Home নিয়মিত খোলা-ডাক খোলা-ডাক ডিসেম্বর ২০১৩

খোলা-ডাক ডিসেম্বর ২০১৩

Khola-dakবন্ধু আমার
সত্যিই বন্ধু হিসেবে কিশোরকণ্ঠ অত্যন্ত চমৎকার। বন্ধু যেমন বন্ধুর সহযোগিতায় এগিয়ে আসে, ঠিক তেমনি কিশোরকণ্ঠই এগিয়ে এসেছে আমাদের মনের খোরাক জোগাতে। এর প্রতিটি বিভাগ আমার কাছে খুব ভালো লাগে। শায়খ আবদুর রহমান আস সুদাইসির অডিও ক্যাসেটে তার কুরআন তেলাওয়াত আমি সবসময় শুনি। তার তেলাওয়াত আমার কাছে এত ভালো লাগে যে, যখন শুনি তখন মনের ভেতর ইচ্ছে জাগে তাকে একটু দেখার, তার পেছনে নামাজ পড়ার। আর আমার এ আকাক্সক্ষার একটি পূরণ করেছে আমার প্রিয় বন্ধু কিশোরকণ্ঠ অক্টোবর সংখ্যাটি। তাই কিশোরকণ্ঠ আমার উত্তম বন্ধু।
আবদুল মঈন খান
মিরওয়ারিশপুর, বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী

বন্ধু উত্তম
দীর্ঘদিন যাবৎ কিশোরকণ্ঠ পড়ার মাধ্যমে কিশোরকণ্ঠ আমার উত্তম বন্ধুতে পরিণত হয়েছে। এই বন্ধু ছাড়া আমার এক মুহূর্তও ভালো কাটে না। কারণ আমি এই সঙ্গীর কাছে থেকে পাই উত্তম শিক্ষা। প্রত্যেক মাসের শুরুতেই আমি কিশোরকণ্ঠ হাতে পাই এবং এ-টু-জেড পড়ে ফেলি।
মো: ওয়াসিম আকরাম
রানীনগর, শিবগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নতুন জ্ঞানের নতুন আলো
আমি কিশোরকণ্ঠের একজন নতুন পাঠক। নতুন বই পড়ে যেমন নতুন জ্ঞানে আলো পাওয়া যায়, তেমনি আমি কিশোরকণ্ঠ পত্রিকা পড়ে অনেক নতুন জ্ঞান অর্জন করেছি। এ ছাড়াও কিশোরকণ্ঠ পত্রিকায় আমার পড়তে ভালো লাগে যেমন- গল্প, ছড়া কবিতা, রহস্যভেদ, হাসির বাকসো, কুরআনের আলো, হাদিসের আলো ও অন্যান্য বিষয়গুলো। তাই আমি কিশোরকণ্ঠ পত্রিকা পেয়ে খুব আনন্দিত।
মো: ফেরদৌস সরদার
আটঘরিয়া, পাবনা

আলোর মশাল
কিশোরকণ্ঠ আমার প্রাণপ্রিয় পত্রিকা। অপসংস্কৃতির এই রমরমা যুগে কিশোরকণ্ঠ আলোকবর্তিকা হিসেবে পথহারা তরুণদেরকে মুক্তির সন্ধান দিয়ে যাচ্ছে অবিরাম। সত্যিই কিশোরকণ্ঠের তুলনা হয় না। তার পরশে আমাদের অনেক কিছু বদলে গেছে। কিশোরকণ্ঠের প্রত্যেকটি বিভাগ যেন আলোর মশাল। যেমন- হাদিসের আলো, কুরআনের আলো। তা ছাড়া বিনোদনের জন্য তো গল্প কার্টুন আছেই। সব মিলিয়ে কিশোরকণ্ঠ একটা জ্ঞানের জ্বলন্ত প্রদীপ।
মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান (মাসুম)
বেতীহাটি, লাকসাম, কুমিল্লা

হৃদয় ভোলানো
হৃদয় ভোলানোর জন্য যে সকল গল্প, কবিতা, সায়েন্স ফিকশন, রহস্য উপন্যাস, কিশোর উপন্যাস কিশোরকণ্ঠে প্রকাশিত হয় তা সত্যিই অভাবনীয়। তাই কিশোরকণ্ঠ পেলেই আগে ওগুলো পড়ে নিই। অজানাকে জানানোর জন্য কিশোরকণ্ঠ যে কাজ করে যাচ্ছে তা সত্যিই আমার খুব ভালো লাগে। আমি মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করি কিশোরকণ্ঠ যেন আজীবন ধরে এভাবে কিশোরদের হৃদয় ভোলাতে পারে।
সাকিব রহমান দীপু
হরিনারায়ণপুর বহুমুখী উচ্চবিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

পথপ্রদর্শক
বাংলাদেশে বর্তমানে অনেক শিশু-কিশোর সাহিত্য ম্যাগাজিন রয়েছে। কিন্তু একমাত্র কিশোরকণ্ঠ ছাড়া কোনো কিশোর ম্যাগাজিন শিশু-কিশোরদের সঠিক পথ প্রদর্শন করতে পারে না। কেননা কিশোরকণ্ঠ বাংলাদেশের অধিকাংশ শিশু-কিশোরকে ভুল পথ থেকে সরিয়ে সঠিক পথপ্রদর্শন করেছে। এর প্রত্যেকটি বিভাগ যেমন- সাহসী মানুষের গল্প, কিশোর উপন্যাসসহ সবগুলোতে রয়েছে কিশোরদের সঠিক পথপ্রদর্শনের সহায়ক। আমি আশা করি কিশোরকণ্ঠ তাদের এই সুনাম ধরে রাখতে সচেষ্ট ও মনোযোগী হবে অদূর ভবিষ্যতে।
মো: জিয়াউল হক
আল জামেয়াতুল মাদারাসা, ফেনী

জাতির আশা
একটি সৎ, দক্ষ ও আদর্শ জাতি তৈরি করার প্রয়াসে দিক দিগন্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা হাজারো প্রান্তরের তরুণ উদীয়মান মেধাবীদের মাঝে বিলিয়ে দিতে হবে আলোকিত জীবন গড়ার জ্ঞানের মশাল। তা হলেই একটি জাতির চাওয়া পাওয়ার আশা পূরণ হবে। আর এই আশাকে সুবাসিত করতে কিশোরকণ্ঠ তার জ্ঞানের শিখা দিয়ে একটি জাতির চাওয়া পূরণ করে যাচ্ছে, যার জ্বলন্ত প্রমাণ অক্টোবরে তুলে ধরা জাতির মহামূল্যবান সম্পদ শিশুর অধিকার।
মো: সেলিম মিয়া, ভিটিপাড়া, কাপাসিয়া, গাজীপুর

নিজেকে চিনতে পেরেছি
আমি নিজেকে নিজে চিনতে পেরেছি, জানতে পেরেছি এই কিশোরকণ্ঠের মাধ্যমে। চলার পথের বন্ধুই হলো কিশোরকণ্ঠ। কিশোর উপন্যাস ধ্রুবতারা পড়ে অনেক শিক্ষণীয় উপদেশ পেয়েছি, যা চলার পথের সাথীই বটে।
মো: আবদুর রহমান, শাহপরাণ, সিলেট

আমার প্রিয় শিক্ষক
বৃক্ষবিহীন যেমন ফল হওয়া অসম্ভব, ঠিক তেমনি শিক্ষক ব্যতীত সঠিক শিক্ষা পাওয়ায় সম্ভব নয়। সবার জীবনে কেউ না কেউ প্রিয় শিক্ষকের স্থানটা দখল করে আছেন। তবে আমার প্রিয় শিক্ষক একটু ব্যতিক্রম। কেননা, আমার প্রিয় শিক্ষক যে কিশোরকণ্ঠ! এই কিশোরকণ্ঠের কাছ থেকেই আমি প্রতিনিয়তই কিছু না কিছু শিখছি। অবিশ্বাস্য পরিবর্তন ঘটেছে আমার। আমি এখন কলম ধরতে শিখেছি। শিখেছি গল্প, ছড়া ও কবিতা লিখেতে। এ কারণে কিশোরকণ্ঠ আমার সবচেয়ে প্রিয় শিক্ষক।
ওবাইদুল্লাহ ওবাইদ
জামেয়া ইসলামিয়া পটিয়া, চট্টগ্রাম।

একটুকু প্রত্যাশা
প্রতি মাসেই অপেক্ষা করি দীর্ঘ প্রতীক্ষার ধন, জ্ঞানের আধার প্রতিভা বিকাশের উৎকৃষ্টতম মাধ্যম পরম প্রিয় হৃদয়বাণী কিশোরকণ্ঠের জন্য, যার রূপ-রসাত্মক গল্প, সাহসী মানুষের গল্প, মনীষাদের গল্প আমাকে মুগ্ধ করে। প্রেরণা জোগায় সামনে এগিয়ে যাবার। মহান আল্লাহর নিকট দোয়া করি এই পত্রিকাটি যে মাসিক থেকে সাপ্তাহিক পত্রিকায় স্থান লাভ করে আমার মনের আকাক্সক্ষা মেটাতে সাহায্য করে।
মো: জোবায়ের হোসেন
লেবুডাঙ্গা উচ্চবিদ্যালয়

SHARE

Leave a Reply