Home কুরআন ও হাদিসের আলো হাদীসের আলো হাদিসের আলো -জান্নাতের প্রজাপতি

হাদিসের আলো -জান্নাতের প্রজাপতি

কাজের মেয়ে ফুলী। দেখতে ভারি মিষ্টি। তার নাম ফুলী না হয়ে ‘ফুল’ হলেই বেশ মানাতো। হয়তো গরিব ঘরে জন্ম বলেই তা আর হয়নি।
ফুলী কাজ করে শাফীদের বাসায়। বয়স আর কতইবা হবে। নয় কি দশ! তবুও তাকে দিন-রাত প্রচুর খাটতে হয়। শাফী দীর্ঘ দিন ধরেই লক্ষ করছে, তাদের পরিবারে ফুলী বেশ কষ্টেই আছে। পান থেকে চুন খসলেই শাফীর বাবা-মায়ের হাতে নির্মম শাস্তির মুখোমুখি হতে হয় তাকে। এসব দেখে শাফীর মনে প্রশ্ন জাগে, ফুলী কি মানুষই নয়?
একবার শাফীরা তাদের নিজেদের গাড়িতে পারিবারিক ভ্রমণে বের হয়েছিল। ফুলীও ছিল তাদের সাথে। পথে একটি রেস্টুরেন্টের সামনে এসে গাড়ি থামল। নেমে পড়ল সবাই। ফুলীও চলল সবার পেছনে পেছনে। কিন্তু শাফীর বাবা হঠাৎ গর্জে উঠে বললেন, ‘এই! তুই কই যাচ্ছিস? যা, গাড়িতে বসে থাক্ত। ভেতরটা মোচড় দিয়ে উঠল শাফীর। কিন্তু সেদিন বাবাকে কিছুই বলতে পারল না সে। তবে ভেতরে ভেতরে সে প্রচন্ড প্রতিবাদী হয়ে উঠল।
সে জানে, ফুলী তার মতোই একটি শিশু।
শাফী পরিকল্পনা করতে লাগল, কিভাবে ফুলীকে বাঁচানো যায়। সে-কি তাকে পালাতে সাহায্য করবে? না, পালিয়ে সে যাবে কোথায়? হ্যাঁ, এবার সে পথ পেয়ে গেছে! স্কুলের ধর্মীয় শিক্ষকের কাছ থেকে সে শিশু-অধিকার সম্পর্কে কিছু হাদিস শিখে নিলো।
একদিন বাবা ও মাকে সে বলল, তোমরা কি নিজেদেরকে রাসূল সা:-এর উম্মত মনে করো? জবাব এলো, কেন নয়? ছেলের প্রশ্নে অনেকটা তাজ্জব বনে গেল দু’জনই। বলল, এ ধরনের প্রশ্ন তুমি কেন করলে? শাফী বলল, সাহাবী ইবনে আব্বাস থেকে বর্ণিত একটি হাদিস শোনো। রাসূল সা: বলেছেন, “যে ব্যক্তি ছোটদের স্নেহ করে না এবং বড়দের সম্মান করে না, সে আমাদের দলভুক্ত নয়।” (তিরমিজি)। তোমরা কি ফুলীকে স্নেহ করো? রাসূল সা: একবার তার এক ইহুদি কাজের ছেলে অসুস্থ হলে, তাকে দেখতে গিয়ে আদর করেছিলেন। ফুলী অসুস্থ হলে তোমরা কি তার সেবা করো? এক হাদিসে নবী সা: শিশুদেরকে জান্নাতের প্রজাপতি বলেছেন। কিন্তু তোমরা তো ফুলী-প্রজাপতিকে কষ্ট দিচ্ছো!
ছেলের প্রতিবাদী কণ্ঠ শুনে লজ্জায় বাকরুদ্ধ হয়ে গেলেন তারা দু’জন। মা শাফীকে বুকে জড়িয়ে বললেন, না, আজ থেকে ফুলী আমাদেরই মেয়ে!
শাফী আনন্দে আত্মহারা হয়ে ফুলীকে ডাকতে লাগল, ফুলী…এই ফুলী…! তার মনে হলো সে বিরাট একটা ভালো কাজ করতে পেরেছে আজকে।

বিলাল হোসাইন নূরী

SHARE

Leave a Reply