Home কুরআন ও হাদিসের আলো মজলুম মানুষের স্বাধীনতা অর্জনে চেষ্টা ঈমানদারদের কর্তব্য

মজলুম মানুষের স্বাধীনতা অর্জনে চেষ্টা ঈমানদারদের কর্তব্য

মহান আল্লাহতায়ালা বলেন, “তোমাদের কী হলো, তোমরা আল্লাহর পথে অসহায় নর-নারী ও শিশুদের জন্য লড়বে না, যারা দুর্বলতার কারণে নির্যাতিত হচ্ছে? তারা ফরিয়াদ করছে, হে আমাদের রব! এই জনপদ থেকে আমাদের বের করে নিয়ে যাও, যার অধিবাসীরা জালেম এবং তোমার পক্ষ থেকে আমাদের কোনো বন্ধু, অভিভাবক ও সাহায্যকারী তৈরি করে দাও।” (সূরা আন নিসা : ৭৫)

প্রিয় বন্ধুরা, আমাদের সৃষ্টিকর্তা লালন-পালনকারী মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের তথা মানবজাতিকে সুস্থ, সুন্দর এবং স্বাধীনভাবে সৃষ্টি করেছেন। স্বাধীনতা তাই প্রত্যেকটি বনি আদম তথা মানুষের জন্মগতভাবে আল্লাহপ্রদত্ত অধিকার। এ অধিকার ছিনিয়ে নেয়ার অর্থ হচ্ছে আল্লাহপ্রদত্ত অধিকারকে খর্ব করে তাঁর বিদ্রোহের শামিল। কিন্তু যুগে যুগে, কালে কালে কিছু কিছু খোদাদ্রোহী শাসক মানুষের মৌলিক অধিকারগুলোর অন্যতম প্রধান অধিকার স্বাধীনতাকে খর্ব করার চেষ্টা করে থাকে। তখন স্বাধীনতাপ্রেমিক জনগণ বিদ্রোহ ঘোষণা করে তাদের স্বাধীনতাকে ছিনিয়ে এনে থাকে। মার্চ মাস হচ্ছে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মাস। তাই এ মাসকে ঘিরে রয়েছে আমাদের আবেগ ও দেশপ্রেমে নতুনভাবে উদ্বুদ্ধ হওয়ার প্রেরণা।
প্রিয় বন্ধুরা, আমাদের অন্যতম পরিচয় হলো আমরা মুসলিম। আর পৃথিবীর সকল মুসলমান রুহানিভাবে ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে ভাই ভাই। সুতরাং পৃথিবীর সকল মুসলমান যেন আল্লাহপ্রদত্ত স্বাধীনতা ভোগ করতে পারে, সেটা আমাদের সকলেরই কাম্য। কিন্তু আমরা প্রতিনিয়ত পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে নিরীহ মুসলমানদের ওপর জুলুম, নির্যাতন ও হত্যার সংবাদ শুনে থাকি। আমাদের পাশের দেশ মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রায় নিঃশেষ করার ষড়যন্ত্র হিসেবে গণহত্যা চালানো হচ্ছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের কাশ্মীরে মুসলমানদের হত্যা ও গুম নিয়মিত ঘটনা।
প্রিয় বন্ধুরা, আমরা মুসলিম হিসেবে প্রত্যেকটি মানুষের মৌলিক অধিকার ও স্বাধীনতায় চরমভাবে বিশ্বাসী। সুতরাং আমরা আমাদের এ স্বাধীনতার মাসে দীপ্তশপথ নেবো যেন, আমরা আমাদের এই সুন্দর দেশটিকে স্বাধীনতার আসল উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে আমাদের সর্বতোভাবে উজাড় করে দিয়ে মানুষের প্রকৃত কল্যাণ ও সুখ নিশ্চিত হয়। সাথে সাথে পৃথিবীর সকল প্রান্তের মজলুম জনগণ বিশেষ করে মুসলমানেরা যেন মুক্তি পায় সেই দোয়া আল্লাহর কাছে করতে থাকব। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন।

গ্রন্থনা : মোহাম্মদ ইয়াসীন আলী

SHARE

3 COMMENTS

  1. মহান আল্লাহতায়ালা বলেন, “তোমাদের কী হলো, তোমরা আল্লাহর পথে অসহায় নর-নারী ও শিশুদের জন্য লড়বে না, যারা দুর্বলতার কারণে নির্যাতিত হচ্ছে? তারা ফরিয়াদ করছে, হে আমাদের রব! এই জনপদ থেকে আমাদের বের করে নিয়ে যাও, যার অধিবাসীরা জালেম এবং তোমার পক্ষ থেকে আমাদের কোনো বন্ধু, অভিভাবক ও সাহায্যকারী তৈরি করে দাও।” (সূরা আন নিসা : ৭৫)

    প্রিয় বন্ধুরা, আমাদের সৃষ্টিকর্তা লালন-পালনকারী মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের তথা মানবজাতিকে সুস্থ, সুন্দর এবং স্বাধীনভাবে সৃষ্টি করেছেন। স্বাধীনতা তাই প্রত্যেকটি বনি আদম তথা মানুষের জন্মগতভাবে আল্লাহপ্রদত্ত অধিকার। এ অধিকার ছিনিয়ে নেয়ার অর্থ হচ্ছে আল্লাহপ্রদত্ত অধিকারকে খর্ব করে তাঁর বিদ্রোহের শামিল। কিন্তু যুগে যুগে, কালে কালে কিছু কিছু খোদাদ্রোহী শাসক মানুষের মৌলিক অধিকারগুলোর অন্যতম প্রধান অধিকার স্বাধীনতাকে খর্ব করার চেষ্টা করে থাকে। তখন স্বাধীনতাপ্রেমিক জনগণ বিদ্রোহ ঘোষণা করে তাদের স্বাধীনতাকে ছিনিয়ে এনে থাকে। মার্চ মাস হচ্ছে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মাস। তাই এ মাসকে ঘিরে রয়েছে আমাদের আবেগ ও দেশপ্রেমে নতুনভাবে উদ্বুদ্ধ হওয়ার প্রেরণা।
    প্রিয় বন্ধুরা, আমাদের অন্যতম পরিচয় হলো আমরা মুসলিম। আর পৃথিবীর সকল মুসলমান রুহানিভাবে ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে ভাই ভাই। সুতরাং পৃথিবীর সকল মুসলমান যেন আল্লাহপ্রদত্ত স্বাধীনতা ভোগ করতে পারে, সেটা আমাদের সকলেরই কাম্য। কিন্তু আমরা প্রতিনিয়ত পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে নিরীহ মুসলমানদের ওপর জুলুম, নির্যাতন ও হত্যার সংবাদ শুনে থাকি। আমাদের পাশের দেশ মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রায় নিঃশেষ করার ষড়যন্ত্র হিসেবে গণহত্যা চালানো হচ্ছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের কাশ্মীরে মুসলমানদের হত্যা ও গুম নিয়মিত ঘটনা।
    প্রিয় বন্ধুরা, আমরা মুসলিম হিসেবে প্রত্যেকটি মানুষের মৌলিক অধিকার ও স্বাধীনতায় চরমভাবে বিশ্বাসী। সুতরাং আমরা আমাদের এ স্বাধীনতার মাসে দীপ্তশপথ নেবো যেন, আমরা আমাদের এই সুন্দর দেশটিকে স্বাধীনতার আসল উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে আমাদের সর্বতোভাবে উজাড় করে দিয়ে মানুষের প্রকৃত কল্যাণ ও সুখ নিশ্চিত হয়। সাথে সাথে পৃথিবীর সকল প্রান্তের মজলুম জনগণ বিশেষ করে মুসলমানেরা যেন মুক্তি পায় সেই দোয়া আল্লাহর কাছে করতে থাকব। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন।

  2. ইসলামের প্রথম জামানায়ও মানুষের উপর জুলুম হইয়েছে কিন্তু আল্লাহর রাসূ্ল সেই সমাধান করেছেনও এর পর শতাব্দীর পর শতাব্দী আলেম ওলামারা শুধু ওয়াজ করেন লেখেন কিন্তু সমাধানতো কারোর দ্বারা হচ্ছে না

Leave a Reply to mamun Cancel reply