Home কুরআন ও হাদিসের আলো কুরআনের আলো পৃথিবীকে প্রকৃতির নিয়মে চলতে দেয়া উচিত

পৃথিবীকে প্রকৃতির নিয়মে চলতে দেয়া উচিত

মহান আল্লাহতায়ালা বলেন, “স্মরণ করো, যখন মূসা তার জাতির প্রয়োজনে পানির জন্য দোয়া করলো, তখন আমরা বললাম, অমুক পাথরের ওপর তোমার লাঠি দ্বারা আঘাত করো। এর ফলে সেখান থেকে বারোটি ঝর্ণাধারা উৎসারিত হলো। প্রত্যেক গোত্র তার পানি গ্রহণের স্থান জেনে নিলো। (সে সময় এ নির্দেশ দেয়া হয়েছিলো) আল্লাহ প্রদত্ত রিজিক খাও, পান করো এবং পৃথিবীতে বিপর্যয় সৃষ্টি করো না।”

প্রিয় বন্ধুরা, মহান আল্লাহতায়ালা এ বিশ্বজগৎকে অত্যন্ত ভারসাম্যপূর্ণভাবে বৈজ্ঞানিক পন্থায় সৃষ্টি করেছেন, যেখানে যার যতটুকু দরকার তা দিয়ে পৃথিবী নামক এ সুন্দর গ্রহটিকে সাজিয়েছেন। ফলে যতদিন মানুষ কৃত্রিমভাবে পৃথিবীর ওপর কোনো ক্ষতিকর কার্য সম্পাদন করেনি, ততদিন পর্যন্ত পৃথিবীতে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, অতিখরা, অতিবন্যা ইত্যাদি এত বেশি ছিলো না। কিন্তু যখনই মানুষ প্রাকৃতিক ভারসাম্যকে নষ্ট করে বিভিন্নভাবে বৈষয়িক স্বার্থসিদ্ধির লক্ষ্যে ক্ষতিকর কর্মসূচি বাস্তবায়ন শুরু করেছে, তখন থেকেই পৃথিবীতে বিভিন্ন সমস্যা মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।
বন্ধুরা, তোমরা জানো বাংলাদেশ বর্তমানে ধীরে ধীরে একটি মরুভূমি হতে চলেছে। এর পেছনে কিন্তু আমরা মানুষই দায়ী। আমাদের প্রতিবেশী দেশ আমাদের অভিন্ন আন্তর্জাতিক বড় নদীগুলোর পানি খরার মৌসুমে আটকিয়ে দেয়ার কারণে আমাদের দেশ খরার মৌসুমে পানির অভাবে মারাত্মক সমস্যায় পতিত হচ্ছে। আবার মানুষের তৈরি গ্রিন হাউজ ইফেক্টের কারণে সমুদ্রের পানির স্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যাবার উপক্রম হয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্যে ভেজালের মিশ্রণের ফলে অসুখ-বিসুখ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ সকলই মানুষের তৈরি আপদ! কিন্তু আমরা মানুষ যদি পৃথিবীটাকে প্রাকৃতিক নিয়মে চলতে দিতাম এবং উন্নয়নের চেষ্টা করতাম, তাহলে পৃথিবীর সকল প্রাণীই সুস্থ-সুন্দরভাবে বাঁচতে পারতাম।
সুতরাং বন্ধুরা, এসো আমরা প্রতিজ্ঞা করি যে, আমরা নিজেরা ভেজাল-অন্যায় কাজের সাথে জড়িত হবো না এবং যারা অন্যায় কাজে জড়িত তাদের সাধ্যমতো অন্যায় থেকে বিরত রাখতে চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ আমাদের কবুল করুন। আমিন॥
মোহাম্মদ ইয়াসীন আলী

SHARE

1 COMMENT

Leave a Reply