Home ফিচার ঋতুরাজ বসন্ত -নুসাইবা মুমতাহিন

ঋতুরাজ বসন্ত -নুসাইবা মুমতাহিন

বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ।
মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে এদেশে ঋতুর আবির্ভাব ঘটে এবং সেগুলো পর্যায়ক্রমে আবর্তিত হয়।
বাংলা বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী ঘুরে ফিরে আসে ঋতু বসন্তকাল। ফাল্গুন ও চৈত্র মাস (ফেব্রুয়ারির মধ্যভাগ থেকে এপ্রিলের মধ্যভাগ পর্যন্ত) নিয়ে বসন্তকাল। শীতের পর বাংলাদেশের প্রকৃতিতে রাজকীয় শোভা বিস্তার করে আবির্ভূত হয় বসন্তকাল। এজন্য বসন্ত কালকে ঋতুরাজ বলা হয়।
এ সময়ের আবহাওয়া থাকে নাতিশীতোষ্ণ। এ সময়ে গড়ে তাপমাত্রা থাকে ২২ ডিগ্রি থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে। আপেক্ষিক আর্দ্রতা থাকে মাত্র ৫০-৭০ ভাগ। এ সময়ে প্রভাতে ও সন্ধ্যায় ভ্রমণ স্বাস্থ্যকর।
এই ঋতুতে বায়ু বিভিন্ন দিক থেকে প্রবাহিত হয়। শীতের উত্তরে তথা উত্তর-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু প্রবাহের পরিবর্তে গ্রীষ্মের দক্ষিণ অথবা দক্ষিণ-পশ্চিমা বায়ু প্রবাহিত হতে শুরু করায় এ ক্রান্তিকালে বায়ু প্রবাহের দুরন্তপনা শুরু হয়।
বসন্তের আবহাওয়া থাকে মনোরম, আকাশে কিছু কিছু মেঘ থাকলেও সার্বিক আবহাওয়া থাকে নির্মল ও কোমল।
এ ঋতুতে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বড়ই চমৎকার হয়ে ওঠে। তরুলতাসমূহ নতুন পত্রপুষ্পে সুশোভিত হয়। রক্তবর্ণের শিমুল, পলাশ ও কৃষ্ণচূড়া এ সময়েই ফোটে। তাছাড়া আরও রয়েছে বিভিন্ন রঙের গোলাপ, কামিনি, বকুল, বেলি এবং রজনীগন্ধা। আম গাছে নতুন মুকুল আসে। বৃক্ষের অন্তরালে থেকে কোকিল সুমধুর কুহু কুহু স্বরে দিক-দিগন্ত মুখরিত করে তোলে। মৌমাছি মনের আনন্দে গুঞ্জন করতে করতে সুগন্ধি পুষ্প ও আমের মুকুল থেকে মধু আহরণ করে। যব, গম, সরিষা ইত্যাদি শস্যে মাঠগুলো অপরূপ শোভা ধারণ করে।
বসন্তকালে গাছে গাছে নতুন পাতা দেখা যায়। এ সময়ে অত্যন্ত সুন্দর বিভিন্ন রঙের ও বর্ণের প্রজাপতিরা উড়ে বেড়ায় নানা রঙের ফুলের চারপাশে। বসন্তের সকালে পাখির গুঞ্জন শোনা যায়। এ সময়ে প্রকৃতি নতুন রূপ ধারণ করে।
বসন্তকালে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকে না। আকাশ উজ্জ্বল থাকে। রাতে প্রকৃতি হয়ে ওঠে মনো-মুগ্ধকর। চাঁদ পূর্ণরূপে কুসুমায়ন হয়ে উপস্থিত হয়।
যদিও ফুলের ঋতু বসন্ত, তবুও এ সময়ে বিভিন্ন পাখির গুঞ্জনে মুখরিত হয় চারপাশ। কোকিলের পাশাপাশি বিভিন্ন পাখি যেমন- দোয়েল, বৌ কথা কউ সহ বিভিন্ন পাখির মধুর কলরবে ভরে ওঠে চারিদিক।
বসন্তকালে মানুষের মাঝে নতুন অনুভূতির সঞ্চার হয়। তারা নতুন প্রকৃতির সাথে একাত্ম ঘোষণা করে নতুনভাবে উজ্জীবিত হতে চায়। বিশেষভাবে এই ঋতুটি সবাইকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে।
বসন্ত ঋতু আমাদের এক অন্যরকম দার্শনিক দৃষ্টিকোণ দান করে। আমরা কিছু সময়ের জন্য হারিয়ে যাই ভাবনার অতল গহবরে।
বসন্ত ঋতু আমাদের প্রকৃতিকে নতুনভাবে সাজায়। তবে এই ঋতুটি খুব সংক্ষিপ্ত। এই সংক্ষিপ্ততাই হয়ত এই ঋতুকে পছন্দ করার বিশেষ কারণ।
বসন্তকাল আমাদের জীবনকে আলোকিত করে। তাই বসন্তকাল আমাদের সবার পছন্দের ঋতু।

SHARE

Leave a Reply