Home কুরআন ও হাদিসের আলো মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া বড় গুণাহ

মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া বড় গুণাহ

বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহীম

হযরত আবু বাকারাতা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা আমরা নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দরবারে উপস্থিত ছিলাম। হঠাৎ তিনি বললেন, ‘আমি কি তোমাদের সবচেয়ে বড় গুণাহের কথা বলে দেবো না?’ কথাটা তিনি তিনবার বললেন। অতঃপর তিনি বললেন, ‘তা হচ্ছে আল্লাহর সাথে কাউকে শরিক করা, পিতা-মাতার অবাধ্য হওয়া এবং মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া বা কথা বলা।’ রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হেলান দিয়ে বসা অবস্থায় কথাগুলো বলছিলেন। হঠাৎ কথার গুরুত্ব বোঝানোর জন্য সোজা হয়ে বসলেন এবং উক্ত কথাটি বারবার বলতে থাকলেন। এমনকি আমরা মনে মনে বলছিলাম, আহ্! হুজুর যদি এখন থেমে যেতেন।
(সহীহ বুখারী ও সহীহ মুসলিম)

প্রিয় বন্ধুরা,
প্রকৃত অবস্থা বা বাস্তবতাকে অস্বীকার করে কিংবা সত্য ঘটনাকে বিকৃত করে যে ব্যক্তি মিথ্যা বলে তাকে মিথ্যাবাদী বলে। মিথ্যাবাদীকে কেউ ভালোবাসে না, কেউ পছন্দ করে না। তাকে সকলেই ঘৃণা করে। এটা মুনাফিকের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। মিথ্যা কেবল ইসলামেই নিকৃষ্ট পাপ নয় বরং পৃথিবীর সকল ধর্ম ও নীতিতেই মিথ্যা ভয়াবহ এবং ঘৃণিত অপরাধ। মিথ্যাচার সম্পর্কে মহান আল্লাহর ঘোষণাÑ “আর যে ব্যক্তি নিজে কোনো অন্যায় বা পাপ কাজ করে অতঃপর কোনো নির্দোষ ব্যক্তির ওপর তার দোষ চাপিয়ে দেয়, সে যেন নিজেই জঘন্য মিথ্যা ও প্রকাশ্য গুণাহ বহন করল। এখানে না জেনে অন্যের সম্পর্কে মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়াও অন্তর্ভুক্ত।
সাক্ষ্য এমন একটি বিষয় যা একজন মানুষকে মুক্তি দেয় অথবা বিপদে ফেলে। একটি সত্য সাক্ষ্য কোনো একজন নির্যাতিত মানুষকে বিপদ থেকে মুক্তি দিতে পারে। অপর দিকে একটি মিথ্যা সাক্ষ্যের মাধ্যমে একজন ভালো মানুষের জেল-জুলুম বা আরো বড় কোনো সাজা হয়ে যেতে পারে। সুতরাং কিছুতেই মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া যাবে না। মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া থেকে আমাদেরকে বিরত থাকতে হবে। এমনকি আমাদের পিতা-মাতা, ভাই-বোন বা অন্য কোনো আত্মীয়-স্বজন মিথ্যা সাক্ষ্য দিতে তৈরি হলেও তাদেরকে তা থেকে বিরত রাখতে হবে। আর মিথ্যা সাক্ষ্য থেকে বাঁচতে হলে আমাদেরকে অবশ্যই সত্যের দিকে মনোনিবেশ করতে হবে। কারণ সত্য মানুষকে মুক্তি দেয়, মিথ্যা মানুষকে ধ্বংস করে। সাক্ষ্য যদি একান্ত দিতেই হয় তবে সত্য সাক্ষ্য দিতে হবে। অপরদিকে মিথ্যা সাক্ষ্য না দিয়ে প্রয়োজনে সাক্ষ্য দেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।
বন্ধুরা,
এসো আমরা সদা সত্যের সাথে চলি এবং মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়া থেকে নিজে বিরত থাকি ও অন্যকেও বিরত রাখি।

SHARE

Leave a Reply