Home সাহসী মানুষের গল্প কোমল অতি ধবল জ্যোতি

কোমল অতি ধবল জ্যোতি

কায়েস মাহমুদ..

হযরত আনাস সম্পর্কে আগেই আমরা অনেক কিছু জেনেছি। কিন্তু এমন একজন ব্যক্তি সম্পর্কে জানার কি কোনো শেষ আছে!
মূলত তিনিই তো ছিলেন কোমল অতি ধবল জ্যোতি।
উমাইয়্যা শাসন আমলে হযরত উমার ইবন আবদিল আযীয (রা) যুবরাজ থাকাকালে একবার মদীনার গভর্নর ছিলেন। যেহেতু শাহী খান্দানের সদস্য ছিলেন, এ কারণে জাতীয় জীবনের অনেক কিছুই তাঁর জানা ছিল না।
সে যুগের প্রচলন অনুযায়ী নিজেই নামাজের ইমামতি করতেন এবং মাঝে মধ্যে কিছু ভুল-ত্র“টিও হয়ে যেত। হযরত আনাস প্রায়ই তাঁর ভুল ধরিয়ে দিতেন।
তিনি একবার হযরত আনাসকে বললেন, আপনি এভাবে আমার বিরোধিতা করেন কেন?
হযরত আনাস বললেন, আমি যেভাবে রাসূলুল্লাহকে (সা) নামাজ পড়তে দেখেছি আপনি যদি সেইভাবে নামাজ পড়ান তাহলে আমি সন্তুষ্ট হবো। অন্যথায় আপনার পিছনে নামাজ আদায় করবো না।
হযরত উমার ইবন আবদিল আযীয ছিলেন বুদ্ধিমান ও সৎ স্বভাব-বিশিষ্ট ব্যক্তি। হযরত আনাসের কথায় তিনি প্রভাবিত হলেন। তিনি আনাসকে উস্তাদ হিসাবে গ্রহণ করলেন। কিছুদিন তাঁর সাহচর্য ও শিক্ষার প্রভাবে তিনি এমন সুন্দর নামাজ পড়াতে লাগলেন যে, খোদ আনাসই বলতে লাগলেন, এই ছেলের নামাজের চেয়ে আর কারও নামাজ রাসূলুল্লাহর (সা) নামাজের সাথে অধিকতর সাদৃশ্যপূর্ণ নয়।
একবার খলীফা আবদুল মালিক হযরত আনাসসহ আরও চল্লিশজন আনসারী ব্যক্তিকে দিমাশকে ডেকে পাঠান। সেখান থেকে ফেরার পথে ফাজ্জুন নাকাহ নামক স্থানে পৌঁছলে আসর নামাজের সময় হয়ে যায়।
যেহেতু সফর তখনও শেষ হয়নি, এই কারণে হযরত আনাস দুই রাকায়াত নামাজ পড়ান।
তবে কিছু লোক আরও দুই রাকায়াত পড়ে চার রাকায়াত পুরো করেন।
একথা হযরত আনাস জানতে পেরে দারুণ ক্ষুব্ধ হন এবং বলেন, আল্লাহ যখন কসরের অনুমতি দিয়েছেন তখন এ সুবিধা গ্রহণ করবে না কেন? আমি রাসূলকে (সা) বলতে শুনেছি, এমন একটি সময় আসবে যখন মানুষ দ্বীনের ব্যাপারে অহেতুক বাড়াবাড়ি করবে। আসলে তারা দীনের প্রকৃত রহস্য সম্পর্কে থাকবে গাফিল।
সত্যকথা বলা এবং সত্যকে পছন্দ করা ছিল হযরত আনাসের চরিত্রের এক উজ্জ্বল বৈশিষ্ট্য।
খিলাফতে রাশেদার প্রথম দুই খলীফার পর এমন অনেক যুবক সরকারের উচ্চ পদে অধিষ্ঠিত হয় যারা ইসলামী শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ থেকে সম্পূর্ণ বঞ্চিত চিল। এজন্য তাদের অনেক কাজই কুরআন-সুন্নাহর পরিপন্থী হতো।
যে সাহাবায়ে কিরাম জীবনের বিনিময়ে ইসলাম খরীদ করেছিলেন তাঁরা এটা সহ্য করতে পারতেন না। তাঁরা ভয়-ভীতির উর্ধ্বে উঠে সব সময় সত্য কথাটি স্পষ্টভাবে বলে দিতেন।
হযরত আনাস রাসূলুল্লাহর (সা) ওফাতের পর দীর্ঘ দিন জীবিত ছিলেন। তাঁর দীর্ঘ জীবনে বহু স্বৈরাচারী শাসকের সাক্ষাৎ লাভ করেছেন যারা প্রকাশ্যে শরীয়াতের প্রতি অবহেলা করতো।
হযরত আনাস এ অবস্থায় চুপ থাকেননি। তিনি প্রকাশ্যে জনসমাবেশে তাদের সতর্ক করে দিতেন।
ইয়াযীদের সময়ে আবদুল্লাহ ইবন যিয়াদ ছিলেন ইরাকের গভর্নর। তাঁর নির্দেশে হযরত ইমাম হুসাইনের পবিত্র মাথা সামনে আনা হলে তিনি হাতের ছড়িটি দিয়ে হযরত হুসাইনের চোখে টোকা দিয়ে তাঁর সৌন্দর্য সম্পর্কে কিছু অশালীন কটাক্ষ করেন। হযরত আনাস নিজেকে আর সম্বরণ করতে পারলেন না। ক্রোধে উত্তেজিত হয়ে বললেন, এই চেহারা রাসূলুল্লাহর (সা) চেহারার সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ।
উমাইয়্যা রাজবংশের বিখ্যাত স্বৈরাচারী গভর্নর হাজ্জাজ ইবন ইউসুফ আসÑসাকাফী নিজের ছেলেকে বসরার কাজী নিয়োগ করতে চায়। হাদীস শরীফে বিচারক অথবা আমীরের পদের আকাক্সক্ষী হবার নিষেধাজ্ঞা এসেছে। তাই হযরত আনাস হাজ্জাজের এই ইচ্ছার কথা জানতে পেরে বলেন, এমনটি করতে রাসূল (সা) নিষেধ করেছেন।
উমাইয়্যা শাসকদের আর এক আমীর হাকাম ইবন আইউব। তাঁর নৃশংসতা মানুষের সীমা অতিক্রম করে জীব-জন্তু পর্যন্ত পৌঁছে যায়।
একবার হযরত আনাস তাঁর বাড়িতে গিয়ে দেখেন, মুরগীর পায়ে দড়ি দিয়ে বেঁধে তীরের নিশানা বানানো হচ্ছে। তীর লাগলে মুরগীটি ছটফট করছে।
হযরত আনাস এ দৃশ্য দেখে খুবই মর্মাহত হলেন এবং মানুষকে তাদের এ কাজের জন্য ধিক্কার দিলেন।
একবার কিছু লোক জুহরের নামাজ আদায় করে হযরত আনাসের সাক্ষাতের জন্য আসে। তিনি তখন চাকরের নিকট অজুর পানি চাইলেন। লোকেরা জানতে চাইলো, এ কোন্ নামাজের প্রস্তুতি?
বললেন, আসর নামাজের।
এক ব্যক্তি বললো, আমরা তো এখনই জুহর পড়ে এলাম।
হযরত আনাস আমীর উমরাহের দ্বীনের প্রতি উদাসীনতা এবং জনগণের দ্বীন সম্পর্কে অজ্ঞতা দেখে দারুণ ক্ষুব্ধ হলেন। তিনি বললেন, এ তো হবে মুনাফিকদের নামাজ। মানুষ বেকার বসে থাকবে, তবুও নামাজের জন্য উঠবে না। যখন সূর্য অস্ত যেতে থাকবে তখন খুব তাড়াতাড়ি মোরগের মত চারটি ঠোকর মেরে দেবে। সেই ঠোকরে আল্লাহর স্মরণ থাকবে অতি অল্পই। প্রকৃত দীনদারের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে আমর বিল মারূফÑসৎ কাজের আদেশ দান করা। আর এজন্যই কুরআন মজীদে উম্মাতে মুসলিমাকে সর্বোত্তম উম্মাত হিসাবে অভিহিত করা হয়েছে।
হযরত আনাসের মধ্যে এই গুণটির বিশেষ বিকাশ ঘটেছিল।
একবার উবাইদুল্লাহ ইবন যিয়াদের একটি মজলিসে হাউজে কাওসার প্রসঙ্গে আলোচনা হয়। উবাইদুল্লাহ এর বাস্তবতা সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করেন।
একথা হযরত আনাসের কানে গেল। তিনি সরাসরি উবাইদুল্লাহর দরবারে উপস্থিত হয়ে তাঁকে প্রশ্ন করেন, তোমার এখানে কি হাউজে কাওসার প্রসঙ্গে কিছু আলোচনা হয়েছিল?
বললেন, হ্যাঁ। কেন, রাসূল (সা) কি এ সম্পর্কে কিছু বলেছেন?
হযরত আনাস (রা) হাউজে কাওসার সম্পর্কে রাসূলের (সা) হাদীস তাঁকে শুনিয়ে হযরত মুসয়াব ইবন উমাইর (রা) একজন আনসারী ব্যক্তির ষড়যন্ত্রের রিপোর্ট পেলেন।
এই অপরাধের জন্য তিনি লোকটিকে পাকড়াও করার চিন্তা করলেন। লোকেরা হযরত আনাসকে কথাটি জানালেন।
তিনি সোজা মুসয়াবের কাছে গিয়ে বললেন, রাসূলুল্লাহ (সা) আনসারদের প্রতি ভালো ব্যবহার করার জন্য আমীরদের অসীয়াত করেছেন। তাদের ভালো লোকদের সাথে উত্তম আচরণ এবং খারাপ লোকদের ক্ষমা করতে বলেছেন। এই হাদীস শোনা মাত্র মুসয়াব ইবন উমাইর (রা) খাট থেকে নীচে নেমে এসে মাটিতে কপাল ঠেকিয়ে বলেন, রাসূলুল্লাহর (সা) আদেশের স্থান আমার চোখের ওপর। আমি লোকটিকে ছেড়ে দিচ্ছি।
সাবিত আন-নাবানী বলেন, একদিন আমি বসরার যাবিয়া নামক স্থানে আনাসের সঙ্গে চলছিলাম। এমন সময় আজান শোনা গেল।
সাথে সাথে আনাসম মন্থর গতিতে চলতে শুরু করলেন এবং এভাবে আমরা মসজিদে প্রবেশ করলাম। তারপর তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি বলতে পার কেন আমি এভাবে হেঁটে মসজিদে এলাম?
তারপর নিজেই বললেন, নামাজের জন্য আমার পদক্ষেপ যাতে বেশি হয়, সেই জন্য।
হযরত আনাস ইলম হাসিলের চেয়ে অর্জিত ইলম অনুযায়ী আমলের ওপর বেশি জোর দিতেন। তিনি বলতেন : যত ইচ্ছা ইলম বা জ্ঞান হাসিল কর। তবে আল্লাহর কসম, আমল না করলে সে সব ইলমের প্রতিদান দেওয়া হবে না।
তিনি আরও বলতেন : প্রকৃত আলেমের কাজ বুঝা ও সেই অনুযায়ী কাজ করা। আর মূর্খদের কাজ শুধু বর্ণনা করা।
তিনি রাসূলুল্লাহর (সা) সুন্নাতের প্রতি অপরিসীম গুরুত্ব দিতেন।
এ সম্পর্কে তিনি রাসূলুল্লাহর (সা) হাদীস বর্ণনা করেছেন। রাসূল (সা) বলেছেন : যে আমার সুন্নাত ছেড়ে দেবে সে আমার উম্মাতের কেউ নয়। তিনি আরও বলেছেন : যে আমার সুন্নাত অনুসরণ করবে সে আমার দলভুক্ত।
হযরত আনাস (রা) রাসূলুল্লাহর (সা) ব্যবহৃত বেশ কিছু জিনিস স্মৃতি হিসাবে সংরক্ষণ করেছিলেন, যেমন : জুতো, একটি চাদর, একটি পিয়ালা, তাঁবুর কয়েকটি খুঁটি ইত্যাদি। আনাস বলতেন : আমার মা উম্মু সুলাইম মৃত্যুকালে আমার জন্য রেখে যান রাসূলুল্লাহর (সা) একটি চাদর, একটি পিয়ালা যাতে তিনি পানি পান করতেন, তাঁবুর কয়েকটি খুঁটি এবং একটি শীলা যার ওপর আমার মা রাসূলুল্লাহর (সা) ঘাম মিশিয়ে সুগন্থি পিষতেন।
হযরত আনাসের মত নির্মল চরিত্র, ঈমানের দৃঢ়তা আর রাসূল (সা) ও দ্বীনের প্রতি ভালোবাসা আমাদের মধ্যেও জাগিয়ে তোলা প্রয়োজন।

SHARE

1 COMMENT

Leave a Reply