Home মুখোমুখি ভালো রেজাল্ট সাফল্যের পথ সহজ করে-আবুল আসাদ

ভালো রেজাল্ট সাফল্যের পথ সহজ করে-আবুল আসাদ

বন্ধুরা, মুখোমুখিতে এই সংখ্যায় তোমাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন সাইমুম সিরিজের অ্যাডভেঞ্চার ও রোমাঞ্চকর চরিত্র আহমদ মূসার নির্মাণকারিগর, প্রখ্যাত লেখক, সাংবাদিক আবুল আসাদ

প্রশ্ন : আমিও আপনার মতো লেখক হতে চাই, তাই আমাকে কী করতে হবে? সাইমুম সিরিজের বইগুলো দেরি করে বের হয় কেন?
শাহাদাত হোসাইন
আবুল আসাদ : ভালো লেখক হওয়ার আগে ভালো পাঠক হতে হবে। ভালো পাঠক হওয়ার অর্থ ভালোভাবে লেখাপড়া করতে হবে। পাঠ্যপুস্তক পড়ার পর সময় থাকলে বা প্রতিদিন একটা নির্দিষ্ট সময় করে নিয়ে কিছু সময় জীবনীগ্রন্থ, ইতিহাস, তার সাথে ধীরে ধীরে ভালো উপন্যাস ও নাটক পড়ার অভ্যাস করতে হবে। লক্ষ্য হবে বাড়তি জ্ঞানার্জন ও ভাষাশিক্ষা। পড়ার সময় ভালো লাগে বা প্রয়োজনীয় এমন সব তথ্য নোটবুকে টুকে রাখা। এক পর্যায়ে চিঠিপত্র ও বিভিন্ন বিষয়ে নিজের মতামত লেখার অভ্যাস গড়ে তোলা। এভাবে একদিন দেখতে পাবে ভালো লেখাপড়া শিখার সাথে সাথে ভালো লেখকও হয়ে গেছো।
সাইমুম সিরিজ বের হতে দেরি হওয়ার কারণ, এই বই লেখা আমার অবসর সময়ের কাজ, আমার পক্ষে অবসর সময় বের করা খুব কঠিন।
প্রশ্ন : আমি একজন ছাত্র, আমার অনেক স্বপ্ন, কিন্তু পড়ালেখায় মনোযোগ দিতে পারছি না, কী করতে পারি?
মো: কাওসার আলী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ
আবুল আসাদ : একজন ছাত্রের স্বপ্ন অবশ্যই থাকতে হবে এই স্বপ্ন বাস্তবায়েনের জন্যই ভালোভাবে লেখাপড়া করা প্রয়োজন। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময় পড়তে বসতে হবে এবং পড়ার জন্য বরাদ্দ সময়টুকু পড়ে এবং লিখে কাটাতে হবে। এই অভ্যাস ধীরে ধীরে লেখাপড়ায় মনোযোগ এনে দেবে।
প্রশ্ন : মাধ্যাকর্ষণ শক্তির জন্য আমরা যখন লাফিয়ে উপরে উঠি তখন সঙ্গে সঙ্গে আবার নিচে নেমে যেতে হয়। কিন্তু পাখি, প্রজাপতি, মশা ইত্যাদি প্রাণিগুলো তো ডানার সাহায্যে আকাশে ভেসে থাকতে পারে। এর কারণ কী?
তরিকুল ইসলাম শান্ত
নিঝুমদ্বীপ, হাতিয়া, নোয়াখালী
আবুল আসাদ : প্রত্যেক প্রজাতির জন্য আল্লাহ ভিন্ন ভিন্ন প্রকৃতি এবং জীবনাচরণ দিয়েছেন। আল্লাহর দেয়া এই প্রকৃতি অনুসারে কেউ পানির নিচে থাকে, কেউ ভূপৃষ্ঠে বিচরণ করে, কেউ আবার আকাশে উড়ে। পাখিকে আল্লাহ যা দিয়েছেন মানুষকে তা দেননি আবার মানুষকে আল্লাহ যা দিয়েছেন তা পাখিকে দেননি। আকাশে উড়ার আকাক্সক্ষায় মানুষ পাখির আদলে অ্যারোপ্লেন তৈরি করেছে। তবে এর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা জানতে হলে বিজ্ঞানের কোনো ছাত্রের সাথে কথা বলো, আরো ভালো জানতে পারবে।
প্রশ্ন : স্যার আপনি একজন বড় মানের লেখক। তাই আপনার কাছে জানতে চাই, কেউ যদি একজন গল্পকার হতে চায় তাহলে তাকে কী করতে হবে?
মোহাম্মদ আবু সাঈদ
বদরপুর নেছারিয়া ফাজিল মাদরাসা, কুমিল্লা
আবুল আসাদ : গল্পকার হওয়ার জন্য দুটো জিনিস প্রয়োজন। এক, লেখার ক্ষমতা। দুই, কল্পনাশক্তি। লেখক হওয়ার জন্য যা করা প্রয়োজন তা আমি প্রথম প্রশ্নের উত্তরে বলেছি। আর কল্পনাশক্তি বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন বিষয়ে নিয়মিত লেখার অভ্যাস  করতে হবে বিশেষ করে বিমূর্ত বিয়য়ে। যেমন গ্রীষ্মের দুপুর, শীতের সন্ধ্যা, বর্ষার দিন ইত্যাদি। ভালো গল্প-কবিতা প্রচুর পড়তে হবে।
প্রশ্ন : আমি একজন ছাত্র। আমি বিভিন্ন গল্প, উপন্যাস লিখতে চেষ্টা করি। আমার প্রশ্ন হলোÑ লেখকেরা তাদের উপন্যাস, বড় গল্পগুলো কোথায় লেখেন? ডায়েরিতে নাকি সাধারণ খাতায়? আর লেখা উপন্যাস, গল্পগুলো প্রকাশনায় কিভাবে পাঠান?
বোরহান উদ্দিন ভূইয়া
কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
আবুল আসাদ : খাতা, নোটবই, সাধারণ কাগজ যেখানে যার ইচ্ছা লেখতে পারে। সহজে পাওয়া যায়, হাতের কাছে পাওয়া যায় এমন কাগজে সবাই লেখে। গল্প, প্রবন্ধ, উপন্যাস দৈনিক, সাপ্তাহিক, মাসিক পত্রিকায় পাঠানো যায় আবার যারা বই প্রকাশ করেন এমন প্রকাশনার ঠিকানা নিয়ে তাদের কাছে পাঠানো যায়। লেখা পাঠালেই ছাপা হবে এমনটা নয়, ধৈর্য নিয়ে পাঠাতে হবে। আমার প্রথম প্রবন্ধ পাঠানোর এক বছর পর সংবাদপত্রে ছাপা হয়েছিলো।
প্রশ্ন : সাইমুম সিরিজ কত নাম্বার পর্যন্ত বের হয়েছে এবং আপনার কত পর্যন্ত বের করার ইচ্ছা আছে? আহমদ মূসার মত হতে হলে কী করতে হবে?
আহসান হাবিব
জামালপুর রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ
আবুল আসাদ : সাইমুম সিরিজ ৫৫ নম্বর পর্যন্ত বের হয়েছে। কত নম্বর পর্যন্ত বের হবে তা আল্লাহর ইচ্ছার ওপর নির্ভর করছে। আর আহমদ মূসার মতো হতে হলে ভালো লেখাপড়া শিখতে হবে, কল্যাণকর যে জ্ঞান তা অর্জন করতে হবে, আল্লাহর দেয়া যোগ্যতার বিকাশ ঘটাতে হবে এবং আল্লাহর সৃষ্ট সব মানুষকে ভালোবাসতে হবে।
প্রশ্ন : আপনার সাইমুম সিরিজ লেখার মূল উদ্দেশ্য কী?
সাইফুল ইসলাম
ঝিকরগাছা, যশোর
আবুল আসাদ : কাহিনীর মাধ্যমে, কাহিনীর বিভিন্ন চরিত্রের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে তার আত্মপরিচয় ও মানবকল্যাণের চেতনা সৃষ্টি সাইমুম সিরিজের লক্ষ্য।
প্রশ্ন : একজন সাংবাদিক হতে গেলে কী করতে হবে?
রেজওয়ান আহম্মেদ
ধুনট এন ইউ পাইলট উচ্চবিদ্যালয়
আবুল আসাদ : কমপক্ষে বাংলা ও ইরেজি ভাষার ওপর ভালো দক্ষতা অর্জন করতে হবে। নিউজ ও প্রবন্ধ তৈরি শিখতে হবে। বিভিন্ন পত্রিকায় বিভিন্নভাবে লেখে যোগ্যতার প্রকাশ ঘটাতে হবে।
প্রশ্ন : আমি লেখক হতে চাই। আমি জানতে খুবই আগ্রহী যে, একজন লেখকের সবচেয়ে বড় গুণ কী?
আলী হোসেন সাদ্দাম
দিনাজপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
আবুল আসাদ : একজন লেখকের সবচেয়ে বড় গুণ হলো সে একজন ভালো পাঠক এবং সে যা ভাবে, যা দেখে, যা বুঝে তা লেখে প্রকাশ করতে চেষ্টা করে।
প্রশ্ন : আমি সাংবাদিকতা নিয়ে লেখাপড়া করছি না। আমি কি সাংবাদিক হতে পারব?
বোরহান উদ্দিন ভূইয়া
কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
আবুল আসাদ : এর জন্য প্রচুর পড়তে হবে। সাংবাদিকতা পড়েও সাংবাদিক হওয়া যায়, না পড়েও  হওয়া যায়। সাংবাদিকতার জন্য প্রয়োজন ভালো অনুবাদ জানা এবং নিউজ ও প্রবন্ধ লেখার যোগ্যতা থাকা।
প্রশ্ন : আপনার লেখক হওয়ার পেছনে কার অবদান সবচেয়ে বেশি? সাইমুম সিরিজ লেখার প্রেরণা কিভাবে এসেছিল? বর্তমান প্রেক্ষাপট থেকে কী আহমদ মূসার মতো মানুষ বেরিয়ে আসা সম্ভব?
শামীমা আক্তার
জিএম হাট উচ্চবিদ্যালয়
আবুল আসাদ : যাদের অবদান বেশি তাদের মধ্যে আমার পিতা আছেন। পিতা প্রাইমারি স্কুল থেকেই আমার মধ্যে পাঠাভ্যাস সৃষ্টি করেছেন। আমার মনে আছে আমি যখন ক্লাস ফোরে পড়ি তখন কলকাতা থেকে আমার জন্য তিনটি বই কিনে এনেছিলেন। বই তিনটি হলোÑ স্যার সৈয়দ আহমদ, কামাল আতাতুর্ক এবং তাপসী রাবেয়া বসরী। আরো কিছুদিন পর তিনি আমাকে গাজী সালাউদ্দিন আইয়ুবীর বই কিনে দিয়েছিলেন। পাঠ্যপুস্তকের বাইরে বই পড়ার হাতে খড়ি এখান থেকেই। এখন বুঝতে পারি, বইগুলো আমার মধ্যে নিজের পরিচয় সচেতনতার বীজ বপন করেছিলো। হাইস্কুল জীবনে বাংলার শিক্ষক বিভিন্ন বিমূর্ত বিষয়ে রচনা লেখায় অভ্যস্ত করিয়েছিলেন। নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় আমি মার্কিন দূতাবাস আয়োজিত দেশভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলাম। রচনাটি ছিল আব্রাহাম লিঙ্কনের ওপর। সম্ভবত আমি সান্ত্বনা পুরস্কার হিসেবে তিনটি বই পেয়েছিলাম।
আদর্শের কথা, মানুষ ভালো হওয়ার, ভালো করার কথা সেই সাথে জাতির অতীতকে কাহিনী চরিত্রের মাধ্যমে সামনে নিয়ে আসার আকাক্সক্ষাই আমার সাইমুম লেখার প্রেরণা। উপমহাদেশের ইসলামী রেনেসাঁর একজন পুরোধা লিখেছিলেন যে কাহিনীর একটি চরিত্র হাজার গেরিলার চেয়ে বেশি শক্তিশালী। তার এই কথা উপন্যাসধর্মী রচনায় বিপুলভাবে অনুপ্রাণিত করে।
আধুনিক সভ্যতায় বিবেক বলে পরিচিত আরনল্ড টয়েনবি বলেন, ‘অধিকাংশ ক্ষেত্রে লেখকরা যা লেখেন বা কল্পনা করেন তা ঈশ্বরের প্রেরণা।’ আমি মনে করি সাইমুমের কল্পিত চরিত্রগুলো হয় অনেক সংখ্যক দুনিয়াতে আছেন বা আসবেন।
প্রশ্ন : বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ তথা সারা বিশ্বে একজন আহমদ মূসার বড্ড অভাব। ইসলামের এ দুর্যোগপূর্ণ সময়ে নর-নারী নির্বিশেষে একজন মুসলিম হিসেবে আমার বা আমাদের কী করা উচিত?
মিশকাতুল জান্নাত মিশু
বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসা, চট্টগ্রাম
আবুল আসাদ : ইসলামের দাওয়াত নিয়ে সবার অব্যাহতভাবে এগিয়ে যাওয়াই সব সময়ের সবচেয়ে বড় কাজ। এই যাত্রাপথেই যেমন হযরত উমর রা. ও হযরত খালেদ রা.-এর দেখা মিলেছে, তেমনি আহমদ মূসাদের দেখা মিলবে।
প্রশ্ন : আহমদ মূসা চরিত্রটি কিভাবে আপনার মাথায় এলো? আপনার কোন আত্মীয় কি এই নামে আছে?
মো: মেহেদী হাসান
চক্রাখালী, বটিয়াঘাটা, খুলনা
আবুল আসাদ : দুই নবীর নামানুসারে আমি আহমদ মূসার নামকরণ করেছি। ইসলামের ইতিহাস এবং সমসাময়িক পরিস্থিতি সামনে রেখে এমন একটা চরিত্রের কথা ভেবেছি যার আদর্শ, নিষ্ঠা এবং নিঃস্বার্থ মানবপ্রেম শুধু মুসলমান নয়, পশ্চিমা সভ্যতার শীর্ষ মহলকেও প্রভাবিত করবে। এভাবেই আমি চেয়েছি ইসলামের আদর্শবাদ সকল অপবাদ, অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি অতিক্রম করে পাচ্য-প্রতীচ্য সবার কাছেই গ্রহণযোগ্য ভবিষ্যৎ স¤পর্কে, এই ভিশনই আহমদ মূসার চরিত্র সৃষ্টি।
প্রশ্ন : স্যার আপনি কখনো অন্যায় ছাড়া শিক্ষকদের বকা খেয়েছেন? তখন আপনার কেমন লেগেছে?
মোসা: ফাহমিদা
কোটবাড়ী, কুমিল্লা
আবুল আসাদ : আমার প্রাইমারি ও হাইস্কুল জীবনে তিন দিন আমি বকা খেয়েছি। প্রাইমারি স্কুলে একদিন বাম হাতে শিক্ষককে একটি খাতা দিয়েছিলাম আর হাইস্কুলে একদিন স্কুলে না গিয়ে মার্বেল খেলেছিলাম। আর তৃতীয় ঘটনা হলো হাফ ইয়ার্লি পরীক্ষার আগের দিন আমি উপন্যাস পড়েছিলাম। শেষ দুই ঘটনায় অভিযোগকারী ছিলেন হাইস্কুল শিক্ষক আমার মামা।
প্রশ্ন : আপনার জন্মতারিখ কত? আপনি সাইমুম সিরিজ লিখেন কেন?
ইসলামুল হক তুষার
জলেদী, বাঁশখালী, চট্টগ্রাম
আবুল আসাদ : আমার জন্মতারিখ ৫ আগস্ট ১৯৪২। আমার মনের কথা বলার জন্য, কারো কখনো তা কাজে লাগতে পারে।
প্রশ্ন : আমার অনেক দিনের স্বপ্ন নিয়ে একটি ছাত্রকল্যাণ ফান্ড চালু করার উদ্যোগ নিলাম। কিন্তু প্রতাবশালী কিছু মানুষ তা চায় না, গরিব মেধাবী ছাত্ররা লেখাপড়ার খরচের সুযোগ পেয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যাক। এমন বৈরিতার মুখোমুখি আমি, কী করা উচিত?
মো: সানাউদ্দিন রাজ
নাজিরহাট কলেজ, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম।
আবুল আসাদ : একবার না পারিলে দেখ শতবার। সকল বাধা ডিঙিয়েই তো আমাদের রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সফল হয়েছেন।
প্রশ্ন : আমি আপনার সাইমুমের একজন নিয়মিত পাঠক। ‘সিংকিয়াং’ এ যে ‘নেইজেন’ নামক মেয়েটি আহমদ মূসার বোন হয়েছিল আহমদ মূসা কি একবার মোবাইলেও তার সাথে যোগাযোগ করবে না?
মুসলিহা তাফহীম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহিলা ফাজিল মাদরাসা
আবুল আসাদ : আহমদ মূসার অতীত এতটাই স্মৃতি ভারাক্রান্ত যে তিনি পেছনে ফিরে তাকান না। স্মৃতির প্রতি তিনি দুর্বল। স্মৃতিকে তিনি ভয় করেন।
প্রশ্ন : আপনার মত বই লিখতে চাই, কিন্তু ভয়ে পারি না। আপনি কত বই পড়েছেন? কিশোর পাঠকদের জন্য আপনার উপদেশ কী?
নিয়ামতুল্লাহ ফারুকী
হানাইল নো’মানিয়া কামিল মাদরাসা, জয়পুরহাট
আবুল আসাদ : এই সংখ্যা আমার জানা নেই, আমি বলতে পারবো না। ভয় নেই বেশি বেশি পড়–ন, লেখার ভয় কেটে যাবে। কিশোর পাঠকদের জন্য আমার উপদেশ হলো ভালোভাবে লেখাপড়া করতে হবে, জ্ঞানার্জন করতে হবে। জ্ঞান ভালো রেজাল্ট এনে দেবে। ভালো রেজাল্ট সাফল্যের পথ সহজ করবে। সব সময় প্রার্থনা করতে হবে, আল্লাহ যেন কল্যাণকর জ্ঞানে সমৃদ্ধ করেন এবং অকল্যাণকর শিক্ষা থেকে রক্ষা করেন।
প্রশ্ন : প্রতি মাসে একটা করে সাইমুম সিরিজের বই পেতে চাই। আশা করি আপনি প্রতি মাসে একটা করে লিখবেন।
আবু হাসান মুহাম্মদ ইমরোজ
আবুল আসাদ : চাকরি ছাড়লেও মাসে একটা করে বই লেখা সম্ভব নয়। তবে বই যাতে আরো দ্রুত লেখতে পারি ইনশাআল্লাহ সে চেষ্টা করব।
প্রশ্ন : কেন অধিকাংশ লেখক পেশা হিসেবে সাংবাদিকতাকে বেছে নেন এবং আপনার এই পেশায় প্রবেশের পেছনে কোন ধরনের প্রেরণা কাজ করেছে?
মু. শাহাদাত মিয়া ও মো: নওশেদ আলী
আবুল আসাদ : অধিকাংশ নয়, কিছু লেখক সাংবাদিকতায় আছেন কিন্তু সাংবাদিকতা করে ভালো লেখক হওয়ার সুযোগ কম। আমার স্বাধীন পেশা গ্রহণের প্র্রেরণা থেকেই এই সাংবাদিকতা পেশায় এসেছি। আমার কলেজজীবন থেকেই আমি সাংবাদিকতায় প্রবেশ করি।
প্রশ্ন : আপনি ছাত্রজীবনে কেমন পরিশ্রমী ছিলেন?
আদনান মাহমুদ তামিম
পনাইরচক উচ্চবিদ্যালয়, সিলেট
আবুল আসাদ : আমি যখন যে কাজ করেছি নিষ্ঠার সাথে করেছি।
প্রশ্ন : আপনি কি ছোটদের নিয়ে বই লিখেছেন?
তাকিয়া হাসান সামিহা
দারুল উলুম আলিয়া মাদরাসা, চট্টগ্রাম
আবুল আসাদ : আমার লেখা ‘আমরা সেই সে জাতি’ শিশুদের পাঠযোগ্য হতে পারে। এটা পড়ে দেখতে পারো। এটি ইতিহাসভিত্তিক কাহিনীর বই। এ পর্যন্ত বইটির তিনটি খন্ড প্রকাশিত হয়েছে।

SHARE

1 COMMENT

Leave a Reply