Home প্রচ্ছদ রচনা আমাদের জাতীয় জীবনে পহেলা বৈশাখ

আমাদের জাতীয় জীবনে পহেলা বৈশাখ

অধ্যাপিকা রহিমা আক্তার#

বছর ঘুরে ফাল্গুনের হালকা গরমে যখন শীত বিদায় নিতে শুরু করে এরপরই চৈত্রের কালবৈশাখী এসে ধুলাবালি সব উড়িয়ে প্রকৃতিকে সাফ-সোতর করে নতুন দিনের যাত্রা শুরুর প্রস্তুতি নেয়। নতুনের আহ্বান নিয়ে আসে বৈশাখ। আমাদের আর্থসামাজিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও নীতি-নৈতিকতার ইতিহাসের পাতায় তাই দেখতে পাই পহেলা বৈশাখ বা বাংলা নববর্ষের রয়েছে ব্যাপক প্রভাব।
মানুষ তার প্রয়োজনে সময় ও কাল গণনার এই যে রীতি আবিষ্কার করে নিয়েছে এটি মানবজাতির আদিম কালের প্রবৃত্তি এবং মানুষের সহজাত সংস্কৃতির অংশ। পৃথিবীর দেশে দেশে জাতিতে জাতিতে নানা সন গণনার যে ঐতিহ্য গড়ে উঠেছে, এর পেছনেও রয়েছে স্বয়ং আল্লাহপাকের বিশ্বজনীন নিয়ম। পবিত্র কালামে পাকে আল্লাহ জালে শানুহু ঘোষণা করেন, ‘আকাশ এবং পৃথিবী সৃষ্টির প্রথম দিন থেকেই বছর গণনার মাস বারোটি।’
কুরআনের সে শাশ্বত ঘোষণার আলোকেই পৃথিবীর দেশে দেশে সন এবং বছর গণনার নানা পন্থা আবিষ্কৃত হয়েছে। আর পৃথিবীতে যত দেশে যত সন আছে সবগুলোরই ১২ মাসে বছর। অবশ্য সৌরমাসভিত্তিক এবং চান্দ্রমাসভিত্তিক গণনার ভিন্নতায় এসব সনের পরিধিগত বেশ-কমও রয়েছে।
সন গণনার সে বিশ্বজনীন সংস্কৃতির পথ ধরেই আমাদের বাংলাদেশেও নানা যুগে নানা সন প্রবর্তিত হয়েছে। প্রাচীন শক সনের পথ ধরে এখানে প্রবর্তিত হয়েছে সম্বৎ, মঘী সন, নেপাল সম্বৎ, ত্রিপুরাব্দ, লক্ষণ সম্বৎ, পরগনাতি সন, শাহুর সন, হিজরি সন, ঈসায়ী বা খ্রিষ্টীয় সন, বাংলা সন, জালালি সন ইত্যাদি। এর কোন কোনটা সৌরবর্ষে কোন কোনটা চান্দ্রবর্ষে আবার কোন কোনটা সৌর-চান্দ্রবর্ষে গণনা করা হয়ে থাকে।
বাংলা সন প্রবর্তিত হয়েছে সম্রাট আকবরের (১৫৫৬-১৬০৫) আমলে। সম্রাট আকবরের সিংহাসন আরোহণের বছর ৯৬৩ হিজরি (১৫৫৬ ঈ:) সনকে শুরুর বছর ধরে ফসলি সন নামে যে সন প্রবর্তন করা হয় কালে তাই বাংলাদেশে বাংলা সন নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। মূলত জমির খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে এ সন প্রবর্তন করা হয়। এর আগে এ দেশের দেশীয় সন হিসেবে শকাব্দের প্রচলন থাকলেও রাষ্ট্রীয়ভাবে হিজরি সন চালু ছিল গোটা ভারতবর্ষে। আর এ কারণেই হিজরি সনকে ভিত্তি বছর ধরে এ বাংলা সনের প্রবর্তন করা হয়। অন্য দিকে এ সনের মাসের নামগুলো নেয়া হয় শকাব্দ থেকে। এভাবে দেখা যায় সনটি প্রবর্তনে এখানকার প্রধান দু’টি ধর্ম অর্থাৎ হিন্দু এবং ইসলাম উভয় ধর্মের একটি প্রভাব সনটির ওপর পড়েছে। এক্ষেত্রে হিজরি সনকে যদি আমরা বাংলা সনের মায়ের মর্যাদা দেই তাহলে শকাব্দকে দিতে হয় মাসীর মর্যাদা। বাংলা সন ছাড়াও প্রায় সকল সনের ক্ষেত্রেই এ ধর্মীয় প্রভাবের একটি দিক থাকে। বাংলা সনের ক্ষেত্রে হিন্দু-মুসলিমের এ মিলিত স্রোত সনটিকে একটি অসাম্প্রদায়িক অবস্থানে এনে দাঁড় করিয়েছে যা উদার ইসলামি সংস্কৃতির পাশাপাশি বাংলাদেশী সংস্কৃতির সাথেও পুরোপুরি সামঞ্জস্যশীল।
আগেই বলা হয়েছে যে, কৃষকের জমির খাজনা আদায়ের সুবিধার্থেই এ সন প্রবর্তন করা হয়েছিল। তাই সন প্রবর্তনের সময় থেকেই সাধারণ মানুষের সাথে এ সনের পরিচয় ও সম্পর্ক গড়ে ওঠে। আজও গ্রামের নিরক্ষর সাধারণ মানুষের কাছে যদি তারিখ জানতে চাওয়া হয় তাহলে তারা হাতের আঙুলে গুনে আজ বাংলা সনের কোন মাসের কত তারিখ তা বলে দেবে। গ্রামের মানুষের কাছে বাংলা সনের পর দ্বিতীয় গুরুত্ব হচ্ছে হিজরি সন বা চান্দ্র মাসের হিসাব। খ্রিষ্টীয় সন গ্রাম্য মানুষের কাছে আজও ব্যাপক হারে স্থান করে নিতে পারেনি। বাংলা সন প্রবর্তনের বছর থেকেই জমির খাজনা পরিশোধ করা হচ্ছে এ সনের হিসাবে এবং তা আজ পর্যন্ত এ নিয়মেই চলছে।
সমাজের সর্বনিম্ন স্তর পর্যন্ত বাংলা সন ব্যবহৃত হবার কারণে মানুষের প্রতিদিনের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনার সাথী হয়েছে এ সনটি। এ কারণেই দেখা যায় বাংলা সনের প্রথম দিনটি অর্থাৎ পহেলা বৈশাখকে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদযাপন করা হয়ে থাকে।
বছরের প্রথম দিনটি সুন্দরভাবে কাটাতে পারলে সারা বছর তার এভাবেই কাটবে মানুষ এমনটিই মনে করে। একজন মানুষ যাতে সারা বছর তার নিজের এবং পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে পরিচ্ছন্ন জীবন যাপন করতে পারে সে জন্য পহেলা বৈশাখে নেয়া হয় বিশেষ আয়োজন। তাই পহেলা বৈশাখের দিনে সবাই সকালে ঘুম থেকে ওঠার চেষ্টা করে। কৃষক পরিবারের মেয়েরা ঘরের মাটির ভিটা এবং দুয়ার লেপে-পোঁছে সুন্দর করে রাখে। হিন্দু পরিবারে কাদামাটির সাথে গোবর মিশিয়ে লেপা-পোঁছা করা হয় এবং তুলসী গাছের গোড়ায় ফুল রাখা হয়। মুসলমান পরিবারের লোকেরা খুব ভোরে ঘুম থেকে ওঠে হাত-মুখ ধোয় এবং অজু সেরে নামাজ পড়ার পর কুরআন তেলাওয়াত করে। কৃষক তার কৃষির সরঞ্জাম লাঙল-জোয়াল-মই ইত্যাদি ধোয়। গরুকে গোসল করায় এবং ভালো খাবার দেয়। গরুর গোশালা পরিষ্কার করে। মাছি যাতে গরুর কাছে না ভিড়তে পারে সে জন্য প্রয়োজনে ধোঁয়া দেয়। ছেলেমেয়ে যাতে নিজ নিজ কাজ যথাসময়ে এবং যথানিয়মে করে সে দিকে অভিভাবকগণ একটু আলাদা নজর রাখেন। ধূপ-দুরস্ত পরিষ্কার পোশাক পরে একে এদিক সেদিক বেড়াতে যায়। মিথ্যা বলা বা কাউকে ঠকানো থেকে বিরত থাকে। ইচ্ছে করেই এদিন মানুষ কারও বাড়ির অতিথি হয় না। মনে করা হয় তাহলে সারা বছরই পরের বাড়িতে বেড়াতে বেড়াতে কাটবে। মানুষ একে অন্যের সাথে আচার আচরণে সতর্কতা অবলম্বন করে যেন বছরের প্রথম দিনে কোন অনাকাক্সিক্ষত কিছু না হয়।
এ উপলক্ষে কোন কোন সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান মিছিল, শোভাযাত্রা, বর্ষবরণ ইত্যাদি অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। নিম্নবিত্ত শ্রেণীর খেটে খাওয়া মানুষজনও কর্মছুটির সুযোগে এদিন নানা রঙের পোশাক পরে ব্যাপক হারে বাজারে, মেলায় ও পার্কগুলোতে ভিড় জমায়।
পহেলা বৈশাখের সংস্কৃতির একটি দিক হলো এ দিনের খাওয়া দাওয়া। আমরা যারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করে নববর্ষের এ দিনটি বহুবার গ্রামে পালন করার সুযোগ পেয়েছি তারা দেখেছি এ দিন প্রত্যেকে তার নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী যতটা সম্ভব ভালো খাবারের আয়োজন করে।
পারতপক্ষে এদিন আগের দিনের বাসি খাবার যাতে ঘরে না থাকে সেদিকে সকলেই একটু সতর্ক দৃষ্টি রাখে কারণ বছরের প্রথম দিনটি যদি বাসি-পান্তা খাবার দিয়ে শুরু হয় তাহলে তার সারা বছরটিই হয়তো এ রকম খারাপ খাবার খেয়ে কাটাতে হবে। এ জন্যই প্রত্যেক পরিবার সাধ্যমতো ভালো খাবার পরিবেশনের চেষ্টা করে। সকাল সকাল গরম ভাতের সাথে বিশেষ করে নানা জাতের শাক এবং মাছ-গোশত খেয়ে থাকে। কিন্তু গ্রাম থেকে শহরে এসে এখন যা দেখছি তা কিন্তু মোটেও গ্রামের সংস্কৃতি নয়। শহরে বিশেষ করে রাজধানী শহর ঢাকার রমনা অশ্বত্থমূলে বা কোন কোন হোটেলে পান্তাভাত খাওয়ার যে দৃশ্য আমরা দেখি তা আমাদের সংস্কৃতি নয়। গ্রামে যেখানে ওই দিন খুব সতর্কতার সাথে পান্তাভাত পরিহার করে চলা হয় সেখানে শহুরে মেকি সংস্কৃতিজীবীরা ওইদিন পান্তাভাত খাওয়ার হেতুটি কোথা থেকে আবিষ্কার করলেন। গ্রামে ওই দিন গরম ভাত এবং সাধ্যমত মাছ বা গোশত খাওয়া হয় এ আশায় যেন সারা বছর গরম ভাত এবং ভালো তরকারি চাষার ভাগ্যে জোটে। পহেলা বৈশাখে পান্তাভাত খাওয়া কোনো কালেই আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির অংশ ছিলো না এবং আজও নেই। এটি শহুরে ‘পেঁচক সংস্কৃতির’ একটি উদ্ভট আবিষ্কার। গ্রামের লোকেরা পহেলা বৈশাখে কখনোই পান্তা খাওয়ায় অভ্যস্ত নয়। তবে গ্রামে আগে আগে ‘কাঞ্জি’ পেতে এবং ‘পঁছওয়া’ নামক এক ধরনের খাবার চাল এবং ভাত থেকে তৈরি করে খাওয়ার রেওয়াজ ছিলো। এটি পহেলা বৈশাখকেন্দ্রিক কোন বিষয় ছিলো না। বছরের যে কোন দিন বা সময় তারা এটি তৈরি করতো এবং অনেকটা পথ্য ভেবে বা শখের বশে খেতো। কিন্তু এখন পহেলা বৈশাখে পান্তাভাত খাওয়া একটি রেওয়াজে পরিণত করা হয়েছে। কাজেই কোন রকম বাছ বিচার না করেই ঢাকাইয়া এ কুসংস্কার এবং প্রবিষ্ট রেওয়াজ থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। আমাদের উচিত হবে এ দেশের শেকড় থেকে উৎসারিত সত্যিকারের সংস্কৃতিকে জানা ও চর্চা করা।
বছরের শুরুর দিন হিসেবে পহেলা বৈশাখ দেশের বিভিন্ন যায়গায় মেলা বসে থাকে যাকে বলা হয় বৈশাখীমেলা। মেলায় বিশেষ করে হাতে তৈরি কুঠির শিল্পের নানা জিনিস যেমন- চেয়ার, টেবিল, চৌপায়া, বেলাইন, পিঁড়ি, রেহেল, লাঠি, ইঁদুর ধরার ফাঁদ, নারিকেল কুড়ানি, গাঁইল, চেগাইট, খড়ম, পাউডি, ডালঘুটনি, ঘুড়ির নাটাই, মাটির তৈরি রকমারি জিনিস, খেলনা, মুড়ি, খৈ, মন্ডা, মিঠাই, জিলাপি, বাতাসা, তিলা ইত্যাদি খাবার দ্রব্য, ঘুড়ি, বাঁশি, পুতুল, পাখি, ইত্যাদি বেচা-কেনার পাশাপাশি এবং হাট-বাজারে বেচা-কেনার জিনিসপত্রও বিক্রি হয়। এসব মেলার মাধ্যমে মূলত দেশীয় দ্রব্যাদি বেচা-কেনার কারণে দেশীয় শিল্প বিশেষ করে কুঠির শিল্পের ব্যাপক প্রচার ও প্রসার হয় এবং দেশীয় চেতনা জাগ্রত হয়। এসব মেলায় চরকগাছ, নাচ, গান, নাগরদোলা, পুতুল নাচ, সার্কাস ইত্যাদির আয়োজনও হয়ে থাকে।
ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসার হিসাব রাখেন খাতায়। ব্যবসা চালাতে গিয়ে অনেক সময় বাকিতে মালামাল বিক্রয় করতে হয়। কিন্তু এটি সকলেরই জানা যে, পহেলা বৈশাখের আগে যার কাছে যা পাওনা আছে তা পরিশোধ করে দিতে হবে। কেননা ব্যবসায়ী পুরনো খাতার বকেয়া নতুন খাতায় তুলতে চান না। বছরের প্রথম দিন থেকে খোলা হয় নতুন খাতা যাকে বলে হালখাতা। আর এ খাতাখোলার দিনই আয়োজন করা হয় হালখাতা নামক অনুষ্ঠানের।
এ ধরনের অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ের সাথে জড়িত লোকজন সবাইকে দাওয়াত দেয়া হয়। যাদের বকেয়া আছে তারা বকেয়া পরিশোধ করেন আর যাদের বকেয়া নাই তারাও কুশল বিনিময় করতে আসেন। এ ধরনের অনুষ্ঠানে আগতদের মিষ্টিমুখ করা হয়।
বাংলাদেশে বাংলা মাসের হিসেবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চলার কারণে অনেক নতুন ব্যবসায়ী তার ব্যবসা শুরুর দিন হিসেবে বেছে নেন পহেলা বৈশাখকে। এ দিন ওই দোকানে আয়োজন করা হয় মিলাদের। মিলাদ মানে হলো নবীর জন্মবৃত্তান্ত আলোচনা। যেহেতু নবী নিজে একজন ব্যবসায়ী ছিলেন তাই ব্যবসা শুরুর দিন নবীর জন্মবৃত্তান্ত আলোচনার মাধ্যমে পবিত্র জ্ঞানে ব্যবসা শুরুর জন্যই আয়োজন করা হয় মিলাদ অনুষ্ঠানের। এ ধরনের অনুষ্ঠানে নবীর জন্মবৃত্তান্ত আলোচনার পাশাপাশি তাঁর সিরাত বা জীবনীও আলোচনা করা হয় এবং মিলাদের আলোচনার পর দোয়া ও মুনাজাত করে মিষ্টি বিতরণের মাধ্যমে শেষ হয়। পহেলা বৈশাখে এ ধরনের অনুষ্ঠান একটি পবিত্রতার আমেজ এনে দেয়।
বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে গত কয়েক বছর ধরে যুক্ত হয়েছে একটি নতুন ধারা আর তাহলো বইমেলা। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে নানা স্থানে বিভিন্ন ক্লাব বা পাঠাগারের উদ্যোগে আয়োজন করা হয় বইমেলার। এ ছাড়া দেশের প্রধানমন্ত্রী নববর্ষ উপলক্ষে প্রিয়জনকে বই উপহার দেয়ার যে আহ্বান জানিয়েছেন তার দ্বারাও লোকেরা অনুপ্রাণিত হয়েছে। ফলে ওই দিন বই কেনা এবং প্রিয়জনকে বই উপহার দেয়া একটি রীতিতে পরিণত হতে চলেছে। নতুন বছর একজন লোকের ভালো যাক এটা তার বন্ধু-বান্ধব, শুভাকাক্সক্ষীরা অবশ্যই কামনা করে। আর এ শুভ কামনা আমরা লক্ষ্য করি নববর্ষের শুভেচ্ছা কার্ড বিতরণের মাধ্যমে। নববর্ষের আরও আগেই দোকান থেকে বিষয়ভিত্তিক শুভেচ্ছা কার্ড সংগ্রহ করে আপনজনের ঠিকানায় ডাকযোগে পাঠানো হয়। দেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বড় বড় রাজনৈতিক দলগুলো জনগণকে শুভেচ্ছা বাণী দিয়ে থাকেন যা পত্রপত্রিকায় এবং রেডিও- টেলিভিশনে প্রচার করা হয়। আধুনিক কালে মোবাইল ফোনে এসএমসের মাধ্যমে এবং ইন্টারনেটে ই-মেলের মাধ্যমে এবং কেউ কেউ সরাসরি ফোন করেও নববর্ষের শুভেচ্ছা জানায়।
পহেলা বৈশাখ উদযাপনে রাষ্ট্রীয়ভাবে ওই দিন সরকারি ছুটি থাকে। ফলে লোকেরা ছুটির দিন কাটানোর আমেজ নিয়ে ঘর থেকে বের হয়। আবার রাষ্ট্রীয় বেতার ও টেলিভিশনে এবং বেসরকারি চ্যানেলগুলো ও পত্রপত্রিকায় ওই দিন নববর্ষ উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। পত্রপত্রিকায় ক্রোড়পত্র প্রকাশের সুবাদে লেখক-কবি-সাহিত্যিকগণ নানা নিবন্ধ, প্রবন্ধ, কবিতা ইত্যাদি রচনা করে থাকেন। বিশেষ সাময়িকপত্রও প্রকাশিত হয় এ উপলক্ষে। বেতার-টিভিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানের মধ্যে টকশো, আলোচনা, গান, আবৃত্তি, সরেজমিন প্রতিবেদন ইত্যাদি নানা মাত্রার আয়োজন থাকে।
বাংলা সন প্রবর্তনই করা হয়েছিল জমির খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে। একটি কথা বলে রাখা ভালো আমাদের প্রাচীন রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় সরকার চলতো কৃষকের দেয়া খাজনার টাকায়। আজকাল আয়কর, সম্পদকর, নানা রকম শুল্ক, উন্নয়ন কর, শিল্প, প্রাকৃতিক সম্পদ, বিদ্যুৎ, টেলিফোন ইত্যাদি নানা খাত থেকে সরকারের রাজস্ব আদায় হয়ে থাকলেও জমির খাজনা কিন্তু এখনো জারি আছে।
প্রাচীনকালে যেহেতু মোটামুটি জমির খাজনার ওপরই জমিদার, সুবাহদার, সরকার সবাইকে নির্ভর করতে হতো তাই খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে বছরের প্রথম দিন আয়োজন করা হতো পুইনাহ নামক অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানে রায়ত বা প্রজা রাজাকে তার প্রাপ্য খাজনা পরিশোধ করে দিত। কৃষিভিত্তিক বাংলাদেশের এ পুইনাও এখন পরিবর্তিত হয়েছে। এখন নানা ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান তাদের পাওনা আদায়ের জন্য হালখাতা অনুষ্ঠানের মতো পুইনাহ অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে। এ অনুষ্ঠানেও মিষ্টি বিতরণের এবং ক্ষেত্রবিশেষে আরও ভালো খাবার-দাবারের আয়োজন করা হয়ে থাকে। এখন পুইনার স্থান দখল করে নিয়েছে করমেলা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আয়োজনে ঢাকায় এবং সারাদেশে এখন সেপ্টেম্বর মাসে হয় করমেলা।
প্রাচীনকালে পশ্চিম ভারতের ওয়াজিরাবাদে ‘বৈশাখী’ নামে একটি উৎসব আয়োজন করা হতো মূলত নতুন ফসল ঘরে তোলাকে কেন্দ্র করে। এতে হিন্দু, মুসলমান, শিখ সবাই অংশ নিতো। দাক্ষিণাত্যে এখনো এ উৎসব জারি আছে। আমাদের বাংলাদেশেও বৈশাখ মাসে বোরো ফসলের ধান ঘরে তোলে কৃষক জুমা মসজিদে ক্ষীর বিতরণের মাধ্যমে এ অনুষ্ঠান পালন করে থাকে। বৈশাখ মাসের পুরো মাসই এ ব্রত পালন করা হয় তবে বাংলাদেশে এর কোন আলাদা নাম নেই।
বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামের বসবাসকারী পাহাড়ি জনগোষ্ঠী পহেলা বৈশাখে ‘বৈশাবী উৎসব’ নামে একটি অনুষ্ঠান পালন করে থাকে। কাদা ছোড়াছুড়ি, পানি ছিটানো এবং নানা নৃত্য, গান ইত্যাদির মাধ্যমে নারী-পুরুষ সবাই এ উৎসবে মেতে ওঠে।
চৈত্রের খাঁখাঁ রোদে মাঠ-ঘাট যখন চৌচির তখন প্রকৃতি কামনা করে বৃষ্টি। চৈত্রের শেষে পহেলা বৈশাখে তাই শিশুরা মেতে ওঠে বেঙ্গা-বেঙ্গির বিয়ে খেলায়। কারণ এর মাধ্যমে খুদে পুকুর খনন করে এর চার কোনায় চারটি ছোট কলাগাছ গেঁড়ে খুদে পুকুরে পানি দিয়ে তাতে বেঙ বেঁধে রেখে গীত গাওয়া হয়। গীতের মাধ্যমে কামনা করা হয় বৃষ্টি। ‘বেঙ্গাবেঙ্গির বিয়ে-গো, মাথায় সিন্দুর দিয়ে-গো। ‘আল্লাহ মেঘ দেয়, ছায়া দে, পানি দে-রে তুই। আল্লাহ মেঘ দেয়।
বাংলাদেশের রাজশাহী এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ এলাকায় এক ধরনের গান পহেলা বৈশাখে এবং সারা বৈশাখ মাসজুড়ে গাওয়া হয় তার নাম গম্ভীরা। বিশেষত রাত্রি বেলায় গাওয়া এ গানে নানা-নাতির চরিত্রে অথবা কোন কোন সময় মূল গায়েন এবং কয়েকজন দোহার নিয়ে অংশ নিয়ে থাকে। সারা বছরের ভালো কাজের প্রশংসা এবং মন্দ কাজের সমালোচনা অর্থাৎ সামাজিক আত্মসমালোচনার এক সুন্দর অনুষ্ঠান এটি। তা কোন উচ্চপদস্থ ব্যক্তিরও হতে পারে বা কোন পরিবার বা প্রতিষ্ঠানেরও হতে পারে। অনেক সময় শাসকদের মন্দ কাজের সমালোচনা করার কারণে গম্ভীরা শিল্পীরা হেনস্তার শিকারও হয়ে থাকেন। কিন্তু একটি আত্মসচেতন জাতি হিসাবে নিজেদের গড়ে তোলার লক্ষ্যে গম্ভীরা গান সারাদেশেই প্রচলন হওয়া উচিত। এর মাধ্যমে গোটা জাতি তার আত্মসমালোচনা করতে পারবে যা হবে সুস্থ জাতি গঠনে সহায়ক।
শৌর্য-বীর্য বা শক্তিমত্তা পরীক্ষার জন্য কুস্তিখেলা একটি প্রাচীন খেলা। পৃথিবীর অনেক দেশেই এ খেলা আছে। আমাদের দেশেও কুস্তি খেলা হয়।
কিন্তু পহেলা বৈশাখ উদযাপনের অংশ হিসেবে চট্টগ্রামে প্রাচীনকাল থেকেই একধরনের কুস্তি খেলা হয় যাকে বলে বলী খেলা। প্রধানত বৈশাখ মাসের প্রথম দিনে এটি হয়ে থাকলেও খেলাটি সারা বৈশাখ মাসের যে কোন দিনও হতে পারে। চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে আয়োজিত এ বলী খেলা পরবর্তীতে ‘জব্বারের বলীখেলা’ নামে নামকরণ হয়। পহেলা বৈশাখ উদযাপনে এ খেলাও জাতীয় পর্যায়ে একটি আলোড়ন তুলে থাকে। এ ছাড়াও পহেলা বৈশাখে ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল, কাবাডি, চারঘর‌্যা, ছি ইত্যাদি খেলাও হয়ে থাকে।
গরু দিয়ে হাল চাষ করা কৃষকের কাজ। কৃষিভিত্তিক সমাজে তাই গরু এবং কৃষকের মধ্যে রয়েছে একটি সখ্য। আর এর ওপর ভিত্তি করেই কৃষিভিত্তিক কৌমে গড়ে উঠেছে এক ধরনের খেলা যার মাধ্যমে কৃষক তার লাঙল ও মই নিয়ে অংশ নেন। একজন ভালো কৃষক ভালো হাল-চাষ করবে এটাই স্বাভাবিক। আবার জমি চাষ করার পর জমিতে মই দেয়াও একটি কাজ। এই চাষ করা এবং মই দেয়ার দক্ষতা কে কতটা রপ্ত করলো তারও একটা প্রতিযোগিতা থাকলে কৃষিভিত্তিক সমাজের চাষারা চাষাবাদে আরও দক্ষ হবেন। এ আশাকে সামনে রেখেই মইদৌড় এবং হালদৌড়ের প্রবর্তন। একজোড়া গরুকে সুন্দর করে সাজিয়ে লাঙল বা মই জুড়ে দিয়ে লাঙল দৌড় এবং মইদৌড় খেলা হয়ে থাকে। এটি পহেলা বৈশাখে অনুষ্ঠিত বৈশাখীমেলার পাশের কোন মাঠে বা বৈশাখ মাসের অন্য কোন দিন কোন বড় জমিতে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এর মাধ্যমেও কৃষক আনন্দ উপভোগ করে থাকেন। জমির খাজনা বাংলা মাসের হিসেবে কয়েক শ’ বছর ধরে চালু আছে। এ ব্যবস্থাকে বাতিল করা যাবে না। জমির খাজনা আদায়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে অবস্থিত তহসিল অফিসের নাম পরিবর্তন এবং তহসিলদারের পদবি পরিবর্তন আমাদের সনকেন্দ্রিক ঐতিহ্যকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।
একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশের অধিবাসী হিসেবে আমরা এখন আমাদের আত্মপরিচয় ও সংস্কৃতিকে জানা ও চর্চা করা দরকার। বাংলা সন, পহেলা বৈশাখ আমাদের জীবনে জাগরণের এক মন্ত্র। একে নিয়ে ইদানীং ষড়যন্ত্র চলছে। কতিপয় লোক নববর্ষ পালনের নামে এমন সব উদ্ভট জীব জন্তুর ছবি নিয়ে শোভাযাত্রা বের করে যা আমাদের দেশের সামগ্রিক জনসমষ্টির সংস্কৃতির কোন পরিচয় বহন করে না। এগুলো সম্বন্ধে আমাদের আরও জানতে হবে এবং সতর্ক হতে হবে। পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে নিষ্কলুষ অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে আমরা দেশের সংস্কৃতির লালনের পাশাপাশি জাতীয়তাবাদী চেতনাকে করতে পারি দৃঢ়। সরকারের উচিত হবে সুস্থ সংস্কৃতির বিকাশে ভালো অনুষ্ঠানগুলো পালনে পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া। বাংলাদেশের যে কোন বিষয়ে যারা ভালো করে, ভালো অবদান রাখে তাদেরকে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে পুরস্কৃত করা যায়।

SHARE

Leave a Reply