Home হাসির বাকসো হাসির বাকসো

হাসির বাকসো

মা ও ছেলের মধ্যে কথা হচ্ছে-
বাবু : মা, হাতে savlon নিচ্ছো কেন?
মা : কারণ, savlon দিয়ে জীবাণু পরিষ্কার হয়। তাছাড়া সব ধরনের শরীরের জীবাণুতে savlon ব্যবহার করলে তা সব vanish  হয়ে যায়।
বাবু : সত্যিই?
মা : হ্যাঁ, সত্যিই।
তার পরের দিন
বাবু  savlon  খাচ্ছে। সেই সময়-
মা : কিরে  savlon  খাচ্ছিস কেন?
বাবু : কেন তুমিই তো বললে  savlon  ব্যবহার করলে শরীর জীবাণুমুক্ত হয়। এজন্য  savlon  খেয়ে শরীর জীবাণুমুক্ত করছি যাতে সব জীবাণু vanish হয়ে যায়।
মা : আরে পাগল ছেলে! savlon  খাবার জন্য নয়, ওটা এক ধরনের ওষুধ। শরীরে মাখতে হয়।
সংগ্রহে : মতিউর রহমান
মেরিট কোচিং সেন্টার

এক ভদ্রলোকের বাড়ি চুরি হওয়ায় পুলিশ তার স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে লাগল
পুলিশ : আচ্ছা, চোর কিভাবে আপনার ঘরে ঢুকে সব কিছু চুরি করে নিয়ে গেল?
ভদ্রমহিলা : Cutting the বাঁশের বেড়া ঢুকিং The চোর, Taking the মালপত্র Outing the door.
মো: ময়নুল ইসলাম মামুন
সুন্দরগঞ্জ, গাইবান্ধা

দুই বন্ধুর মধ্যে কথোপকথন-
১ম বন্ধু : তুই কী দেখে ভয় পাস?
২য় বন্ধু : বাঘ দেখে, আর তুই কী দেখে পাস?
১ম বন্ধু : মশা দেখে।
২য় বন্ধু : কেন?
১ম বন্ধু : বাঘ দেখে আমরা ভয় পাই ঠিকই কিন্তু বাঘকে আমরাই খাঁচায় বন্দি করে রাখি। আর মশার ভয়ে আমরাই মশারির ভেতর বন্দি হয়ে থাকি।
নাজমুল হোসেন
সাঁথিয়া, পাবনা

একদিন আবুল বাসে করে তার নানুর বাড়ি যাচ্ছিল। জানালার পাশে বসাতে বাইরের বাতাস গায়ে লেগে সে ঘুমিয়ে পড়ল। কিছুক্ষণ পর কনটাক্টর ভাড়া নিতে এলেন-
কনটাক্টর : এই যে কোথা থেকে উঠলেন ভাড়া দেন।
আবুল : এই তো ঘুম থেকে।
মুহাম্মদ নকীবুস সালেহীন
বাঁশখালী, চট্টগ্রাম

তিন বন্ধু বিমানে ভ্রমণ করছে। একজন আমেরিকান, একজন জাপানি এবং একজন বাঙালি।
আমেরিকান বন্ধু : আমাদের দেশের বিজ্ঞানীরা এমন একটি উড়োজাহাজ তৈরি করেছে, যা আকাশ ছুঁয়ে যায়।
অপর দুই বন্ধু : (অবাক হয়ে) একেবারে আকাশ ছুঁয়ে যায়?
আমেরিকান বন্ধু : না ঠিক আকাশ ছুঁয়ে নয়, একটু নিচ দিয়ে যায়।
জাপানি বন্ধু : আমাদের দেশের বিজ্ঞানীরা এমন একটি ডুবোজাহাজ তৈরি করেছেন, যা সাগরের তলা ছুঁয়ে যায়।
অপর দুই বন্ধু : তাই! (অবাক হয়ে) সাগরের তলা ছুঁয়ে যায়?
জাপানি বন্ধু : না, ঠিক তলা ছুঁয়ে নয়, একটু উপর দিয়ে।
বাঙালি বন্ধু : আমাদের দেশের লোকজন নাক দিয়ে ভাত খায়।
অপর দুই বন্ধু : নাক দিয়ে! (আশ্চর্য হয়ে)
বাঙালি বন্ধু : না, ঠিক নাক দিয়ে নয়। একটু নিচ দিয়ে খায়।
মোহাম্মদ লাবিব হাসান
সদর, ময়মনসিংহ

দুই পাগলের মধ্যে কথা হচ্ছে-
১ম পাগল : বলতো বিদ্যুৎ আবিষ্কার না হলে কী হতো?
২য় পাগল : আরে কী আর হতো আমাদের হারিকেন জে¦লে টিভি দেখতে হতো।
ইশমাম উদ্দীন কবীর
মির্জাখীল, সাতকানিয়া, চট্টগ্রাম

ছোট্ট বল্টু ও তার মায়ের কথোপকথন-
বল্টু : আম্মু আমাদের টয়লেটটা কী সুন্দর! দরজা খুললেই বাতি জ¦লে।
মা : ওরে পাগল তুই আজকেও ফ্রিজে প্রস্রাব করেছিস!
ইছমাইল কুদ্দুছ
হাজিরহাট, কমলনগর, লক্ষ্মীপুর
ডুবুরি : জানো ভাই আমি একবার পানির এত নিচে গিয়েছিলাম যে, সেখানে দেখি কত বড় বড় পাখি উড়ে বেড়াচ্ছে তা আর বলার মতো না।
আকাশচারী : আর আমি একবার আকাশের এত উপরে গিয়েছিলাম যে, সেখানে গিয়ে দেখি কত বড় বড় মাছ সাঁতার কাটছে।
শেখ শাকিব মাহমুদ
রামপাল, বাগেরহাট

চোরের সরদারের  উপদেশ:
ভাগ-বাটোয়ার জন্য কয়েকজন চোর মিলে সারা রাতের চুরির টাকা হিসাব করছে। হিসাব করার সময় এক চোর একখানা হাজার টাকার নোট সরিয়ে ফেলতে গিয়ে ধরা পড়েছে। তখন চোরের সর্দার সেই ধরা পড়ে যাওয়া চোরটিকে তিরস্কার করছেÑ এই তোরে না একদিন কইছি ভালো হইয়া যা, ভালো হইতে পয়সা লাগে না? জীবনে সততার সাথে কাজ করবি, উন্নতি করতে পারবি। চুরি-চামারি করবি তো জীবন শেষ!
মোঃ ইলিয়াছ সরকার
বাট্টাজোড়, বকশিগঞ্জ, জামালপুর

গোলাপ ও নাঈমের মধ্যে কথোপকথন-
নাঈম : আচ্ছা গোলাপ তুমি এত সুন্দর কেন?
গোলাপ : এইটা আমার গৌরব।
নাঈম : তাহলে তোমার গায়ে কাঁটা কেন?
গোলাপ : এইটা আমার অহঙ্কার
নাঈম : ইস তাহলে তুমি ঝরে যাও কেন?
গোলাপ : তুমি কি জানো না অহঙ্কার পতনের মূল।
মু. নাঈমুল ইসলাম (জিহাদ)
লক্ষ্মীপুর

SHARE

Leave a Reply