Home কুরআন ও হাদিসের আলো কুরআনের আলো আল কুরআন রমজানের শ্রেষ্ঠ উপহার

আল কুরআন রমজানের শ্রেষ্ঠ উপহার

বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম
“রমজান মাস, এতে মানুষের দিশারী এবং সৎপথের স্পষ্ট নিদর্শন ও সত্যাসত্যের পার্থক্যকারীরূপে কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যারা এ মাস পাবে তারা যেন এ মাসে সিয়াম পালন করে।”
(সূরা বাকরা, আয়াত  ১৮৫)

সুপ্রিয় বন্ধুরা, প্রকৃতপক্ষে রমজান মাস অন্যান্য মাসের মতোই একটি মাস। এ মাসটির গুরুত্ব ও মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে এ কারণে যে মাহাগ্রন্থ আল কুরআন এ মাসেই অবতীর্ণ হয়েছে। আর আল কুরআন হচ্ছে বিশ্ব মানবতার জন্য আল্লাহতায়ালা কর্তৃক অবতরণকৃত মহাসংবিধান। মানুষের ব্যক্তিজীবন থেকে শুরু করে পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, রাষ্ট্রীয় আন্তর্জাতিক সকল সমস্যার সমাধান আল কুরআনে বর্ণিত হয়েছে। আল কুরআনের অন্য এক স্থানে বলা হয়েছে, “নিশ্চয়ই আমি কুরআন অবতীর্ণ করেছি মহিমান্বিত রাতে, আর মহিমান্বিত রাত সম্বন্ধে আপনি কিছু জানেন কি? মহিমান্বিত রাত হচ্ছে হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ।” (সূরা কদর : ১-৩) সুতরাং যে মহাসংবিধান আল কুরআন নাজিলের কারণে একটি মাসের মর্যাদা এভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে সেই কুরআনের মর্যাদা অবশ্যই অনেক। এজন্য আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে এই রমজান মাসে আমরা কুরআন পড়া বিশুদ্ধভাবে শিখে তার বিধান অনুযায়ী নিজেদেরকে গড়ে তুলবো।
রমজানের রোজা রাখা শরীয়তী ওজরবিহীন প্রাপ্তবয়স্ক প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর ওপর ফরজ। রোজা ইসলামের অন্যতম ফরজ বিধান। বিনা কারণে ১টি রোজা ভঙ্গ করলে অন্য সময়ের সারাজীবনের রোজা তার সমকক্ষ হবে না। সুতরাং রমজান মাসের রোজা অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে আদায় করা কর্তব্য। হযরত আবু হুরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত। রাসূল (সা) বলেন : সে সত্তার শপথ যাঁর নিয়ন্ত্রণে আমার প্রাণ, অবশ্যই রোজাদারের মুখের দুর্গন্ধ আল্লাহর নিকট মিশকের ঘ্রাণের চেয়েও অধিক উৎকৃষ্ট। সে আমারই জন্য পানাহার ও নিদিংষ্ট কিছু জিনিস পরিত্যাগ করে। রোজা আমারই জন্য তাই এর পুরস্কার আমি নিজেই দান করব। আর প্রত্যেক নেক কাজের বিনিময় দশগুণ। (সহীহ বুখারী)
যখন রমজান আরম্ভ হয় জান্নাতের দরজাগুলি খুলে দেয়া হয়, জাহান্নামের দরজাগুলি বন্ধ করে দেয়া হয, আর শয়তানদের শৃঙ্খলাবদ্ধ করা হয়। (বুখারী মুসলিম)
সাহরী খাওয়া সুন্নাত। রাসূল (সা) বলেছেন, তোমরা সাহরী খাও। কেননা সাহরীতে বরকত রয়েছে। তিনি আরো বলেন, লোকেরা যতদিন সময় হওয়ার সাথে সাথে ইফতার করবে, ততদিন তারা কল্যাণের ওপর থাকবে। (সহীহ বুখারী)
বন্ধুরা, এসো রমজান মাসে আমরা কুরআন পড়া শিখে, কুরআন বুঝে সে অনুযায়ী নিজেদের জীবন ঢেলে সাজানোর চেষ্টা করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হই। আর রমজান মাসে বেশি বেশি ভালো কাজ করে এবং খারাপ কাজগুলো পরিত্যাগ করার মাধ্যমে জান্নাত পাবার পথকে প্রশস্ত করি।
গ্রন্থনা : মোহাম্মদ ইয়াসীন আলী

SHARE

1 COMMENT

Leave a Reply to Sobuj gk Cancel reply