকৃতিক প্রতিকার হচ্ছে স্প্রিং অনিওন। এ ছাড়াও রুচি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে ও পেঁয়াজ পাতার উচ্চ মাত্রার ফাইবার হজম সহায়ক।

৬. পেঁয়াজপাতার খনিজ উপাদান সালফার ছত্রাকের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করে এবং ভিটামিন কে রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তা করে। এ ছাড়াও এঁরা রক্ত সংবহনের উন্নতি করে।

৭. শরীরে ভিটামিন বি-১ এর শোষণের মাধ্যমে চাপ ও ক্লান্তি কমায়। শরীরের কলার প্রদাহ ও ক্ষতি থেকে রক্ষা করে পেঁয়াজপাতার ভিটামিন সি। এগুলোর পাশাপাশি পেঁয়াজপাতায় অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টি হিস্টামিন উপাদান থাকে যা আরথ্রাইটিস ও অ্যাজমার চিকিৎসায় ভালো ফল দেয়, বিপাকে সহায়তা করে।

৮. চোখের অসুখের জন্য ভালো, ত্বকের কুঞ্চন প্রতিরোধ করে ও রক্তের সুগার লেভেল কমাতে সাহায্য করে। তাই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নিয়মিত পেঁয়াজপাতা খেতে হবে।

SHARE

Leave a Reply