Home কুরআন ও হাদিসের আলো বাংলা বর্ষবরণে ফুটে উঠুক জাতিসত্তার পরিচয়

বাংলা বর্ষবরণে ফুটে উঠুক জাতিসত্তার পরিচয়

রাসূল (সা) বলেছেন, যে ব্যক্তি যাকে অনুসরণ করবে সে তার দলভুক্ত হবে।

বন্ধুরা,
আজ বাংলা নববর্ষের মাস আমাদের কাছে এসে হাজির। বর্ষবরণের ধারা প্রাচীন হলেও সাম্প্রতিক সময়ের বাংলা নববর্ষ বরণে নতুন নতুন নানা উপসর্গ এসে যোগ হয়েছে। অর্থহীন অনেক কিছুর নতুন সংযোজন আজ বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠানকে চিন্তাশীল সচেতন সমাজের কাছে নতুনভাবে ভাবনার বিষয়ে পরিণত করেছে। নাচ-গান, আনন্দ বিনোদন তো হতেই পারে কিন্তু তা হওয়া উচিত নিজস্ব জাতিসত্তার পরিচয়বাহী। জাতির অধিকাংশ মানুষের বিশ্বাস, মূল্যবোধ ও চাহিদার আলোকে। তা না হয়ে অন্য কোন জাতির ক্রিয়াকর্মকে নিজেদের হাজার বছরের বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা নিছক বাতুলতা ছাড়া আর কী? বাংলা নববর্ষে এই বাংলাকে সুন্দর, দুর্নীতিমুক্ত সন্ত্রাস, ধূমপান, ইভটিজিং, দারিদ্র্য, শিক্ষা, এইডস ইত্যাদি মুক্ত করার এক সুন্দর পরিকল্পনা হতে পারে।
বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে আন্তর্জাতিক মানের করে গড়ে তোলার জন্য নানা পরিকল্পনা হতে পারে। প্রতিটি বাংলা ভাষাভাষী মানুষকে শুদ্ধ বাংলা ভাষায় কথ্য ও লিখিত রূপে উন্নয়নের প্রশিক্ষণ দেয়া যেতে পারে।
বন্ধুরা,
বাংলা ভাষাভাষী হিসেবে আমাদের নিজস্ব স্বকীয়তাবোধ খুবই জরুরি। বাংলাদেশীদের নিজস্ব ধর্মবিশ্বাস, ঐতিহ্য, জীবনাচারের ওপর ভিত্তি করে অনুষ্ঠানমালা সাজানো যেতে পারে নচেৎ তা হবে জোর করে চাপিয়ে দেয়া অস্বাস্থ্যকর রুচিহীন কর্মকান্ড। উপরন্তু নানান ঘৃণ্য, অরুচিকর ক্রিয়াকর্মকে নিজেদের বলে গ্রহণ করাকে রাসূল (সা) চরম ভাষায় অনুৎসাহিত করেছেন। তাই বন্ধুরা, এসো আমরা প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা)-এর আদর্শ মেনে চলি এবং তারই সাথে পরকালীন জীবন অতিবাহিত করি, আল্লাহ আমাদের তৌফিক দিনÑ আমিন।

গ্রন্থনায় : মিজানুর রহমান

SHARE

Leave a Reply