Home নিয়মিত খোলা-ডাক খোলা-ডাক ফেব্রয়ারী ২০১৫

খোলা-ডাক ফেব্রয়ারী ২০১৫

আমার কণ্ঠ কিশোরকণ্ঠ
আমি একজন কিশোর। উপন্যাস এবং কবিতার চরণের মতো আমার জীবন। তাই স্কুল আঙিনায়ই আমার বেশির ভাগ সময় কাটে। কারণ এখানে থেকে জানার আছে অনেক কিছু। আমার কণ্ঠ থেকে যে বাক্য আসে তাহলো কুরআনের আলো, হাদিসের আলো। আরো আসে ঝাঁপি থেকে, বলতে পারো, রহস্যভেদ, কী সুন্দর শব্দধাঁধা। এ ছাড়া আসে জানার জন্য জিজ্ঞাসা, কী হাসির বাকসো। সবশেষে আমার কণ্ঠের অনুশীলন বাক্য, খোলা ডাক। সুতরাং আমার কণ্ঠ কিশোরকণ্ঠ।
রুবেল আহম্মেদ
পূর্বচর, কলাকোপা, রামগতি, লক্ষ্মীপুর

প্রিয় পত্রিকা
কিশোরকণ্ঠ আমার প্রিয় পত্রিকা। গত মাসের কিশোরকণ্ঠ আমার কাছে পৌঁছে একটু দেরিতে। পাওয়া মাত্রই খুঁজতে গেলাম ঝাঁপিতে, সেখানেও দেখি আমার নাম নেই, তারপর দেখলাম হাসির বাকসো কিন্তু আমার প্রিয় পত্রিকায় কোথাও আমার নাম পেলাম না। তখন আমি সত্যিই একটু দুঃখ পেলাম। তবুও যখন প্রিয় পত্রিকা কিশোরকণ্ঠ পড়ি তখন আমার দুঃখ ভুলে গিয়ে আমি খুশিতে আত্মহারা হই।
মো: জসিম উদ্দীন
খটবর টুনির হাট দাখিল মাদরাসা
চাকলাহাট, পঞ্চগড়

মিষ্টি আলোর জোনাকি
সেই ২০০৬ সালে থেকে কিশোরকণ্ঠ নিয়মিত পড়ছি। এই কিশোরকণ্ঠ পড়েই মনের ভেতর লেখালেখির ইচ্ছাটা জোনাকির টিপ টিপ আলোর মত জ্বেলে উঠেছে। সত্যিই কিশোরকণ্ঠ জ্ঞানার্জনের অদ্ভুত অপূর্ব একটা মাধ্যম। এর মত আর একটা মাধ্যম সত্যিই বিরল। বর্তমানে এই কিশোরকণ্ঠ শিশু-কিশোরদের বিস্তার ছেড়েও বড়দের মাঝেও স্থান করে নিয়েছে। বর্তমানে এই কিশোরকণ্ঠের জনপ্রিয়তা ব্যাপক। আমরা যারা শিশু-কিশোর তারা যদি পড়াশোনার পাশাপাশি এই কিশোরকণ্ঠ পাঠে মনোযোগী হই তাহলে আমাদের মেধাগত দিক দিয়ে এমনকি চরিত্রগত দিক অনেক সুন্দর হবে। এই কিশোরকণ্ঠের কিছু আদর্শ দিক প্রকাশ হয়ে যা থেকে শিক্ষাগ্রহণ করে নিজেদের সঠিকভাবে গড়তে পারবো। আমার মনে হয় কিশোরকণ্ঠ জ্ঞানের জোনাকি, যা আমাদের সবার মনের ভেতর টিপটিপ করে সত্যিকারের জ্ঞানের আলো জ্বালিয়ে দেয়। কিশোরকণ্ঠের মিষ্টি আলো জোনাকির মতো।
জাহাঙ্গীর হোসেন বাদশাহ
জালালপুর, এনায়েতপুর, সিরাজগঞ্জ

ভালোবাসি
সত্যিই কখন যে ভালোবেসে ফেলেছি সর্বাধিক প্রচারিত শিশু-কিশোর মাসিক নতুন কিশোরকণ্ঠকে, আর কেনই বা ভালোবাসব না? এর প্রতিটি পরতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে ভালোবাসার উপকরণ যা কোমলমতি শিশুদেরকে আকর্ষণ করে। আমি দীর্ঘদিন ধরে কিশোরকণ্ঠের সাথে জড়িত তথা এর নিয়মিত পাঠক। কিশোরকণ্ঠের প্রত্যেক সংখ্যাই অসাধারণ তবে মাঝেমাঝে এমন কিছু সংখ্যা পাওয়া যায় যা মনকে আরো উদ্বেলিত করে। আর নভেম্বর ২০১৪ সংখ্যাটি সে রকমই একটি সংখ্যা। বিশেষ করে এর প্রচ্ছদ রচনা সোনাঝরা হেমন্ত অনেক চমৎকার হয়েছে। এ ছাড়াও কবি আসাদ বিন হাফিজের ধারাবাহিক উপন্যাস দুর্গম পথের যাত্রী সত্যিই অসাধারণ। সব মিলিয়ে যদি কিশোরকণ্ঠকে ধন্যবাদ না দিই তাহলে আমার কাছেই আমাকে কৃপণ মনে হয়।
আবদুল মঈন খান তানজিল
মিরওয়ারিশপুর, বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী

সময়ের সাথী
কিশোরকণ্ঠ এতো সত্যই কিশোরের দুরন্ত দুর্বার পথের এক পরম সাথী। কবি কাজী নজরুল ইসলাম যৌবনের গান গেয়েছেন দুর্বার সেই তরুণদের সহযাত্রী হয়ে, ঠিক তেমনি আমরা লাখ লাখ তরুণকে বাধা পেরিয়ে একত্রিত হয়ে তাদের কণ্ঠে সকল সুর দেখতে পাচ্ছি শুধু কিশোরকণ্ঠের মাধ্যমে। এই তারুণের জয়যাত্রার কিশোরকণ্ঠকে লাখো সালাম জানাই তাদের সহযাত্রী হওয়ার জন্য। এই সব তরুণের জয় একদিন আসবেই ইনশাআল্লাহ।
মেহেদী হাসান শিহাব
ইবন তাইমিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ
টমছম ব্রিজ, কুমিল্লা

মরুর বুকে ফুটন্ত গোলাপ
আমি পাঁচ বছর ধরে কিশোরকণ্ঠ পত্রিকাটির সাথে পরিচিত। আমি এক একটি করে অনেক সাহিত্য অধ্যয়ন করেছি। কিন্তু যখন থেকে কিশোরকণ্ঠ পড়তে লাগলাম, তখন থেকে অন্যান্য উপন্যাসের বই ত্যাগ করে কিশোরকণ্ঠকে নিজের জ্ঞানের সাথী করে নিয়েছি। কিশোরকণ্ঠের প্রতিটি বিভাগ ছড়া কবিতা, গল্প, খোলাডাক, হাসির বাকসো ইত্যাদি সব বিষয় আমার কাছে খুব ভাল লাগে। আমি একটি সংগঠনের দায়িত্বশীল হিসেবে আমার বন্ধু ও সুধীদের কাছে প্রতি মাসে কিশোরকণ্ঠ পৌঁছিয়ে দেই যাতে অন্যান্য অশ্লীল বই পড়া থেকে বিরত থেকে একটি জ্ঞান ভান্ডারের সাথে পরিচিত হতে পারেন।
মু. সাইফুর রহমান (এপলু)
বড়লেখা মৌলভীবাজার, সিলেট

হাফ সেঞ্চুরি
এই মাসের নুতন কিশোরকণ্ঠ কখন পাবোÑ এই আশায় দিন গুনছিলাম। অপেক্ষার প্রহর যেন ফুরাতেই চাইছে না। কখন পাবো কখন পাবো বলে মনটা ছটফট করছিল। কেননা এই মাসের নুতন কিশোরকণ্ঠ পেলেই যে আমার পঞ্চাশটি কিশোরকণ্ঠ পড়া হবে অর্থাৎ হাফ সঞ্চুরি। অবশেষে সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি এসে আমার প্রতীক্ষার পালা শেষ হলো। এই মাসের পত্রিকাটি পড়ে আমি হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করলাম। প্রথম যখন আমার বড় ভাই কিশোরকণ্ঠ এনে আমাকে তা উপহার দিয়েছিল সে দিনটির কথা আমার এখনও মনে পড়ে। সেদিন আমি এই কিশোরকণ্ঠ পড়েছিলাম। ক্লাসের পড়া ছেড়ে এই বইয়ের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়েছিলাম। সেদিন থেকে এর মায়া ছাড়তে পাড়ি না। যখন আমি মনমরা হয়ে পড়ি তখনই এটা নিয়ে বসি। মন ভালো হয়ে যায়। আমি মনে করি, দেশের মানুষ যখন অপসংস্কৃতির কালো থাবায় নিমজ্জিত তখন এটি মুসলিম বিবেককে বিপ্লবের সত্যিকার চেতনায় উজ্জীবিত করার জন্য প্রদীপ শিখা হিসেবে এসেছে। কিশোরকণ্ঠের প্রতিটি বিভাগই আমার ভালো লাগে, তবে কিশোরকণ্ঠ পেলেই সায়েন্স ফিকশনটি আগেই পড়ে ফেলি। এটি আমার খুবই প্রিয়।
নাম-ঠিকানাহীন

SHARE

1 COMMENT

  1. Dear,
    as salamo alikum. I am a student of class six. I live in k.s.a. I read in Bangladesh international school and college, Jeddah. monthly kihorkantha is an ideal Megazine. some time I read it. I want to alawas read it. we get weekly sonarbangla, monthly prethebi. how we will get monthly kishorkantha in k.s.a.
    Thank you
    kazi abdullah nazrul

Leave a Reply