Home আইটি কর্নার কৃত্রিম চোখে আলোর আধার দেখা যাবে অন্ধকারেও -তানভীর তাজওয়ার

কৃত্রিম চোখে আলোর আধার দেখা যাবে অন্ধকারেও -তানভীর তাজওয়ার

মানুষ সৌন্দর্যের ভক্ত। আর মানুষের সৌন্দর্যের একটি বড় অংশজুড়েই রয়েছে তার চোখ। এটি মানবদেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গের মধ্যে অন্যতম। আমরা অনেকেই এর মূল্য বুঝতে পারি না। বুঝতে পারি তখন; যখন এটি হারাই। যদি কোনো আঘাত, দুর্ঘটনা বা জটিল কোনো রোগের জন্য চোখ হারাতে হয় তাহলে সেই মানুষটির আর কষ্টের শেষ থাকে না। সবার মাঝে নিজেকে খুব একা ও নিঃসঙ্গ ভাবতে থাকে। তাই অনেকে কালো চশমা পরে সবার মাঝ থেকে আড়াল করে রাখতে চায় নিজেকে। কিন্তু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির এ যুগে আমাদের মধ্যে আশার আলো জ্বেলে দিয়েছে একটি কাস্টম মেইড কৃত্রিম চোখ।

অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে অ্যাক্রিলিক পলিমার ফাইবার দিয়ে চোখ বানানো হচ্ছে। কৃত্রিম এই চোখ লাগানোর পরও মুখের গড়নের কিন্তু কোনো অস্বাভাবিকতা আসবে না। তাছাড়া অন্য ভালো চোখের মতোই এই কৃত্রিম চোখ ওপর-নিচ, ডানে-বাঁয়ে ঘোরানো যায়। ফলে আসল নকলের তফাত ধরতে পারবে না কেউ। প্রচলিত চিকিৎসা সত্ত্বেও যাদের একটি চোখ স¤পূর্ণরূপে নষ্ট হয়ে গেছে বা দুর্ঘটনাজনিত কারণে চোখটি তুলে ফেলতে হয়েছে তাদের ক্ষেত্রেই প্রয়োজন এই কৃত্রিম চোখ প্রতিস্থাপনের। আবার অনেক সময় জন্মগত কারণেও এরকম হয়ে থাকে। গবেষকরা বলেন, কৃত্রিম চোখের মধ্যে কয়েক শ’ কোটি গ্রাহক যন্ত্র থাকে। আর মাত্র ৬০ পিক্সেলের যন্ত্রে একজন অন্ধ বড় বস্তু দেখতে পারে। যাদের ক্যান্সার হয়ে চোখ নষ্ট হয়ে গেছে তাদের ক্ষেত্রে লাগানো হয় সিলিকন রাবার প্রসথেসিস বা পক্টেকল প্রসথেসিস। বর্তমানে পিএমএমএ মেটেরিয়াল দিয়ে চোখ বানিয়ে স্টেরেলাইজ করে এই চোখ বসানো হয়, যা অত্যন্ত মেডিকেটেড এবং ইনফেকশন হওয়ার চান্স থাকে না। কেউ চাইলে রোজ খোলা-পরা করতে পারেন, আবার কেউ চাইলে রোজ না খুলে একটানা অনেক দিন পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারেন।

সাধারণত রাতের ঘুটঘুটে অন্ধকারে কিছু দেখা অসম্ভব। আলো লাগেই। কিন্তু এবার আর আলোরও প্রয়োজন হবে না। কৃত্রিম চোখ লাগানো থাকলে অন্ধকারেও সবকিছু পরিষ্কার দেখা যাবে। গলদা চিংড়ি ও আফ্রিকান এক জাতের মাছের চোখের সেরা বৈশিষ্ট্যগুলো কাজে লাগিয়ে কৃত্রিম এই চোখ তৈরি করেছেন বলে দাবি করেছেন মার্কিন গবেষকরা। গবেষকদের দাবি, এই কৃত্রিম চোখ চিকিৎসা, দুর্যোগে অনুসন্ধান ও উদ্ধার, মহাকাশে গ্রহ অনুসন্ধানী টেলিস্কোপে ব্যবহার করা যাবে। যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিন-ম্যাডিসন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দাবি করছেন, সেন্সর যন্ত্রাংশের পরিবর্তে লেন্সের ভেতর ইমেজিং সিস্টেমের সংবেদনশীলতার ক্ষেত্রে উন্নতি করেছেন তারা। অন্ধকারেও এর সাহায্যে দিনের মতো পরিষ্কার দেখা যাবে।

SHARE

Leave a Reply