Home জানার আছে অনেক কিছু ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)

বাংলাদেশের জাতীয় খেলা কাবাডি হলেও জনপ্রিয়তায় এ খেলাকে ছাড়িয়ে বহু দূর চলে গেছে ক্রিকেট। শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর বহু দেশের মানুষের কাছেই ক্রিকেট সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা। জনপ্রিয় এ খেলাটির সর্বোচ্চ সংস্থাটির নাম ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল। সংক্ষেপে এটি আইসিসি (ওঈঈ) নামে পরিচিত।
যদিও ক্রিকেটের কোনো নিয়ম পরিবর্তনের আইনগত অধিকার শুধু ম্যারিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের (এমসিসি) রয়েছে, তবু নিয়ম পরিবর্তন করতে গেলে এমসিসিকে অবশ্যই আইসিসির সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে। বর্তমানে ১০৬টি দেশ আইসিসির সদস্য। আইসিসি প্রথম যাত্রা শুরু করে ইম্পেরিয়াল ক্রিকেট কনফারেন্স নাম নিয়ে। ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকার একটি প্রতিনিধিদল ১৯০৯ সালের ১৫ জুন এটি প্রতিষ্ঠা করেছিল।
প্রথমদিকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত যেসব দেশে টেস্ট ক্রিকেটের প্রচলন ছিল শুধু তারাই এর সদস্য হতে পারত। ১৯২৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড এবং ভারত ইম্পেরিয়াল ক্রিকেট কনফারেন্সের পূর্ণ সদস্যপদ পায়। এ বছর সংস্থাটির সদস্যপদ নির্ধারণের নিয়মেও কিছু পরিবর্তন আসে। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সৃষ্টির পর, ১৯৫২ সালে সপ্তম জাতি হিসেবে দেশটিকে টেস্ট স্ট্যাটাস দেয়া হয়। ১৯৬১ সালে কমনওয়েলথ ছেড়ে যাওয়ায় সংস্থাটির সদস্যপদ হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
১৯৬৫ সালে সংস্থাটির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কনফারেন্স। একই সঙ্গে এর সদস্যপদ নির্ধারণের রীতিতেও আসে বড় ধরনের পরিবর্তন। ১৯৮১ সালে শ্রীলঙ্কা আইসিসির পূর্ণ সদস্য হয়। ১৯৮৯ সালে আবারও সংস্থাটির নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় বর্তমান নামটি। ১৯৯১ সালে আইসিসির সদস্যপদ ফিরে পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ১৯৯২ সালে যোগ হয় জিম্বাবুয়ে। সর্বশেষ ২০০০ সালে টেস্ট স্ট্যাটাস ও আইসিসির পূর্ণ সদস্যপদ লাভ করে বাংলাদেশ।
সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে আইসিসির প্রধান কার্যালয় অবস্থিত।

হ জে হুসাইন

SHARE

Leave a Reply