Home নিয়মিত খোলা-ডাক খোলা ডাক

খোলা ডাক

অপেক্ষায় থাকি
মাসের শুরু থেকেই অপেক্ষার প্রহর গুনতে থাকি, কখন আসবে নতুন কিশোরকণ্ঠ। দিন যেন কিছুতেই শেষ হয় না। অপেক্ষার প্রহর শেষে যখনই নতুন কিশোরকণ্ঠ হাতে পাই তখনই পড়ে ফেলি এর সব বিভাগ। প্রতিটি বিভাগই খুব ভালো লাগে যেমনÑ গল্প, ছড়া-কবিতা, হাসির বাক্স, কুরআনের আলো, হাদিসের আলো, উপন্যাস ইত্যাদি। এসব আয়োজন নিয়ে কিশোরকণ্ঠ যেন পাশে থাকে সবসময়।
আলমগীর হোসাইন, ইলিশা জংশন, ভোলা

আমার বন্ধু তুমি
মানুষ যেমন অপেক্ষা করে বিভিন্ন যানবাহনের জন্য, কখন আসবে আর কখন সে গন্তব্যস্থলে পৌঁছবে, তেমনি আমিও কিশোরকণ্ঠ নামের বন্ধুটির জন্য এমনভাবে পথ চেয়ে বসে থাকি আর ভাবি যে, কখন সামনের মাস আসবে আর আমি আমার বন্ধুটিকে পাবো। ভাবতে ভাবতে আমার বন্ধু আসার সময় হয়ে যায়, তবুও আমি এই বন্ধুকে পাই না। তখন চিন্তা করি যেকোনো মুহূর্তে আমার বন্ধুকে হাতে পাবো। আর যখন আমি তাকে পাই তখন সব কিছু ভুলে গিয়ে তাকে নিয়ে কিছুক্ষণ সময় কাটাই।
রাবেয়া ইসলাম মীম
এনায়েতপুর, সিরাজগঞ্জ

আদর্শ পত্রিকা
কিশোরকণ্ঠ একটি আদর্শ পত্রিকা। কারণ, কিশোরকণ্ঠের লেখা শুরু হয় কুরআনের আলো এবং হাদিসের আলো দিয়ে। আর একজন কিশোরকে তার জীবনকে সৎ-চরিত্রবান, মনুষ্যত্ববোধ, মানবতাবোধ, নৈতিকতাবোধ এবং আদর্শবান ব্যক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে কুরআন ও হাদিসের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। এবং তার জ্ঞান বিকাশের উত্তম মাধ্যম। তাই আমি কিশোরকণ্ঠকে আদর্শ পত্রিকা বলি।
আরিফ বিল্লাহ, শ্রীবরদী, শেরপুর

জ্ঞানের প্রদীপ
শুরুতেই কিশোরকণ্ঠ পরিবারকে আমার সালাম ও শুভেচ্ছা। আমার জীবনকে সার্বিক ও সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে কিশোরকণ্ঠ সর্বাত্মক ভূমিকা পালন করে। যখনই আমার মন খারাপ থাকে, ঠিক তখনই এই পত্রিকা আমার খেলার সাথি হয়ে আমার সামনে উপস্থিত হয়। এই পত্রিকার মাধ্যমে আমি অনেক কিছু জানতে পেরেছি, যা আমার শিক্ষাজীবনে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। কিশোরকণ্ঠের প্রতিটি বিভাগ জ্ঞানের আলো হিসেবে মানুষের জীবনে অন্যতম সঙ্গী হয়ে থাকে। কেননা, এই পত্রিকার অন্যতম উৎস যেমন, কুরআন ও হাদিসের আলোতে জীবন গড়া যায়। এটি অন্ধকার মনকে জ্বলন্ত প্রদীপ হয়ে আলো বয়ে আনে।
সাকিব আহমেদ, শহিদ অলি হাইস্কুল

আমার প্রিয় সাথি
মানুষ যাকে ভালোবাসে তাকে যদি কাছে পায় তাহলে তার মন আনন্দে ভরে ওঠে। তেমনি কিশোরকণ্ঠকে কাছে পেয়ে মনে হলো আমার ভালোবাসার পত্রিকাটি আমার কাছে এসে পৌঁছেছে। সত্যিই কিশোরকণ্ঠ আমার প্রিয় সাথি। আর কিশোরকণ্ঠ আমার সুখে-দুঃখে কাছে থাকবে এটাই আমার প্রত্যাশা। কিশোরকণ্ঠ আনন্দেরও মূল উৎস। সত্যিই কিশোরকণ্ঠ সত্যের পথে পথপ্রদর্শক। কুরআনের আলো, হাদিসের আলো, দুর্গম পথের যাত্রী আর বিভিন্ন উপন্যাস প্রত্যেক কিশোরকে সত্যের সৈনিক হতে প্রেরণা জোগায়।
কাইছার হামিদ, সাতকানিয়া, চট্টগ্রাম

প্রজ্ব¡লিত আলোর মশাল
সত্যিই কিশোরকণ্ঠ সে এক প্রজ্ব¡লিত আলোর মশাল। সীমাহীন জ্ঞানের ভান্ডার। কিশোরকণ্ঠের আছে চোখধাঁধানো রূপ আর মনকাড়া বিষয়, যা আমার মতো হাজার যুবকের মন জয় করে আসছে। কিশোরকণ্ঠ সত্যিই অতুলনীয়। এই পত্রিকাটি মানবচরিত্র উৎকর্ষ সাধনের জন্য অক্লান্ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে নভেম্বর ’১৫ সংখ্যাটির কথা না বললেই নয়। সব বিভাগই সুন্দর, চমৎকার ছিল। কিশোরকণ্ঠ আমাদের মতো যুবকদের পাশে আছে বলেই আজো আমরা কুরআন হাদিসের আলো থেকে শুরু করে সাহসী মানুষের অনুপ্রেরণা পাই।
মাইনউদ্দিন ফিরোজ, সুবর্ণচর, নোয়াখালী

জ্ঞানের মশাল
বর্তমান পৃথিবীতে জ্ঞানের প্রতিযোগিতা। যে যতো জ্ঞান লাভ করতে পারবে সে ততো প্রতিষ্ঠিত হতে পারবে। জ্ঞানের পৃথিবীতে জ্ঞান নিয়েই প্রতিযোগিতা হোক। আর সেই প্রতিযোগিতার মশাল হলো কিশোরকণ্ঠ। যার মধ্যে সব জ্ঞানে ভরপুর। জ্ঞানের প্রতিযোগিতায় প্রতিযোগী হতে হলে প্রয়োজন জ্ঞানের ব্যাংক। আর জ্ঞানের ব্যাংকের সন্ধান একান্তভাবে কিশোরকণ্ঠে পাওয়া যাবে। আপনার খেলা সম্পর্কে জ্ঞান প্রয়োজন, প্রকৃতি সম্পর্কে জ্ঞানের প্রয়োজন, কবিতা, গল্প, উপন্যাস, ভ্রমণ কাহিনী ইত্যাদি। যে সম্পর্কে আপনার জ্ঞানের প্রয়োজন এর সব কিছুর সন্ধান পাবেন কিশোরকণ্ঠে।
জুয়েল রানা, কালিগঞ্জ, ঝিনাইদহ

দিকনির্দেশনা
বাংলাদেশ ষড়ঋতুর দেশ। ঋতুর বিবর্তনে বাংলার প্রকৃতি সজ্জিত হয় নবরূপে। গ্রীষ্মের খড়তা, শরতের শুভ্রতা, হেমন্তের কোমলতা, এসবই ঋতুবৈচিত্র্য। প্রতিটি ঋতুই চমৎকার। আমার প্রাণপ্রিয় পত্রিকা কিশোরকণ্ঠও ঠিক তাই। প্রতি মাসে নবরূপে রূপায়িত হয়ে পৌঁছে যায় আধুনিক নামধারী জাহেলিয়াতের আঁধারঘেরা বাংলার প্রতিটি সমাজে তার আলোয় আলোকিত হয় গোটা সমাজ। দূরীভূত হয় জাহেলিয়াতের আঁধার। ঠিক এভাবেই কিশোরকণ্ঠ হয়ে উঠেছে হাজারো নবীন-তরুণের বন্ধু। কারো পথচলার সাথি, কারো পথনির্দেশক। দুর্বার গতিতে তোমার অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক।
এইচ এম মাহমুদ, মানিকগঞ্জ

মন ছুঁয়ে যায়
জ্ঞানের বিচিত্র সম্ভার আর আলোকিত মানুষ গড়ার বার্তা নিয়ে প্রত্যেক মাসে হাজির হয় প্রিয় কিশোরকণ্ঠ। বর্ণিল প্রচ্ছদ আর পরিশীলিত লেখনী নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত করতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে, যা আজ সময়ের দাবি। তাইতো কিশোরকণ্ঠ অপার ভালোবাসায় আর গভীর অনুভবে সবার মন ছুঁয়ে যায়।
মাসুম বিল্লাহ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

লেখকের প্রাথমিক স্তর
ছোটবেলায় স্বপ্ন দেখতাম আমি বড় হয়ে একজন লেখক হবো। দেশের তরে, দেশের কল্যাণে কাজ করবো। কিন্তু সেই মুহূর্তে মনের ভেতরে চিন্তা চলে আসতো আমি কেমন করে একজন লেখক হবো। আমি যদি কিছু লিখি সে লেখা কোথায় প্রকাশিত হবে? সেই ছেলেবেলায় একদিন দেখি আমার এক বড় ভাই কিশোরকণ্ঠ নামক একটি পুস্তিকা পড়ছে। আমি সেটা খুলে গল্প, হাসির বাক্স পড়তে লাগলাম। নিয়মিত পড়তে পড়তে কিশোরকণ্ঠপ্রেমিক পাঠক হয়ে পড়লাম। আমি বুঝতে পারলাম আমার মূল লক্ষ্যে পৌঁছানোর প্রাথমিক উপায় হলো কিশোরকণ্ঠ। কিশোরকণ্ঠের সাহায্যেই আমি আমার লেখা প্রকাশ করতে পারি আর আমি সেই লক্ষ্যেই কিশোরকণ্ঠকে প্রাথমিক স্তর মনে করে সামনের দিকে এগিয়ে চলেছি।
সুলাইমান হোসেন, কলারোয়া, সাতক্ষীরা

পথ চেয়ে থাকি
নতুন কিশোরকন্ঠ নভেম্বর ’১৫ হাতে পাওয়ার পরপরই মনটা কেমন জানি আনন্দে ভরে উঠলো। শুরুতেই হাসির বাক্স চোখের সামনে নিয়ে মনটাকে আরো আনন্দে ভরে দিলাম। এরপর অপেক্ষায় ছিলাম ডিসেম্বর মাসের সংখ্যাটির জন্য। কিন্তু ডিসেম্বর ১ তারিখেও হাতে এলো না। শুধু পথ চেয়ে বসে থাকি। অবশেষে ডিসেম্বর মাসের ১২ তারিখে হাতে এসে পৌঁছে। এ ছাড়াও গত সেপ্টেম্বর ’১৫ সংখ্যাটিও দেরিতে পাওয়ায় পাঠ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারিনি। তবুও বলছি আমার প্রিয় পত্রিকাটির সঙ্গে অভিমান করবো না। শুধু পথ চেয়ে থাকবো।
মনোয়ার হোসাইন, পশ্চিম নলডগি, লক্ষ্মীপুর

অন্যরকম আমেজ
কিশোরকণ্ঠের প্রতিটি সংখ্যাই ভালো লাগে, তবে কিছু কিছু সংখ্যা খুবই ভালো লাগে। তেমনই একটা সংখ্যা ছিল অক্টোবর মাসের কিশোরকণ্ঠটি। কেমন যেন একটা অন্যরকম আমেজ ছিল এর প্রতিটি পাতায়। জ্যৈষ্ঠ মাসে যেমন নানান প্রকার ফলফলাদি নিয়ে অন্যরকম খুশির আমেজ থাকে তেমনি এর সব বিভাগ নিয়ে এক অন্যরকম আমেজে পূর্ণ ছিল কিশোরকণ্ঠটি। সব বিভাগই ভালো লাগছিল, তবে আহসান হাবিব খানের ‘ভাইরাস’ নাটকটি সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে যাতে ফুটে উঠেছে বর্তমান ইয়াং জেনারেশনের চারিত্রিক চিত্র। আর সাবিনা সিদ্দিকী শিবার লেখা ভ্রমণ- এ জার্নি টু জাফলং পড়ে মনে হচ্ছিল নিজেই বুঝি জাফলং থেকে ঘুরে এলাম। সব মিলিয়ে খুব দারুণ হয়েছে অক্টোবর ’১৫ সংখ্যাটি। সব সংখ্যা যেন ওরকম আনন্দদায়ক হয় সে কামনাই করি।
পারভেজ মোশাররফ
পল্লবী, দুয়ারী পাড়া, ঢাকা

SHARE

Leave a Reply