Home কুরআন ও হাদিসের আলো শিশু-কিশোর পরিচর্যায় ইসলাম

শিশু-কিশোর পরিচর্যায় ইসলাম

বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম
“হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, হযরত রাসূলে করীম (সা) বলেছেন, যে লোক আমাদের শিশু-কিশোরদেরকে স্নেহ-বাৎসল্য দেয় না, আমাদের মধ্যে যারা বেশি বয়সের তাদেরকে সম্মান করে না এবং ভালো কাজের আদেশ করে না ও মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকতে নিষেধ করে না সে আমাদের মধ্যে গণ্য নয়।”
শিশু-কিশোররাই হচ্ছে জাতির আগামী দিনের ভবিষ্যৎ এবং জাতির নেতৃত্বদানকারী। তাই শিশু-কিশোরদেরকে সঠিকভাবে গড়ে তোলা এবং আদর্শ মানুষ হিসেবে গঠন করার জন্য ইসলামই সর্বপ্রথম শিশু-কিশোরদের বিভিন্ন অধিকারের কথা বলেছে। এমনকি নেক সন্তান হিসেবে গড়ে তুলতে পারলে পিতা-মাতা সদকায়ে জারিয়া হিসেবে সন্তানের আমলের কারণে নেকি পেতে থাকেন। তাই শিশু-কিশোরদের বিভিন্ন অধিকার যা ইসলাম প্রদান করেছে তা বাস্তবায়নের মাধ্যমে জাতির ভবিষ্যৎ এই শিশু-কিশোরদের গড়ে তোলা হচ্ছে পিতা-মাতার একান্ত কর্তব্য।
প্রথমত, সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর প্রথমেই তার দুই কানে আজানের ধ্বনি উচ্চারণ করা। এর ফলে শিশু যাতে ভবিষ্যতে আল্লাহ এবং তাঁর রাসূলের (সা) একান্ত অনুসারী হতে পারে তার পথ উন্মোচিত হয়।
দ্বিতীয়ত, সন্তানের উত্তম নামকরণ। উত্তম নামকরণ ইসলামী সভ্যতা ও সংস্কৃতির গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কেননা হাদিসে এসেছে- কিয়ামতের দিন তোমাদেরকে তোমাদের বাপ-দাদার নামে ডাকা হবে। বস্তুত একটি সুন্দর নামে উন্নত রুচির বহিঃপ্রকাশ পাওয়া যায়। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সন্তানের জন্য আকিকা করা। সন্তানের নামে আকিকা তথা পশুর রক্ত প্রবাহিত করা ইসলামের একটি সুন্নত। এর কারণ মূলত পশুর রক্ত প্রবাহিত করে সন্তানের দেহ পবিত্র করা এবং বিপদ আপদ থেকে মুক্তির একটি ব্যবস্থা করা।
উত্তম প্রশিক্ষণÑ লেখাপড়ার ব্যবস্থা করা। ইসলাম শিশু-কিশোরদের উত্তম প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার ব্যবস্থা করার জন্য সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদান করেছে। রাসূল (সা) বলেন, তোমরা  তোমাদের সন্তানদের সম্মান ও আদর-যতœ কর এবং তাদেরকে উত্তম আদব-কায়দা শিক্ষা দাও। আরেকটি  হাদিসে এসেছে- পিতা সন্তানকে উত্তম স্বভাব-চরিত্রের তুলনায় অধিক উত্তম ভালো কোনো দানই দিতে পারে না।
সন্তানদেরকে লালন পালন করার জন্য যা খরচ করা হয় তাকে রাসূল (সা) সদকা বলে ঘোষণা করেছেন। তা ছাড়া তাদের লালন পালন করার জন্য যাবতীয় আর্থিক সহায়তা করাও পিতা-মাতার জন্য কর্তব্য।
ওপরে আমরা শিশু-কিশোরদের অধিকার নিয়ে ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে খুবই সংক্ষেপে আলোচনা করেছি। মূলত শিশু-কিশোরদের ব্যাপারে ইসলাম অত্যধিক গুরুত্ব প্রদান করেছে। আল্লাহ যেন আমাদেরকে আমাদের অতি আদরের ছোট ভাইবোনদের অধিকারগুলো সঠিকভাবে আদায় করার তাওফিক দেন, আমিন।    গ্রন্থনা : মোহাম্মদ ইয়াসীন আলী

SHARE

1 COMMENT

  1. আল্লাহ আমাদেরকে ছোটদের প্রতি সদয় হওয়ার তৌফিক দান করুন

Leave a Reply to HM.Rashik Anjum Cancel reply