Home ফিচার ওরা দেশের অতন্দ্র প্রহরী

ওরা দেশের অতন্দ্র প্রহরী

ডিসেম্বর আমাদের গৌরবের মহান বিজয়ের মাস। এই মাসের ১৬ তারিখে বিশ্বের মানচিত্রে নতুন স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। বিজয়ের প্রভাতি আলোয় ঝিকমিক করে ওঠে বাংলার আকাশ, মাটি। হেসে ওঠে চারপাশ।
দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত হয় বাংলাদেশের এই বিজয়। লাল-সবুজের শ্যামলিমা দেশটির অতন্দ্র প্রহরীর কাজ করে চলেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এই সেনাবাহিনীর সুনাম দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্বের দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ছে। জাতিসংঘের শান্তিমিশনে বিশ্বশান্তি রক্ষায় অনন্য ভূমিকা পালন করে চলেছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যরা।
বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশের রয়েছে নিজস্ব সেনাবাহিনী। যার কাজ অভ্যন্তরীণ ও বহিরাগত শত্রু থেকে নিজ সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা। এই সামরিক বাহিনী নিজ দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের জন্য যুদ্ধে সরাসরি জড়িয়ে পড়ে। এদের মধ্যে কোনোটা পালন করে দায়িত্বশীলের ভূমিকা, আবার কোনোটা হয় নিন্দিত। সেনাসদস্যদের সংখ্যার ভিত্তিতে বিশ্বের শীর্ষ ১০ সেনাবাহিনীর কথা জানাচ্ছেন মাহমুদ হাসান

Bahiniমার্কিন সামরিক বাহিনী
বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের ৩৯ শতাংশ খরচ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। গোটা বিশ্ব খরচ করে ১,৭৫৩ বিলিয়ন ডলার। আর যুক্তরাষ্ট্র খরচ করে ৬৮২ বিলিয়ন ডলার। মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সদর দফতর ‘পেন্টাগন’। এটি যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের আর্লিংটনে অবস্থিত। এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় অফিস ভবন। আটলান্টিক মহাসাগর তীরের উত্তর আমেরিকার ১৩টি ব্রিটিশ উপনিবেশ নিয়ে গঠিত হয়েছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ১৭৭৬ সালের ৪ জুলাই এই উপনিবেশগুলোর একটি স্বাধীনতা ঘোষণা করে। আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে এই বিদ্রোহী রাজ্যগুলো গ্রেট ব্রিটেনকে পরাস্ত করে। এই যুদ্ধ ছিল ঔপনিবেশিকতার ইতিহাসে প্রথম সফল স্বাধীনতা যুদ্ধ। ঊনবিংশ শতাব্দীতে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, স্পেন, যুক্তরাজ্য, মেক্সিকো ও রাশিয়া থেকে জমি অধিগ্রহণ করে এবং টেক্সাস প্রজাতন্ত্র ও হাওয়াই প্রজাতন্ত্র অধিকার করে নেয়। ১৮৭০-এর দশকেই মার্কিন অর্থনীতি বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির শিরোপা পায়। স্প্যানিশ-আমেরিকান যুদ্ধ ও প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সামরিক শক্তি হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে প্রতিষ্ঠা দান করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এই দেশ প্রথম পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে এবং জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে স্থায়ী সদস্যপদ লাভ করে। শীতল যুদ্ধের শেষভাগে এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের একমাত্র মহাশক্তিধর রাষ্ট্রে পরিণত হয়। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের অন্যতম প্রধান অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক শক্তিধর রাষ্ট্র। সেনা, নৌ, মেরিন কর্পস, বিমান আর কোস্ট গার্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী গঠিত। মার্কিন সামরিক বাহিনী গঠিত হয় ১৭৭৫ সালে। যুক্তরাষ্ট্রের নিয়মিত সেনা সদস্য ১৪,২৯,৯৯৫ জন। রিজার্ভ আর্মি ৮,৫০,৮৮০ জন। আধা সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ১১,০৩৫ জন সদস্য।

Bahiniরাশিয়ান সামরিক বাহিনী
সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার পর তৎকালীন রাশিয়া ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলৎসিন ১৯৯২ সালে ৭ মে সোভিয়েত আর্ম ফোর্সের সদস্য ও সরঞ্জাম নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেন রাশিয়ান সামরিক বাহিনী।
আঞ্চলিক দ্বন্দ্ব, উভয় বিশ্বযুদ্ধ এবং শীতল যুদ্ধের সঙ্গে জড়িত ছিল এই সামরিক বাহিনী। সোভিয়েত ইউনিয়ন পতনের আগে এটি ছিল বিশ্বের অত্যন্ত শক্তিশালী সামরিক বাহিনী। যা সেই সময় সৈন্য এবং পারমাণবিক অস্ত্র সংখ্যার দিক থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে এগিয়ে ছিল। রাশিয়ার সামরিক বাজেট ৯০ দশমিক সাত বিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা বিশ্বের মোট সামরিক বাজেটের পাঁচ দশমিক দুই শতাংশ। স্থলবাহিনী, বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী, স্ট্র্যাটেজিক রকেট ফোর্স, বিশেষ বাহিনী এবং এয়ারবোম ট্রুপস নিয়ে রাশিয়া ফেডারেশনের সামরিক বাহিনী গঠিত। নিয়মিত সেনাসদস্য ১০,৪০,০০০, রিজার্ভ আর্মি ২০,৩৫,০০০ এবং আধা-সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ৪,৪৯,০০০ জন সদস্য। রাশিয়ার রয়েছে ২২,৭১০টি সাঁজোয়া ট্যাংক, একটি বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ, ১৫টি উভচর যুদ্ধজাহাজ, পাঁচটি ক্রুজার, ১৪টি ডেস্ট্রয়ার যুদ্ধজাহাজ, পাঁচটি ফ্রিগেট, ৭০টি করভিট যুদ্ধজাহাজ, ৩৩টি নিউক্লিয়ার সাবমেরিন, ১৭টি সাবমেরিন, ১,২৬৪টি যুদ্ধবিমান, ১৯৫টি বোমারু বিমান, ১,২৬৭টি জঙ্গিবিমান, ১,৬৫৫টি সাঁজোয়া হেলিকপ্টার এবং ১২ হাজার পরমাণু অস্ত্র। রাশিয়া বিশ্বের অনেক দেশে অস্ত্র রফতানি করে থাকে। দুনিয়ার সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত এবং জনপ্রিয় অটোমেটিক রাইফেল একে-৪৭-এর নির্মাতা ও ডিজাইনার রাশিয়ার লেফটেন্যান্ট জেনারেল মিখাইল কালাশনিকভ। এ পর্যন্ত প্রায় ১০ কোটিরও অধিক এই অস্ত্র বিক্রি হয়েছে এবং বিশ্বের প্রায় ৫০টিরও বেশি দেশের সামরিক বাহিনীতে, এটি ব্যবহৃত হচ্ছে। রাশিয়ার সামরিক বাহিনীতে যে কোনো দেশের বিদেশী নাগরিক অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। রাশিয়া জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য।

Bahiniপিপলস লিবারেশন আর্মি, চীন
চীনের সামরিক ব্যয় ১৬৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা দেশটির জিডিপির দুই শতাংশ। বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের ৯ দশমিক পাঁচ শতাংশ করে চীন ব্যয় করে তাদের সামরিক বাহিনীর জন্য। আয়তনের দিক থেকে বিশ্বের মধ্যে চীনের অবস্থান তৃতীয়। এ দেশের স্থলসীমার দৈর্ঘ্য প্রায় ২২ হাজার ৮০০ কিলোমিটার। এই বিশাল ভূখ-ের সার্বভৌমত্ব রক্ষার দায়িত্বে রয়েছে চীনের সেনাবাহিনীÑ যার নাম ‘পিপলস লিবারেশন আর্মি’ বা সংক্ষেপে পিএলএ। প্রতিষ্ঠিত হয় ১ আগস্ট, ১৯২৭। পিএলএর পাঁচটি শাখা হলো : পিএলএ স্থলবাহিনী, পিএলএ নৌবাহিনী, পিএলএ বিমানবাহিনী, দ্বিতীয় গোলন্দাজ কর্পস, পিএলএ রিজার্ভ ফোর্স। চীনের নিয়মিত সেনাসদস্য ২২ লাখ ৮৫ হাজার জন। রিজার্ভ আর্মি আট লাখ। আধা সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ১৫ লাখ সদস্য। রয়েছে ১০ হাজার ট্যাংক, সুবিশাল গোলন্দাজ ইউনিট, এন্টি ট্যাংক মিসাইল ইউনিট এবং ২৪০টি পারমাণবিক অস্ত্র। পিএলএ নৌবাহিনীতে রয়েছে ৩৫ হাজার কোস্টাল ডিফেন্স ফোর্স। ৫৬ হাজার মেরিন সেনা এবং ৫৬ হাজার রয়েছে পিএলএএন অ্যাভিয়েশনে যারা কয়েক শ’ বিমান এবং হেলিকপ্টার পরিচালনা করে। নৌবহরে রয়েছে একটি বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ, ২৭টি উভচর যুদ্ধজাহাজ, ৪৮টি ফ্রিগেট জাহাজ, ২৭টি ডেস্ট্রয়ার, ১৫টি কারভিটি জাহাজ, ১০টি নিউক্লিয়ার সাবমেরিন, ৪০টি সাবমেরিন। পিএলএ বিমানবাহিনী রয়েছে : ৩৭০টি জঙ্গিবিমান, ১১৮টি বোমারু বিমান এবং ১ হাজার ১৩০টি যুদ্ধবিমান। অস্ত্র উৎপাদনে চীনের রয়েছে বিশেষ খ্যাতি। বিশ্বে অনেকগুলো দেশে তারা অস্ত্র রফতানি করে থাকে। চীন জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য। প্রতিষ্ঠার পরে পিপলস লিবারেশন আর্মি গৃহযুদ্ধ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, সীমান্ত সংঘাত থেকে শুরু করে সামরিক প্রতিরক্ষার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজে অংশ নিয়েছে।

Bahiniভারতীয় সামরিক বাহিনী
ভারতীয় সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনী এবং একাধিক অন্যান্য আন্তঃপরিষেবা দাতা সংস্থাকে নিয়ে গঠিত ভারতীয় সামরিক বাহিনী। ভারতের প্রতিরক্ষা বাজেট ৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বিশ্বের অষ্টম বৃহৎ বাজেট এবং মোট বাজেটের দুই দশমিক ছয় শতাংশ। ভারতের সামরিক বাহিনীতে মোট ১৩,২৫,০০০ জন নিয়মিত সেনা, ১১,৫৫,০০০ জন সংরক্ষিত সেনা এবং ১২,৯৩,৩০০ জন আধা-সামরিক সেনা রয়েছে। ভারতীয় উপকূল রক্ষীবাহিনী, কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং স্ট্র্যাটেজিক ফোর্সেস কমান্ড সেনাবাহিনীর প্রধান সহকারী বাহিনী। বর্তমানে সেনাবাহিনীর ব্যাপক সম্প্রসারণ ও আধুনিকীকরণের কাজ চলছে। ভারতীয় সামরিক বাহিনী সক্রিয়ভাবে সামরিক মহাকাশ কর্মসূচির পরিকল্পনাও গ্রহণ করেছে। এ ছাড়া ভারতের সামরিক বাহিনী একটি মিসাইল প্রতিরক্ষা শিল্ড ও পরমাণু ট্রায়াড ক্ষমতাও গড়ে তুলছে। ভারতের সামরিক বাহিনীর ভা-ারে রয়েছে ৫,৯৭৮টি সাঁজোয়া ট্যাংক, দু’টি বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ, ছয়টি উভচর যুদ্ধজাহাজ, ১৫টি ডেস্ট্রয়ার যুদ্ধজাহাজ, ২৮টি ফ্রিগেট, ৩৬টি করভিট যুদ্ধজাহাজ, ৫৪টি পেট্রল বোট, দু’টি নিউক্লিয়ার সাবমেরিন, ১৮টি সাবমেরিন, ৯০১টি যুদ্ধবিমান, ৯১টি বোমারু বিমান, ২২০ জঙ্গিবিমান, ১৪০টি সাঁজোয়া হেলিকপ্টার এবং ৯০ থেকে ১০০টি পরমাণু অস্ত্র। ভারতের সামরিক বাহিনীতে নেপাল ও ভুটানের নাগরিকসহ তিব্বতি উদ্বাস্তু যারা স্থায়ীভাবে ভারতে বসবাস করছে তারা যোগ দিতে পারে। ভারতের সামরিক বাহিনী পাক-ভারত যুদ্ধ ১৯৪৭, ১৯৬৫ এবং ১৯৭১ পর্তুগাল-ভারত যুদ্ধ ও চীন-ভারত যুদ্ধে অংশ নিয়েছে। এই বাহিনী অভ্যন্তরীণ নকশালবাদ, সন্ত্রাসবাদ এবং জম্মু ও কাশ্মীর, পাঞ্জাব ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আঞ্চলিক বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দমনে সাফল্য দেখালেও মানবাধিকার লঙ্ঘনসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে সমালোচিত হয়েছে।

Bahiniইরানি প্রতিরক্ষা বাহিনী
১৯২৫ সালে পাহলভি সাম্রাজ্য দেশটির ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়ে দ্রুততার সঙ্গে আধুনিক ইরানি সশস্ত্রবাহিনী গড়ে তোলে। সেনা কর্মকর্তাদের ইউরোপ এবং আমেরিকার সামরিক একাডেমিতে প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়। সর্বাধিক অস্ত্র আসত মিত্র রাষ্ট্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে। ১৯৪১ সালে ইরানি সামরিক বাহিনী ব্রিটিশ-সোভিয়েত আক্রমণ প্রতিহত করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন ওমানের সুলতানের পক্ষাবলম্বন করে। বিপ্লব-পূর্ববর্তী সময়ে জাতিসংঘের শান্তি মিশনে বলিষ্ঠ ভূমিকা ছিল ইরানের। আয়াতুল্লাহ খামেনির নেতৃত্বে ১৯৭৯ সালের ইসলামিক বিপ্লবের পরে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক সম্পূর্ণ বিপরীত দিকে মোড় নেয়। মার্কিন অবরোধের জন্য ইরান নিজেদের অস্ত্রশস্ত্র নিজেরাই রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচালনা শুরু করে। ১৯৮০-র দশকে দেশটিকে প্রতিবেশী ইরাকের সঙ্গে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে হয়। ১৯৮৯ সালে ইরান সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে অস্ত্র আমদানি করে সামরিক বাহিনী পুনর্গঠন শুরু করে। মার্কিন-ইসরাইলের শত বাধার পরও দেশটি বর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম শক্ত সামরিক শক্তি। ড্রোন প্রযুক্তির অধিকারী শীর্ষ পাঁচটি দেশের অন্যতম ইরান। ইরান বিশ্বের সবচেয়ে পর্বতময় দেশগুলোর একটি। ইরানে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাসের ভা-ার আছে। ইরান প্রাচীনকাল থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত অস্তিত্বশীল বৃহৎ সভ্যতাগুলোর মধ্যে অন্যতম। দেশটির মোট আয়তন ১৬,৪৮,০০০ বর্গকিলোমিটার। ইরানের নিয়মিত সেনাসদস্য ৫,২৩,০০০ জন, রিজার্ভ আর্মি ৩,৫০,০০০ জন এবং আধা-সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ১৫,১০,০০০ জন সদস্য। সেনাবাহিনী, স্থলবাহিনী, বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী এবং আইআপজিসি নিয়ে ইরানি সামরিক বাহিনী গঠিত। দেশটির সামরিক বাজেট ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

Bahiniপাকিস্তানি সশস্ত্রবাহিনী
সেনা, নৌ, বিমান, মেরিন, আধা-সামরিক এবং এসপিডি বাহিনী নিয়ে পাকিস্তানি সশস্ত্র বাহিনী গঠিত। ব্রিটিশ ভারতে সামরিক বাহিনীর একটি অংশ নিয়ে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী গঠিত হয় ১৯৪৭ সালে। পাকিস্তানি নিয়মিত সেনাসদস্য ৬,১৭,০০০ জন, রিজার্ভ আর্মি ৫,১৩,০০০ জন এবং আধা-সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ৩,০৪,০০০ জন সদস্য। পাকিস্তানের রয়েছে ৪,০০০টি সাঁজোয়া ট্যাংক, ৪টি ডেস্ট্রয়ার যুদ্ধজাহাজ, ১৪টি ফ্রিগেট, ৮টি করভিট যুদ্ধজাহাজ, ২৮টি পেট্রল বোট, ৮টি সাবমেরিন, ৩২৫টি যুদ্ধবিমান, ৩০টি বোমারু বিমান, ২৫০টি জঙ্গিবিমান, ১১০টি সাঁজোয়া হেলিকপ্টার এবং ১১০টি পরমাণু অস্ত্র। পাকিস্তানের সামরিক বাজেট সাত দশমিক আট বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা দেশটির জিডিপির দুই দশমিক সাত শতাংশ। পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীতে বিশেষ রেজিমেন্ট আছে প্যালেস্টাইন ও অন্যান্য আরব জাতিদের জন্য। জাতিসংঘের শাস্তিমিশনেও অংশগ্রহণ রয়েছে এই বাহিনীর। ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শেষে পাকিস্তান সেনাবাহিনী ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্সে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করে। প্রায় ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সেনার এই আত্মসমর্পণ ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে সর্ববৃহৎ আত্মসমর্পণের ঘটনা।

imagesদক্ষিণ কোরিয়ান সেনাবাহিনী
সেনা, নৌ, মেরিন কর্পস, বিমান আর রিজার্ভ বাহিনী নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার ‘গণতান্ত্রিক কোরিয়ার সামরিক বাহিনী’ গঠিত। কোরিয়া ভাগের পর দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী গঠিত হয় ১৯৪৮ সালে। এ দেশের সামরিক বাজেট ৩১ দশমিক সাত বিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা বিশ্বের মোট সামরিক বাজেটের এক দশমিক আট শতাংশ। দক্ষিণ কোরিয়ার নিয়মিত সেনাসদস্য ৬,৮৭,০০০ জন। রিজার্ভ আর্মি ১০,০০,০০০ জন। আধা-সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ৩৫,০০,০০০ সদস্য। দক্ষিণ কোরিয়ার রয়েছে ২,৪২৯টি সাঁজোয়া ট্যাংক, ১৮টি উভচর যুদ্ধজাহাজ, ১২টি ডেস্ট্রয়ার যুদ্ধজাহাজ, নয়টি ফ্রিগেট, ২৮টি করভিট যুদ্ধজাহাজ, ৮৩টি পেট্রল বোট, ১৮টি সাবমেরিন, ৬৪৮টি যুদ্ধবিমান, ৬০টি বোমারু বিমান, ৩৫২টি জঙ্গিবিমান। দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী জাহাজ বিধ্বংসী ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করছে। শুধু উত্তর কোরিয়া নয়, এ অঞ্চলের অপর দেশগুলোর নৌ-জাহাজের হুমকি থেকে দেশকে রক্ষা করাই জাহাজ বিধ্বংসী এই ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের লক্ষ্য। রাশিয়ার ইয়াখন্ত ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের আদলে এটি তৈরি করা হচ্ছে এবং এটি শব্দের গতির চেয়ে সর্বোচ্চ আড়াই গুণ বেশি গতিতে পানির ওপর দিয়ে উড়ে যেতে সক্ষম। এ ছাড়া ক্ষেপণাস্ত্রটি সর্বোচ্চ ৩০০ কিলোমিটার দূরত্বের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম। কোরিয়ান যুদ্ধ ও ভিয়েতনাম যুদ্ধে উত্তর কোরিয়ান সেনাবাহিনীর ভূমিকা ছিল।
Bahiniতুর্কি সশস্ত্রবাহিনী
তুর্কি সামরিক বাহিনী প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯২০ সালের ৩ মে। তুরস্কের নিয়মিত সেনাসদস্য ৬,৬৪,০৬০ জন, রিজার্ভ আর্মি ৩,৭৮,৭০০ জন এবং আধা-সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ১,৫২,২০০ জন সদস্য। সেনা, নৌ, বিমান, ফৌজি-পুলিশ এবং কোস্টগার্ড নিয়ে তুর্কি সশস্ত্রবাহিনী গঠিত। তুরস্কের রয়েছে ৫,২০০টি সাঁজোয়া ট্যাংক, ৩৪টি উভচর যুদ্ধজাহাজ, ২৫টি ফ্রিগেট, ৯টি করভিট যুদ্ধজাহাজ, ৩৩টি পেট্রল বোট, ১৩টি সাবমেরিন, ৪৬৫টি যুদ্ধবিমান, ৩৬টি সাঁজোয়া হেলিকপ্টার এবং ন্যাটোর পরমাণু অস্ত্র। সারা বিশ্বের সামরিক বাজেটে তুরস্কের অবস্থান শীর্ষ ১৫-তে। তারা বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের এক শতাংশ ব্যয় করে থাকে। দেশটির সামরিক বাজেট ২৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা দেশটির জিডিপির দুই দশমিক তিন শতাংশ। ১৯৫২-তে তুরস্ক ন্যাটোতে যোগ দেয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নিরপেক্ষ অবস্থান বিশ্বকে চমকে দেয়। যদিও তুর্কি সেনা কোরিয়ান যুদ্ধের সঙ্গে জড়িত ছিল। সীমান্তযুদ্ধে রাশিয়া, ব্রিটেন, গ্রিস, ফ্রান্স ও ইতালি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে। তুরস্কের মোট আয়তন ৭৮৩,৫৬২ বর্গকিলোমিটার।

imagesব্রাজিলের সশস্ত্রবাহিনী
ব্রাজিল হচ্ছে দক্ষিণ আমেরিকার সর্ববৃহৎ রাষ্ট্র। এ ছাড়াও জনসংখ্যা ও ভৌগোলিক আয়তনের দিক থেকে এটি বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম দেশ। আয়তন ৮,৫১৪,৮৭৭ বর্গকিলোমিটার। ব্রাজিলের নিয়মিত সেনাসদস্য ৩,২৭,৭১০ জন। রিজার্ভ আর্মি ১৩,৪০,০০০ জন। আধা-সামরিক বাহিনীতে রয়েছে ৩,৯৫,০০০ জন সদস্য। স্থল, বিমান ও নৌবাহিনী নিয়ে ব্রাজিলের সশস্ত্রবাহিনী গঠিত। ব্রাজিলের রয়েছে ৫৮১টি সাঁজোয়া ট্যাংক, একটি বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ, পাঁচটি উভচর যুদ্ধজাহাজ, নয়টি ফ্রিগেট, পাঁচটি করভিট যুদ্ধজাহাজ, ৩৫টি পেট্রল বোট, সাতটি সাবমেরিন, ২২৩টি যুদ্ধবিমান এবং ১৩টি সাঁজোয়া হেলিকপ্টার। দেশটির সামরিক বাজেট ২৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা দেশটির জিডিপির এক দশমিক পাঁচ শতাংশ। বিশ্বের মধ্যে প্রতিরক্ষা ব্যয়ে ব্রাজিলের অবস্থান ১১তম। ব্রাজিল সামরিক বাহিনী ১৮৮৯, ১৯৩০, ১৯৪৫ ও ১৯৬৪ সালের অভ্যুত্থান জড়িত ছিল। সর্বশেষ ১৯৬৪ সালের অভ্যুত্থানের পর সামরিক একনায়কতন্ত্র শুরু হয় যা ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত বলবৎ ছিল।
বর্তমানে ব্রাজিলের বিরুদ্ধে নেই কোনো গুরুতর বহিরাগত বা অভ্যন্তরীণ হুমকি, তাই সশস্ত্রবাহিনীর জন্য নতুন ভূমিকা অনুসন্ধান চলছে। আমাজন জঙ্গল নিয়ে কাজ করছে ব্রাজিলের সেনারা। এ ছাড়া সামরিক বাহিনী, বিশেষ করে সেনাবাহিনী বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কর্মকা- যেমন শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। ১৯৯৪ সালে জাতিসংঘের শান্তি মিশনে যোগ দেয় দেশটির সশস্ত্রবাহিনী।
Bahiniবাংলাদেশ সেনাবাহিনী
উপরোক্ত ১০টি দেশের সেনাবাহিনীর গল্প শোনার পর এখন নিশ্চয়ই বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর গল্পও তোমাদের জানতে ইচ্ছে করছে। হ্যাঁ, তোমাদের সেই জানার আগ্রহকে সামনে রেখে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী সম্পর্কে অল্প কিছু কথা বর্ণনা করছি।
বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীর একটি শাখা। এই বাহিনী বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ১৯৭১ সালের ২৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর বাঙালি সেনা ও মুক্তিবাহিনীর সদস্যদের নিয়ে গঠিত হয়। বর্তমানে এই বাহিনীর সামর্থ্য প্রায় ৩০০,০০০ সদস্য।
ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যান্য সেনাবাহিনীর মতো ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর আদলে গঠিত হয়েছে এই বাহিনী সাতটি ডিভিশন নিয়ে। অবশ্য এই বাহিনী বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর কৌশলগত পরিকল্পনা কার্যপ্রণালী, প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি এবং নন-কমিশন্ড অফিসার প্রশিক্ষণ পদ্ধতি গ্রহণ করেছে? এটি গোলন্দাজ, সাঁজোয়া ও পদাতিক ইউনিট দ্বারা সজ্জিত? অধিকন্তু এই বাহিনী শান্তি-রক্ষীবাহিনী হিসাবে তার সামর্থ্য উন্নত করতে উৎসাহী এবং সেই লক্ষ্যে মার্কিন বাহিনীর সাথে একযোগে কাজ করছে?
বাংলাদেশ সেনাবাহিনী জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা (ইউএনপিএসও)-এর সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত। ১৯৯১ সালের ১ম উপসাগরীয় যুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ২,১৯৩ জন সদস্যবিশিষ্ট একটি দল সৌদি আরব এবং কুয়েতের শান্তিরক্ষা কাজের পর্যবেক্ষক হিসেবে প্রেরণ করে। পরবর্তীতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নামিবিয়া, কম্বোডিয়া, সোমালিয়া, উগান্ডা-রুয়ান্ডা, মোজাম্বিক, প্রাক্তন যুগোস্লাভিয়া, লাইবেরিয়া, হাইতি, তাজিকিস্তান, পশ্চিম সাহারা, সিয়েরা লিওন, কসোভো, জর্জিয়া, পূর্ব তিমুর, কঙ্গো, আইভরি কোস্ট ও ইথিওপিয়ায় শান্তিরক্ষা কাজে অংশগ্রহণ করে। ২০১০ সালের সেপ্টেম্বর মাস হতে বাংলাদেশের প্রায় ১০,৮৫৫ সৈন্য সারা বিশ্বে জাতিসংঘ শান্তি-রক্ষী বাহিনীতে কর্মরত আছে, যা পৃথিবীর অন্য যেকোনো দেশ হতে বেশি।
বর্তমানে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সারাদেশে ছড়ানো ২৩টি ব্রিগেডসহ ৭টি পদাতিক ডিভিশনে বিভক্ত। এতে একটি আরমার্ড (সাঁজোয়া) ব্রিগেড (২টি সাঁজোয়া রেজিমেন্ট), সাতটি গোলন্দাজ ব্রিগেড, একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ এয়ার-ডিফেন্স গোলন্দাজ ব্রিগেড, একটি ইঞ্জিনিয়ার্স ব্রিগেড, একটি কমান্ডো ব্যাটালিয়ন এবং দু’টি এভিয়েশন স্কোয়াড্রন আছে।

SHARE

Leave a Reply