Home কুরআন ও হাদিসের আলো কুরআনের আলো কুরআনের আলো

কুরআনের আলো

পরিবেশকে বাসযোগ্য রাখার দায়িত্ব আমাদের
বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম
“আমি বিস্তৃত করেছি ভূমিকে ও তাতে স্থাপন করেছি পর্বতমালা এবং তাতে উদগত করেছি নয়নাভিরাম সকল প্রকার উদ্ভিদ। এটি আল্লাহতে বিশ্বাসী প্রত্যেক ব্যক্তির জন্য জ্ঞান ও উপদেশ স্বরূপ। আসমান থেকে আমি বর্ষণ করি উপকারী বৃষ্টি। এর দ্বারা আমি বাগান, শস্যরাজি ও খেজুর গাছ জন্মিয়েছি যার মধ্যে ফলের ছড়া থরে থরে থাকে। আমার বান্দাদের জীবিকাস্বরূপ। আমি বৃষ্টি দ্বারা সঞ্জীবিত করি মৃত ভূমিকে।”
(সূরা কাফ, আয়াত ৭-১১)
বন্ধুরা, আলোচ্য আয়াতগুলোতে মহান আল্লাহ পৃথিবীকে যে ভারসাম্যপূর্ণভাবে সৃষ্টি করেছেন তার একটি চিত্র তুলে ধরেছেন। আল্লাহ যে মহাবিজ্ঞ এবং তাঁর সৃষ্ট প্রত্যেকটি জিনিসই যে বিজ্ঞানময় তা এখান থেকে উপলব্ধি করা যায়। কারণ এ পৃথিবীকে স্থির রাখার জন্য বড় বড় পাহাড়-পর্বতকে পেরেক হিসেবে স্থাপন করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত এ পৃথিবীকে মানুষের জন্য সুন্দরভাবে বসবাস উপযোগী করার লক্ষ্যে হাজারো প্রকারের গাছপালা, লতা, গুল্ম তথা উদ্ভিদরাজী সৃষ্টি করেছেন।
বর্তমান বিজ্ঞানের বিভিন্ন আবিষ্কারের ফলে আমরা জানতে পেরেছি যে একটি দেশের পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষার জন্য দেশের মোট আয়তনের ২৫ ভাগের মতো বনাঞ্চল থাকা প্রয়োজন। অথচ আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন সূরাতে অনেক আগেই এ সম্পর্কে ইশারা ইঙ্গিত প্রদান করেছেন। যেমন সূরা আনআমের ১৪১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছেÑ “তিনিই লতা ও বৃক্ষ উদ্যানসমূহ সৃষ্টি করেছেন এবং খেজুর বৃক্ষ, বিভিন্ন স্বাদ বিশিষ্ট খাদ্যশস্য; জলপাই ও দাড়িম্ব বাগিচা সৃষ্টি করেছেন। এরা একে অন্যের সদৃশ ও বৈসদৃশও বটে। যখন তা ফলবান হয় তখন তার ফল খাবে।”
মূলত এ পৃথিবীকে বসবাস উপযোগী রাখার ক্ষেত্রে যে ধরনের পরিবেশ প্রয়োজন, তা ভারসাম্যপূর্ণ রাখার ক্ষেত্রে গাছপালার অবদান অবস্বীকার্য়। গাছপালা পরিবেশে অক্সিজেন সরবরাহ করে এবং ক্ষতিকর কার্বন ডাই-অক্সাইড শোষণ করে আমাদের এই পরিবেশকে বসবাসের জন্য উপযোগী করে রাখছে। পরিবেশকে ভারসাম্যপূর্ণ রাখতে এবং বিভিন্ন ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন অতিবৃষ্টি, খরা, বন্যা ইত্যাদি থেকে রক্ষা পেতে আমাদেরকে বেশি বেশি বৃক্ষ রোপনের কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে আমরা  বৃক্ষরোপন অভিযান, যত্রতত্র গাছ কেটে না ফেলা, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর কার্যক্রম গ্রহণ না করা ইত্যাদি কায়ক্রম গ্রহণ করতে পারি। আর এ নির্দেশনা রাসূল (সা)ও দিয়েছেনÑ “যে বরই গাছ কেটেছে তাকে আল্লাহ মাথা নিচু করে জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন।” (আবু দাউদ) ইমাম আবু দাউদ এ হাদিসের সংক্ষিপ্ত তাৎপর্যে বলেন, যে ব্যক্তি অন্যায়ভাবে তার কোনো ফায়দা ছাড়া মাঠের বরই গাছ কেটেছে যার নিচে পথিক ও পশু আশ্রয় নেয় আল্লাহ তার মাথাকে নিচু করে জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন। (মিশকাত)
অতএব বন্ধুরা, এসো আমরা সকলে মিলে পরিবেশটাকে বসবাসযোগ্য করে গড়ে তুলি এবং প্রত্যেকে যার যার সাধ্যমত অবদান রাখি।
গ্রন্থনা : মোহাম্মদ ইয়াসীন আলী

SHARE

Leave a Reply