Home ছড়া-কবিতা কবিতা

কবিতা

শরতে
আহমদ মতিউর রহমান

শরতে
আকাশের
পরতে
পরতে
উড়ে চলে সাদা মেঘ,

মন
পবনের
নাওয়ে
দেয়
আকাশ পাড়ি, নেই উদ্বেগ।

সাদা সাদা
মেঘ দল
খেলা করে
সারা বেলা
নীলাকাশ
ছুঁয়ে যায়
যায় ছুঁয়ে
মেঘ-ভেলা!
রাশ রাশ
কাশ ফুল
তুলতুল
আনমনা ওড়ে
শিউলির
ফুলে ফুলে
ছেঁয়ে যায়
গাছ তলা ভোরে।

 

শরতে
আমিনুল ইসলাম

কাশ বন দোল খায়
সাদা মেঘ ভাসলো
স্বপ্নের ছোঁয়া পেয়ে
কৃষাণেরা হাসলো।
শরতের আগমনে
প্রজাপতি সাজলো
পাখিদের কলতান
কানে সুর বাজলো।
নদীর ওই বাঁকে বাঁকে
হাসে কেউ খিল খিল
চাঁদ এসে উঁকি দেয়
দিঘি করে ঝিলমিল।
মনে হয় সুখগুলো
ধরা দেয় শরতে
মাঠ ঘাট নদী নালা
ছোঁয়া প্রতি পরতে।

টুনটুনি
মাহমুদ শরীফ

টুনটুনি গো টুনটুনি
আমার কথা যাও শুনি

তিড়িং বিড়িং ডালিম ডালে
সকাল দুপুর সন্ধ্যাকালে-
আমি তোমার গান শুনি
টুনটুনি গো টুনটুনি।

টুনটুনি গো টুনটুনি
তোমায় আমি খুব চিনি

লাউয়ের মাচায় করো বাসা
ছোট্ট হলেও ভারি খাসা –
তোমার খবর সব জানি
টুনটুনি গো টুনটুনি।

এই শহরে
মাহবুব এ রহমান

রিকশা চড়ে ঘুরছি শহর আব্বুর সাথে
রিপোর্ট হাতে বসা আছি জোছনা রাতে।
আব্বুর অসুখ সেজন্যই শহর আসা
রাত হয়েছে থাকবো তো তাই মামার বাসা।

আব্বু হঠাৎ বলেন আমায় ‘শোননা বাবা’
এইখানেতেই চলতো প্রায়ই বাঘের থাবা।
জায়গাটাতে তখন ছিলো গাছগাছালি
কিচিরমিচির ডাক শোনাতো পাখপাখালি।

রাজত্বটা চলতো তখন বানর-বাঘের
বলছি যে সব নয় পুরনো ক’দিন আগের।
সবুজ-শ্যামল গাছগাছালির ছিল শহর
খুব বেশি আর আসতো না তো মানববহর।

শান্ত-কোমল শহর পাশেই সুরমা নদী
কলকলিয়ে চলতো বয়ে নিরবধি।
ধীরে ধীরে শহর যখন হলো আবাদ
সবুজ-শ্যামল বন-বনানী রাখলো না বাদ।

নেইতো এখন শহরজুড়ে সবুজছায়া
একটু খুঁজে পায় না আরাম ক্লান্তকায়া।
ভরলো শহর উঁচু দালান, শৈল্পিকতায়
আগের মতো শান্তি তো নেই এখন তথায়।

নয়নমনি
আবদুল হাই ইদ্রিছী

মাগো তোমায় ভালোবাসি
প্রতিক্ষণ-ই আমি,
এ দুনিয়ায় তুমি হলে
সবার চেয়ে দামি।

ঘরে বলি বাইরে বলি
সব-ই এখন মেকি,
তোমার কাছে কেবল মা
খাঁটিগুলো দেখি।

পৃথিবীতে তোমার মত
আপন কেহ পাই না,
তোমায় আমি বাসতে ভালো
দিন-রজনী চাই না।

তুমি আমার নয়নমনি
তুমি মনের আলো,
সারা জীবন তোমায় আমি
বেসে যাবো ভালো।

SHARE

Leave a Reply