Home কুরআন ও হাদিসের আলো তোমাদের জন্য রাসূল (সা)-এর জীবনে রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ

তোমাদের জন্য রাসূল (সা)-এর জীবনে রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ

যারা আল্লাহ ও শেষ বিচার দিবসের আশা রাখে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তাদের জন্য রাসূল (সা)-এর মধ্যে উত্তম আদর্শ রয়েছে। (সূরা আহজাব : ২১)

বন্ধুরা, আজ তোমাদের সামনে এমন এক আদর্শ উপস্থাপন করব, যা সমগ্র মানবজাতির জন্য উত্তম আদর্শ। আল্লাহ পবিত্র কুরআনে বলেন, তোমাদের জন্য রাসূল (সা)-এর জীবনে রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ, যার অনুসরণ সমগ্র অস্থির মানবসমাজকে নিশ্চিত প্রশান্তির দিকে ধাবিত করতে পারে।
শিশুদের ভালোবাসার ক্ষেত্রে রাসূলুল্লাহর কোনো জুড়ি ছিল না। রাসূল (সা) শিশুদের কোলে নিতেন, আদর করে চুমু  খেতেন। আরব সমাজে কন্যাশিশু হত্যা করার প্রচলন ছিল।
মহানবী (সা) এই জঘন্য কার্যকলাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন এবং তারই কল্যাণে আজকে নারীরা এতই সম্মানিত।
সমাজের অনাথ ইয়াতিম শিশুদের ভরণ-পোষণ করতেন এবং সচ্ছল পরিবারগুলোকে তাদের লালন পালনের জন্য উদ্বুদ্ধ করেছেন। তৎকালীন আরব সমাজে দাসত্ব প্রথায় মানবমর্যাদাকে অপমানিত করেই চলেছিল। রাসূল (সা) দাসত্ব প্রথাকে সমূলে উৎপাটন করেছেন। সকল দাসকে স্বাধীন ঘোষণা করলেন এবং ক্রীতদাস যায়েদ ইবন হারেসাকে মুতার যুদ্ধের প্রধান সেনাপতির দায়িত্ব দিলেন। হযরত বেলালকে (রা) ইসলামের প্রথম মুয়াজ্জিন নিয়োগ করেছিলেন। ভিক্ষাবৃত্তি মূলোৎপাঠনের জন্য তিনি বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন।
সমাজ সংস্কারে রাসূল (সা) পৃথিবীতে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন, যা আজকের ঝঞ্ঝা-বিক্ষুব্ধ পৃথিবীর জন্য অনুকরণীয়।
মানবসেবা ও কল্যাণ সাধনে রাসূল (সা) স্বাবলম্বী রাষ্ট্র গড়ে তুলতে জাকাত, গনিমত, জিজিয়া, ওশর, খারাজ, সাদকাহ, ফেৎরাহসহ নানামুখী রাজস্বব্যবস্থা প্রবর্তিত করেন। বন্ধুরা, এসো আমাদের প্রতি পরম দয়ালু নবী হযরত মুহাম্মদ (সা)-এর আদর্শ জানার জন্য বেশি করে কুরআন হাদিস অধ্যয়ন করি এবং নিজেদের জীবনকে রাসূল (সা)-এর আদর্শের আলোকে সাজাই।
আল্লাহ আমাদের তৌফিক দিন। আমিন।
গ্রন্থনায় : মিজানুর রহমান

SHARE

2 COMMENTS

  1. খুব ভালো লাগলো। আমরা যেন পালন চলতে পারি।

    • খুব ভালো লাগলো। যেন পালন করে চলতে পারি।

Leave a Reply to সোহেল রানা Cancel reply