Home কুরআন ও হাদিসের আলো আদর্শ মানুষ হওয়ার উপায়

আদর্শ মানুষ হওয়ার উপায়

হজরত ইবনে আব্বাস (রা) বলেন, আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা) বলেছেন, যে আমাদের ছোটদের স্নেহ করে না এবং বড়দের সম্মান করে না, সৎকাজের আদেশ দেয় না এবং অসৎকাজ থেকে বিরত থাকতে নিষেধ করে না, সে আমাদের দলভুক্ত নয়। (মিশকাত শরিফ)

প্রিয় বন্ধুরা, বড়দের সম্মান এবং শ্রদ্ধার মাধ্যমে যে সামাজিক পরিবেশ সৃষ্টির কথা হাদিসে বলা হয়েছে এর সাথে যদি ছোটদের প্রতি স্নেহ আর ভালোবাসার সমন্বয়ে আমাদের পরিবেশ গড়ে ওঠে তাহলে নিঃসন্দেহে একটি উন্নত ও শান্তিপূর্ণ সামাজিক জীবন আমরা পেতে পারি। এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলো রাসূল (সা)-এর নবুওয়তি জীবন এবং সাহাবায়ে কেরামের স্বর্ণালি খেলাফতের সময়।
প্রিয় বন্ধুরা, আমরা মানুষ আশরাফুল মাখলুকাত বা সৃষ্টির সর্বশ্রেষ্ঠ জীব। মানুষের সাথে জীব-জন্তুর কোনো তুলনার সুযোগ নেই। কিন্তু মানুষ নামধারী কিছু লোকের কাজ-কর্ম নিকৃষ্ট জীব-জন্তুর স্বভাবকেও হার মানায়। তাই ছোটবেলা থেকেই যদি আমরা মানুষ হওয়ার গুণাবলি অর্জন করতে শিখি তাহলে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে পারব। আমাদের বড় পরিচয় আমরা মুসলিম। তাই আমাদের স্বভাব, চরিত্র, বৈশিষ্ট্য কিন্তু আরো বেশি ভালো-উন্নত হতে হবে। আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনে ঘোষণা করেছেন : তোমরাই সর্বশ্রেষ্ঠ জাতি, তোমাদেরকে মানুষের কল্যাণের জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে। তোমরা মানুষকে ভালো কাজের আদেশ দেবে আর মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখবে, নিষেধ করবে।
প্রিয় বন্ধুরা, আমাদের প্রিয় নবী পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ হজরত মুহাম্মদ (সা)-কে আদর্শ হিসেবে গ্রহণ করে যদি জীবনকে তাঁর আদর্শ মোতাবেক গড়ে তুলতে পারি, তাহলে আমরা পৃথিবীতে সফলকাম হবো এবং পরকালে মুক্তি পাবো। এসো আমরা কিছু ভালো গুণাবলি জেনে নিই যা আমরা এখন থেকে চর্চা করতে থাকব :
১.    নিয়মিত পড়াশুনা চালিয়ে যাওয়া। এ ক্ষেত্রে আমরা কিছু সময় হলেও কুরআন-হাদিস কিংবা ইসলাম সম্পর্কে জানার চেষ্টা করব।
২.    পিতা-মাতা, বড়দের, জ্ঞানী-গুণী, শিক্ষকদের সম্মান প্রদর্শন করবো।
৩.    আমরা বন্ধু নির্বাচনের সময় অবশ্যই ভালো বন্ধু নির্বাচন করবো।
৪.    আমরা মুসলমান সকলেই একে অপরের ভাই। তাই কেউ দুঃখ-কষ্টে পতিত হলে আমরা তার দুঃখ কষ্টে ব্যথিত হবো এবং সম্ভব হলে তাকে সাহায্য-সহযোগিতা করবো।
৫.    আমরা সত্য কথা বলবো, মিথ্যা-ধোঁকাবাজি থেকে বিরত থাকবো।
৬.    ধীরে ধীরে নামাজের প্রতি অভ্যস্ত হবো। বন্ধুদের সাথে নিয়ে নামাজ পড়বো।
৭.    পিতা-মাতার কাজে সর্বতোভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করবো।
৮.    পিতা-মাতা, শিক্ষকসহ সকলকে সালাম প্রদান করবো। অন্যদের বাড়িতে কিংবা ঘরে কিংবা অফিসে প্রবেশ করার পূর্বে অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করবো ইত্যাদি।
মোহাম্মদ ইয়াসীন আলী

SHARE

Leave a Reply