Home নিয়মিত আমাদের কথা আ মা দে র ক থা

আ মা দে র ক থা

প্রাণপ্রিয় বন্ধুরা
আসসালামু আলাইকুম।
আশা করি সবাই ভালো এবং সুস্থ আছ।
বছর ঘুরে আবারও এলো আমাদের মাঝে মধুমাসÑজ্যৈষ্ঠ। চার পাশে পাকা ফলের মৌ মৌ গন্ধ। হাত বাড়ালেই আম, জাম, লিচু, কাঁঠালসহ আরও কতই না ফলের বাহার! সেসব দেখলে জিহবায় পানি এসে যায়। এত ফলের সমাহার বছরে আর অন্য কোনো সময় চোখে পড়ে না। এজন্যইতো জ্যৈষ্ঠকে বলা হয় মধুমাস। কী চমৎকার! যত পার খাও আর প্রিয়জনদের মাঝে বিলাও। হাত দুটো প্রসারিত কর আবার সেইসব বন্ধুর দিকে, যাদের কোনো ফলের গাছ নেই। কিনে খাবারও সামর্থ্য নেই। সেইসব বঞ্চিত ও অবহেলিত দরিদ্র বন্ধুদের দিকেও আমাদের খেয়াল রাখতে হবে।
১১ জ্যৈষ্ঠ। আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মদিন। দিনটির কথা মনে আছেতো? মনে তো থাকতেই হবে। কারণ কবি নজরুল আমাদের প্রাণের কবি, প্রিয় কবি, অত্যন্ত কাছের মানুষÑ আপনজন। তাঁর কবিতা আমাদের জন্য তথা গোটা জাতির জন্যই এক মহা সম্পদ। তিনি ঘুম ভাঙানিয়া কবি। জাগৃতির কবি। সাহস ও সংগ্রামের কবি। জাতির মুক্তি ও স্বাধীনতা অর্জনের কবি। তাঁর কবিতা ও গানে আমরা আমাদের আত্মপরিচয়, জাতি পরিচয় এবং সাংস্কৃতিক পরিচয় উজ্জ্বল হয়ে উঠতে দেখি। তাঁর কবিতা ও গানে আমরা পাই আমাদের হারানো সাহস, গৌরব এবং অতীত ইতিহাস। আমরা তাঁর কবিতা ও গানে জেগে উঠি নতুন করে। সাহস ফিরে পাই। ফিরে পাই আমাদের স্বপ্ন-যাত্রার সুন্দর মানচিত্র।
এজন্যই তো কাজী নজরুল ইসলাম এক মহান কবি। শ্রেষ্ঠ কবি। আমাদের জাতিসত্তার সাথে মিলে মিশে এক হয়ে আছে তাঁর সৃষ্টিসম্ভার। তাইতো তাঁকে আমাদের স্মরণ করতে হবে প্রতিটি মুহূর্তে।
এসো আমাদের এই জাতীয় মহান কবিকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি এবং তাঁর রচনার ভেতর থেকে আমাদের জন্য অতি প্রয়োজনীয় মণিমুক্তা সংগ্রহ করি। এই অমর কবিকে আরো বেশি করে ভালোবাসি এবং তাঁকে সার্বিকভাবে জানার চেষ্টা করি।
মে দিবসের রক্তাক্ত ইতিহাসের কথা তোমাদের নিশ্চয়ই মনে আছে! আমাদের দেশে এখনো কিন্তু শিশু-কিশোররা নানাভাবে বঞ্চিত, অবহেলিত, নিপীড়িত এবং নির্যাতিত। ঝুঁকিপূর্ণ কাজে অনেকেই নিয়োজিত শুধুমাত্র পেটের দায়ে। আমরা আশা করি আমাদের দেশ এই গ্লানির ভার থেকে সহসাই মুক্ত হবে। তারা ফিরে পাবে তাদের প্রকৃত মানুষ হওয়ার যথাযথ উপাদান।
আজ এই পর্যন্তই।
আল্লাহ হাফিজ।

SHARE

Leave a Reply